Skip to content

হিন্দু ধর্ম ও সংস্কৃত ভাষা পরীক্ষায় উজ্জ্বল উত্তীর্ণ কেউ

June 6, 2017

আশা করা যায় সত্তর পূর্ণ করা স্বাধীন ভারতে হিন্দু ধর্ম ও সংস্কৃত ভাষা পরীক্ষায় উজ্জ্বল উত্তীর্ণ রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক কেউ রাষ্ট্রপতি হয়ে আসবেন, ভালই হবে, এঅঞ্চলে প্রায়শই দেখা যায় যে যেমনই হোক না কেন বয়সকালে তাদের ধর্মে মতি আসে, ফলে এরকম একজন রাষ্ট্রপতিকে আমি অগ্রিম শুভেচ্ছা জানিয়ে রাখলাম আর এটাও বুঝে নিলাম আমাদের সামনের দিনগুলোতে আর সব কিছু বাদ দিয়ে ইসলামিয়াত পরীক্ষা আর হিন্দু ধর্ম ও সংস্কৃত ভাষা পরীক্ষার ব্যস্ততায় আমাদের জীবনীশক্তির সিংহভাগ দগ্ধ হবে, এই বিদগ্ধতার ঘা নিয়ে সামনের দিনগুলো কাটাতে আমাদের কেমন লাগবে সে কেবল ভুক্তভোগীরাই দিনে দিনে আমাদেরকে জানাতে পারবে।

Advertisements
3 Comments
  1. হিন্দু ধর্ম ও সংস্কৃত ভাষা পরীক্ষায় উজ্জ্বল উত্তীর্ণ কাউকে নয় এক দলিতকে রাষ্ট্রপতি মনোনয়ন দিল ভারতীয় জনতা দল, ফলে এখন দলিত প্রধানমন্ত্রী একজন দলিত রাষ্ট্রপতি পেতে যাচ্ছেন, এই রাজনৈতিক সমীকরণই বেছে নিল ভাজপা।

    Ram Nath Kovind, Bihar Governor and a Dalit, is NDA’s Presidential nominee

    If elected, Ram Nath Kovind will be the second Dalit Indian President after KR Narayanan.

    Ending days of speculation, the Bharatiya Janata Party (BJP) today named Bihar Governor Ram Nath Kovind as its presidential candidate. The decision was taken in a top level BJP meeting in New Delhi today which was attended by Prime Minister Narendra Modi, party president Amit Shah and Foreign Affairs Minister Sushma Swaraj, who was also reportedly considered for the top post.

    “We have decided that Bihar Governor Ramnath Kovindji would be our candidate for President. All parties have been informed about the decision,” Amit Shah told reporters. “Ram Nath Kovindji has been working for Dalits, downtrodden and minorities since long,” he added.

    Kovind is likely to file his papers on June 23, Amit Shah said after a nearly two-hour meeting of the BJP Parliamentary Board.

    The BJP president said that PM Narendra Modi has conveyed party’s decision to Congress president Sonia Gandhi and former Prime Minister Manmohan Singh.

    No decision has been taken over who would replace Vice-President Hamid Ansari, Amit Shah said.

    If elected, Ram Nath Kovind will be the second Dalit Indian President after KR Narayanan.

    PM Modi has also spoken to Bihar CM Nitish Kumar, Andhra Prdaesh CM Chandrababu Naidu and Tamil Nadu CM E Palaniswamy.

    Telangana CM and TRS chief KC Rao has extended support to NDA’s presidential candidate Ram Nath Kovind after speaking to Prime Minister Modi

    Ruling Telugu Desam Party of Andhra Pradesh, which is also an important partner of NDA has already confirmed its support.

    ABOUT RAM NATH KOVIND

    Born on October 1, 1945 at Kanpur Dehat, Uttar Pradesh, Ram Nath Kovind started his career as a lawyer. He practised as an advocate for the Central Government at Delhi High Court from 1977 to 1979.

    He was a permanent advocate for the Centre at the Supreme Court between 1980 and 1993.

    The 71-year-old Bihar Governor was a Rajya Sabha member between 1994 and 2006 from Uttar Pradesh.

    http://indiatoday.intoday.in/story/ram-nath-kovind-presidendital-election-2017/1/982133.html

  2. masudkarim permalink

    রামের মেয়ে নন, রাইসিনায় রামনাথ

    http://www.aajkaal.in/news/title/ramnath-kobind-yf1o

    মাত্র দু’‌মাস আগেই তাঁকে শিমলার সামার হলিডে রিসর্টে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। সেই সময় রামনাথ কোবিন্দ বিহারের রাজ্যপাল। পরিবারকে নিয়ে গিয়েছিলেন শিমলাতে রাষ্ট্রপতি এলে যেখানে থাকেন সেই রিসর্ট দেখানোর জন্য। কিন্তু বিশেষ নিরাপত্তার কারণে তাঁকে সেখানে ঢুকতে বাধা দেয় নিরাপত্তারক্ষীরা। কোবিন্দ কোনও বিতর্কে না গিয়ে পরিবারকে নিয়ে ফিরে আসেন। আর আজ সেই রাজনাথ কোবিন্দই সসম্মানে প্রবেশ করবেন রাইসিনা হিলে। দেশের ১৪তম রাষ্ট্রপতি কোবিন্দকে সিমলার সামার হলিডে রিসর্টের নিরাপত্তারক্ষীরাও স্যালুট ঠুকবে। এটা সত্যিই মিরাকেল।
    রাষ্ট্রপতি হিসাবে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পাঁচ বছরের অধ্যায় শেষ হয়ে যাওয়ার পরে পরবর্তী রাষ্ট্রপতি হিসাবে রামনাথ কোবিন্দের নাম যে উঠে আসবে, তা কখনওই ভাবেনি কোনও রাজনৈতিক দল। রাইসিনা হিলে অভিজাতদেরই রমরমা। ব্যতিক্রম যে হয়নি তা নয়। তবে তা ‘‌ব্যতিক্রম’‌ই। সেই চিরাচরিত প্রথা ভেঙে এনডিএ পদপ্রার্থী হিসাবে যখন দলিত নেতা রামনাথ কোবিন্দের নাম ঘোষণা করা হল তখন অনেক রাজনৈতিক পণ্ডিতই তাঁর যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। বলা হতে থাকে, আরও যোগ্য কাউকে পাওয়া গেল না?‌ বিরোধী ১৭ দল যখন আর এক দলিত নেত্রী মীরা কুমারকে প্রার্থী করে, তখন সেই বক্তব্য উচ্চগ্রামে পৌঁছয়। কোথায় দলিত নেতা বাবু জগজীবন রামের মেয়ে, লোকসভার প্রাক্তন স্পিকার তথা ১৯৭৩ কেডারের আইএফএস অফিসার, ব্রিটেন, স্পেন ও মরিশাসের দূতাবাসে কাজ করে আসা মীরাকুমার, আর কোথায় রামনাথ কোবিন্দ!‌
    উত্তরপ্রদেশের কানপুরের একটি ছোট্ট গ্রাম দেহাতে জন্ম রামনাথ কোবিন্দের। আইন নিয়ে কানপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিএভি কলেজ থেকে স্নাতক হন। তাঁর বাবা পেশায় একজন কৃষক ছিলেন। দিল্লি হাইকোর্টে আইনজীবী হিসাবে কোবিন্দ প্রথম তাঁর কর্মজীবন শুরু করেন। এরপর দিল্লি হাইকোর্ট এবং সুপ্রিম কোর্টে প্রায় ১৬ বছর একজন দক্ষ আইনজীবী হিসাবে কাজ করেছেন। ১৯৯১ সাল থেকেই কোবিন্দের রাজনৈতিক জীবন শুরু হয়। তিনি বিজেপি দলিত মোর্চার সভাপতি ছিলেন বহু বছর। এরপর তিনি যোগ দেন আরএসএসে। ১৯৯৪ সালে কোবিন্দ রাজ্যসভার সাংসদ হন। ১২ বছর তিনি রাজ্যসভার সাংসদ পদে ছিলেন। ২০১৫ সালের ৮ অগস্ট বিহারের রাজ্যপাল হিসাবে কাজ শুরু করেন রামনাথ কোবিন্দ। সে সময় নীতীশ কুমার তাঁর নিয়োগের বিরোধিতা করেন। নীতীশের অভিযোগ ছিল, তাঁর সঙ্গে কোনও আলোচনা না করেই কোবিন্দকে রাজ্যপাল ঘোষণা করা হয়েছে।
    আশ্চর্যের বিষয়, যে নীতীশ কুমার এক সময় কোবিন্দের রাজ্যপাল হওয়ার বিরোধিতা করেছিলেন সেই তিনিই বিজেপি পদপ্রার্থীকেই রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে সমর্থন করবেন বলে জানান। এছাড়াও শিবসেনার তরফ থেকেও সমর্থন পান কোবিন্দ। শুরুতে কিছুটা আপত্তি তুললেও শেষমেশ সমর্থনের কথা জানিয়ে দেন শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে। এনডিএ জোটের বাইরে থেকে সমর্থনও কম নয়। এর পরে কার্যত রামনাথ কোবিন্দের রাষ্ট্রপতি ভবন পৌঁছনো কার্যত নিশ্চিত হয়ে যায়।

  3. masud karim permalink

    রাষ্ট্রপতি ভবনে ‘‌জয় শ্রী রাম’‌

    আচমকাই ‘‌জয় শ্রীরাম’‌ ধ্বনিতে কেঁপে উঠল সংসদের সেন্ট্রাল হল!‌
    তখন সবে প্রধান বিচারপতির কাছ থেকে শপথ নিয়েছেন দেশের চতুর্দশ রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। রীতি অনুযায়ী দিল্লি সেনাছাউনি থেকে ভেসে এল পরপর ২১ তোপধ্বনির শব্দ। আর প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই দর্শকাসনের একেবারে পেছনের সারি থেকে কোনও এক বিজেপি সাংসদের ‘‌রাম হুঙ্কার’‌ শোনা গেল। কয়েক সেকেন্ডের জন্য থমকে গেল সব। এমন ঘটনা রীতিবিরুদ্ধ হলেও সংসদের ইতিহাসে অবশ্য প্রথম নয়‌। এর আগে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যেদিন প্রথম সংসদে পা–‌‌রেখেছিলেন, সেদিনও সেন্ট্রাল হল কেঁপে উঠেছিল ‘‌জয় শ্রীরাম’‌ ধ্বনিতে।
    মঙ্গলবার দুপুর ঠিক ১২টা ১৪ মিনিটে দেশের চতুর্দশ রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নিলেন রামনাথ কোবিন্দ। তাঁকে শপথবাক্য পাঠ করালেন প্রধান বিচারপতি জগদীশ সিং খেহর। কে আর নারায়ণনের পর ৭১ বছর বয়সি রামনাথ কোবিন্দই ভারতের দ্বিতীয় দলিত রাষ্ট্রপতি। শপথগ্রহণের পরে জাতির উদ্দেশ্যে বক্তৃতায় কোবিন্দ আগাগোড়া বিদায়ী রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির পথ অনুসরণ করলেন। সোমবার সন্ধেয় রাষ্ট্রপতি হিসেবে তাঁর শেষ বক্তৃতায় ‌সহিষ্ণুতার কথা বলেছিলেন বিদায়ী রাষ্ট্রপতি। এদিন শপথ নিয়ে ঠিক সেই কথাই বললেন কোবিন্দ। একতার ঐতিহ্যকে বজায় রেখে এগিয়ে যাওয়াই তাঁর প্রধান লক্ষ্য হবে, একথা জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘‌এই দেশের অন্যতম বৈশিষ্ট্যই হল বৈচিত্র‌্যের মধ্যে ঐক্য। এই বৈশিষ্ট্যকে অটুট রেখে দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।’‌ তাঁর কথায়, সাধারণ কৃষক, যুবক–‌‌যুবতী, চিকিৎসক–‌‌নার্স, শিক্ষক–‌‌শিক্ষিকা, সেনা, পুলিস–‌‌সহ আমজনতার প্রত্যেকেই আসলে ‘‌রাষ্ট্র নির্মাতা’‌। আগামী পাঁচ বছর যিনি রাষ্ট্রপতি ভবনের ৩৪০ নং ঘরে থাকবেন, সেই কোবিন্দ এদিন বলেন, ‘একটি ছোট্ট গ্রামের মাটির বাড়িতে জন্ম আমার। সেখান থেকে রাষ্ট্রপতি ভবন পর্যন্ত এই যাত্রাপথ যথেষ্ট দীর্ঘ। আকর্ষণীয়ও বটে। দেশের সর্বোচ্চ সাংবিধানিক আসনে বসানোয় সকল ভারতবাসীর কাছে কৃতজ্ঞ আমি। আগে এই দায়িত্ব সামলেছেন সর্বপল্লী ডাঃ রাধাকৃষ্ণন, ডাঃ এপিজে আবদুল কালাম এবং প্রণবদার মতো ব্যক্তিত্বরা। ওঁদের সঙ্গে একসারিতে আসতে পেরে অত্যন্ত সম্মানিত।’‌ সেইসঙ্গে তাঁকে রাষ্ট্রপতি হিসেবে বেছে নেওয়ায় দেশের ১২৫ কোটি মানুষকে ধন্যবাদ জানাতেও ভুললেন না। বলেন, ‘‌‌আজ সংসদ ভবনে পা রাখার পর মাথায় অনেক স্মৃতি ভিড় করে এল। এই সংসদে আমরা তর্কবিতর্কে যোগ দিই। কখনও একমত হই, আবার কখনও মতামত একেবারেই মেলে না। একেই বলে গণতন্ত্র।’‌
    রাষ্ট্রপতির ভাষণে উল্লেখ ছিল না দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুর। তবে, তিনি বলেন, ‘‌বৈচিত্র‌্য আমাদের বড় সম্পদ। ক্রমবর্ধমান, শিক্ষিত অর্থনীতি এবং সাম্যবাদী সমাজ গড়ে তুলতে হবে আমাদের। মহাত্মা গান্ধী এবং দীনদয়াল উপাধ্যায় যেমনটি চেয়েছিলেন।’‌
    অনুষ্ঠানে ছিলেন বিদায়ী রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি, উপরাষ্ট্রপতি হামিদ আনসারি, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, লোকসভার স্পিকার সুমিত্রা মহাজন, রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যান পি জে কুরিয়েন-‌সহ বিভিন্ন রাজ্যের রাজ্যপাল থেকে মুখ্যমন্ত্রী এবং বেশ কয়েকটি দেশের রাষ্ট্রদূত ও কূটনীতিক ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা। ছিলেন মমতা ব্যানার্জিও। শপথ নেওয়ার আগে রাজঘাটে গিয়ে মহাত্মা গান্ধীর স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন কোবিন্দ। তার পর যান রাষ্ট্রপতি ভবনে। স্বাগত জানান বিদায়ী রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি। তারপর একই গাড়িতে তাঁরা আসেন সংসদ ভবনে। ‌‌

    http://www.aajkaal.in/news/national/new-president–jay-sree-ram-s966’‌

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: