Skip to content

সনাক্তকরণ প্রতিরোধক দাড়ি ও সনাক্তকরণ অসম্ভব পর্দা

April 2, 2017

খবর ঠিক মতো পড়ুন এবং ঠিক মতো প্রচার করুন, চীনের জিনজিয়াংয়ে দাড়ি ও পর্দা নিষিদ্ধ কর হয়নি, নিষিদ্ধ করা হয়েছে অস্বাভাবিক দাড়ি (সনাক্তকরণ প্রতিরোধক দাড়ি) ও পূর্ণআচ্ছাদন পর্দা ( সনাক্তকরণ অসম্ভব পর্দা)।

চীন যে শুধু নারীদের আফগানি বোরখা নিষিদ্ধ করেনি পাশাপাশি পুরুষদের আফগানি তালেবানি দাড়িও নিষিদ্ধ করেছে এটা ভাল করেছে – বেশভূষায় পরিচয় লুকানোকে অপরাধ হিসেবেই দেখা উচিত – এর সাথে দাড়ি পর্দার কোনো সম্পর্ক নেই, মানে চীনের ভাষায় illegal religious activitiesকে religious হিসেবে গণ্য না করে অপরাধ হিসেবেই গণ্য করা হবে।

One Comment
  1. শ্রীলঙ্কায় মুখ ঢাকা পোশাক নিষিদ্ধ

    https://bangla.bdnews24.com/neighbour/article1617554.bdnews

    ভয়াবহ আত্মঘাতী হামলার পর শ্রীলঙ্কাজুড়ে জারি করা জরুরি অবস্থার মধ্যে সব ধরনের মুখ ঢাকা পোশাক নিষিদ্ধ করেছে দেশটির সরকার।

    বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সোমবার থেকেই এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হয়েছে বলে শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা জানিয়েছেন।

    তার দপ্তরের এক বিবৃতিতে বলা হয়, পরিচয় প্রকাশে বাধা সৃষ্টি করে- এরকম সব ধরনের মুখ ঢাকা পোশাক জরুরি বিধির আওতায় জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে নিষিদ্ধ করা হল।

    বিবিসি লিখেছে, প্রেসিডেন্টের আদেশে বোরখা, নেকাব বা হিজাবের কথা আলাদাভাবে উল্লেখ করা না হলেও মূলত ওই ধরনের মুখ ঢাকা পরিধেয় বন্ধেই এ নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে।

    গত ২১ এপ্রিল ইস্টার সানডের দিন শ্রীলঙ্কার তিনটি গির্জা ও চারটি হোটেলসহ আট জায়গায় একযোগে আত্মঘাতী বোমা হামলা চালানো হয়, যাতে নিহত হন ২৫৩ জন।

    মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি দল আইএস ওই হামলার দায় স্বীকার করেছে। তবে শ্রীলঙ্কা সরকারের ধারণা, স্থানীয় মুসলিম জঙ্গি দল ন্যাশনাল তাওহীদ জামায়াত (এনটিজে) ও জমিয়াতুল মিল্লাতু ইব্রাহিম-জেএমআই কোনো বিদেশি জঙ্গি দলের সহায়তায় ওই হামলা চালিয়েছে।

    ওই হামলার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে এ পর্যন্ত দেড় শতাধিক লোককে গ্রেপ্তার করেছে শ্রীলঙ্কার পুলিশ। জরুরি অবস্থার মধ্যে বিভিন্ন স্থানে প্রতিদিনই পুলিশ ও সেনাবাহিনীর অভিযান চলছে।

    তবে যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা আরও হামলার শঙ্কার তথা জানানোয় ভারত মহাসাগরের এই দ্বীপ দেশে জারি রয়েছে সর্বোচ্চ সতর্কতা।

    শ্রীলংকার দুই কোটি বিশ লাখ জনসংখ্যার মোটামুটি ৭০ শতাংশ বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী। আর মুসলমানেরসংখ্যা ১০ শতাংশের মত। মুসলমান নারীদের মধ্যে খুবই ক্ষুদ্র একটি অংশ সেখানে বোরখা বা নেকাব ব্যবহার করেন বলে তথ্য দিয়েছে বিবিসি।

    ইস্টার সানডের হামলার ঘটনায় মুসলিম জঙ্গিদের জড়িত থাকার তথ্য মেলায় এবং অন্তত একজন নারী ওই হামলায় অংশ নেওয়ায় গত সপ্তাহে সব ধরনের মুখ ঢাকা পোশাক নিষিদ্ধ করার দাবি পার্লামেন্টে তোলেন একজন এমপি।

    পাশাপাশি অল সিলন জমিয়াতুল উলামা নামে একটি মুসলিম সংগঠনের পক্ষ থেকেও মুসলমান নারীদের মুখ ঢাকা বোরখা বা নেকাব ব্যবহার না করার পারমর্শ দেওয়া হয়।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: