Skip to content

অন্য ঠাণ্ডাযুদ্ধ ইসলামিয়াত পরীক্ষায় বাংলাদেশ

May 16, 2016

সৌদিআরব ইরান ঠাণ্ডাযুদ্ধে বাংলাদেশের সতর্কতা অনস্বীকার্য, জঙ্গিবাদের অপচ্ছায়ার চেয়েও এই নতুন দিনের ঠাণ্ডাযুদ্ধের ছায়া অনেক বেশি গ্রাস করবে বাংলাদেশকে। যতই আমরা আমাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সমালোচনা করি না কেন, যতই রাশিয়া আশ্চর্য হোক না কেন সৌদিআরবের জঙ্গিবাদবিরোধী কোয়ালিশনে বাংলাদেশের দ্রুত যোগদানের ঘোষণা ঠিকই ছিল, আবার একই ভাবে বাংলাদেশের এনার্জি সেক্টরে ইরানকে বড় স্পেস ছেড়ে দেয়ার লক্ষ্যে দুদেশের তড়িৎ নৈকট্য প্রশংসার দাবিদার। বাংলাদেশকে সৌদিআরব ইরানকে ব্যালেন্স করার বর্তমান সময়ের এই চ্যালেঞ্জ পুরোপুরিই নিতে হবে। সবচেয়ে বেশি মাথায় রাখতে হবে সৌদিআরব যেরকম ওয়াহাবি রাজতন্ত্রের দেশ ইরানও তেমনি ইসলামি বিপ্লবের নিয়ন্ত্রিত গণতন্ত্রের দেশ – কাজেই দুজনের কাছ থেকেই রাজনীতি ও অর্থনীতির সকল সুযোগ যেমন বাংলাদেশকে বাস্তববুদ্ধির প্রয়োগে পেতেই হবে তেমনি দুজনের কাছ থেকেই ধর্ম ও সংস্কৃতি বিষয়ে বাংলাদেশকে সমান সাবধান থাকতে হবে।

Advertisements
15 Comments
  1. Full Text: Hamid Ansari on how Arabs don’t get to define Muslim culture
    The Vice President on the presumptions of Muslim cultural homogeneity and why India could work as a model for the globalizing world?

    Vice President Hamid Ansari spoke at the Mohammed V University in Rabat, Morocco on June 1, on ‘Accommodating Diversity in a Globalising World: The Indian Experience.’

    A traveller from a distant land in mashriq-al-aqsa comes to Maghrib-al Aqsa and marvels at his good fortune. His sense of history quickly reminds him that centuries earlier a great name from this land had travelled to India and recorded in some detail his impressions about the governance, manner and customs of Indians. He attained high office and also had his share of minor misfortunes.

    I refer, of course, to Sheikh Abdullah Mohammad ibn Abdullah ibn Mohammad ibn Ibralim al Lawati, better known as Ibn Batuta of Tanja.

    I thank the Government of the Kingdom of Morocco, and His Excellency the President of the University, for inviting me to address the Mohammad V University today.

    Even in distant India, the contribution of Moroccan intellectuals to modern thought and challenges is known and acknowledged. Names like Abdullah Al-Arui and Abid al-Jabri readily come to mind; so do the contributions of feminist writers like Fatima Mernisi and Fatima Sadiqi. The challenge in each case was that of modernity and the contemporary responses to it. Each addressed a specific aspect of the problem; the general question was posed aptly by al-Jabri: “How can contemporary Arab thought retrieve and absorb the most rational and critical dimensions of its tradition and employ them in the same rationalist directions as before – the direction of fighting feudalism, Gnosticism, and dependency?”

    This is a rich field, amply and productively explored by contemporary thinkers in Arab lands. This included the debates on Arabism, nationalism, democracy and Islam. Much has also been written about the trauma, self or externally inflicted, experienced individually and collectively by Arab societies in the past seven decades. The misfortunes visited on Arab lands since the 19th century was in good measure a result of their proximity to Europe in the age of imperialism.

    Arabs and Islam

    I would like to pause here and take up a related matter to draw the attention of the audience to some terminological questions. In current discussions in many places, the terms “Arab” and “Islam” are used together or interchangeably. But are the two synonymous? Is Arab thought synonymous with Islamic thought? Is all Arab thought Islamic or visa versa? Above all, can all Islamic thinking be attributed to Arabs?

    I raise these questions because for a variety of reasons and motivations the contemporary world, particularly the West, tends to create this impression of “a powerful, irrational force that, from Morocco to Indonesia, moves whole societies into cultural assertiveness, political intransigence and economic influence.” The underlying basis for this, as Aziz Al-Azmeh put it, are “presumptions of Muslim cultural homogeneity and continuity that do not correspond to social reality.”

    Allow me to amplify. Islam is a global faith, and its adherents are in all parts of the world. The history of Islam as a faith, and of Muslims as its adherents, is rich and diversified. In different ages and in different regions the Muslim contribution to civilisation has been note worthy. In cultural terms, the history of Islam “is the history of a dialogue between the realm of religious symbols and the world of everyday reality, a history of the interaction between Islamic values and the historical experiences of Muslim people that has shaped the formation of a number of different but interrelated Muslim societies.’

    This audience is in no need of being reminded of the truism that reasoning should proceed from facts to conclusions and should eschew a priori pronouncements.

    What then are facts?

    The Wikipedia indicates the world’s Muslim population in 2015 as 1.7 billion. The Pew Research Center of the United States has published country-wise and region-wise religious composition and projections for 198 countries for the period 2010 to 2050. It indicates that in 2010 Muslims numbered 1.59 billion out of which 986 million were in Asia-Pacific. It projects that four years from now, in 2020, the corresponding figures would be 1.9 billion out of which 1.13 billion (around 60 percent) would be in Asia-Pacific. The comparative figures for West Asia–North Africa would be 317 and 381 million (19.9% and 20.52%) and for Sub-Saharan Africa 248 and 329 million (15.59% and 17.31%) respectively. Within the Asia-Pacific region Indonesia, India, Pakistan, Bangladesh, Iran, Turkey together would account for 830 million in 2010 and 954 million in 2020.

    These numbers underline the fact that an overwhelming number of Muslims of the world are non-Arabs and live in societies that are not Arab. Equally relevant is the historical fact they contributed to and benefited from the civilisation of Islam in full measure. This trend continues to this day.

    The one conclusion I draw from this is that in ascertaining Islamic and Muslim perceptions on contemporary happenings, the experiences and trends of thinking of the non-Arab segments of large Muslim populations in the world assume an importance that cannot be ignored. These segments include countries with Muslim majorities (principally Indonesia, Bangladesh, Pakistan, Iran, and Turkey) as also those where followers of the Islamic faith do not constitute a majority of the population (India, China, and Philippines).

    India is sui generis

    Amongst both categories, India is sui generis. India counts amongst its citizens the second largest Muslim population in the world. It numbers 180 million and accounts for 14.2 percent of the country’s total population of 1.3 billion. Furthermore, religious minorities as a whole (Christians, Sikhs, Buddhists, Jains, and Parsis or Zoroastrians) constitute 19.4 percent of the population of India.

    India’s interaction with Islam and Muslims began early and bears the imprint of history. Indian Muslims have lived in India’s religiously plural society for over a thousand years, at times as rulers, at others as subjects and now as citizens. They are not homogeneous in racial or linguistic terms and bear the impact of local cultural surroundings, in manners and customs, in varying degrees.

    Through extensive trading ties before the advent of Islam, India was a known land to the people of the Arabian Peninsula, the Persian Gulf, and western Asia and was sought after for its prosperity and trading skills and respected for its attainments in different branches of knowledge. Thus Baghdad became the seeker, and dispenser, of Indian numerals and sciences. ThePanchatantra was translated and became Kalila wa Dimna. Long before the advent of Muslim conquerors, the works of Al-Jahiz, Ibn Khurdadbeh, Al-Kindi, Yaqubi and Al-Masudi testify to it in ample measure. Alberuni, who studied India and Indians more thoroughly than most, produced a virtual encyclopedia on religion, rituals, manners and customs, philosophy, mathematics and astronomy. He commenced his great work by highlighting differences, but was careful enough ‘to relate, not criticize’.

    Over centuries of intermingling and interaction, an Indo-Islamic culture developed in India. Many years back, an eminent Indian historian summed it up in a classic passage:

    ‘It is hardly possible to exaggerate the extent of Muslim influence over Indian life in all departments. But nowhere else is it shown so vividly and so picturesquely, as in customs, in intimate details of domestic life, in music, in the fashion of dress, in the ways of cooking, in the ceremonial of marriage, in the celebration of festivals and fairs, and in the courtly institutions and etiquette’.

    Belief, consciousness and practice became a particularly rich area of interaction. Within the Muslim segment of the populace, there was a running tussle between advocates of orthodoxy and those who felt that living in a non-homogenous social milieu, the pious could communicate values through personal practice. In this manner the values of faith, though not its theological content, reached a wider circle of the public. This accounted for the reach and popularity of different Sufi personalities in different periods of history and justifies an eminent scholar’s observation that ‘Sufism took Islam to the masses and in doing so it took over the enormous and delicate responsibility of dealing at a personal level with a baffling variety of problems.’

    It also produced a convergence or parallelism; the Sufi trends sought commonalities in spiritual thinking and some Islamic precepts and many Muslim practices seeped into the interstices of the Indian society and gave expression to a broader and deeper unity of minds expressive of the Indian spiritual tradition. The cultural interaction was mutually beneficial and an Islamic scholar of our times has acknowledged ‘an incontrovertible fact that Muslims have benefited immensely from the ancient cultural heritage of India.’

    I mention this because I am aware, but dimly, about the role of Sufi movements and ‘zawiyas’ in the history of Morocco. There is, in my view, room for comparative studies of Sufi practices in Morocco and India.

    It is this backdrop that has impacted on modern India and its existential reality of a plural society on the basis of which a democratic polity and a secular state structure was put in place.

    The framers of our Constitution had the objective of securing civic, political, economic, social and cultural rights as essential ingredients of citizenship. Particular emphasis was placed on rights of religious minorities. Thus in the section on Fundamental Rights ‘all persons are equally entitled to freedom of conscience and the right freely to profess, practice and propagate religion.’ In addition, every religious denomination shall have the right to establish and maintain institutions for religious and charitable purposes, to manage its own affairs in matters of religion, and to acquire and administer movable and immovable property. Furthermore, all religious or linguistic minorities shall have the right to establish and administer educational institutions of their choice. A separate section on Fundamental Duties of citizens enjoins every citizen ‘to promote harmony and the spirit of common brotherhood amongst all the people of India transcending religious, linguistic and regional or sectional diversities’ and also ‘to value and preserve the rich heritage of our composite culture.’

    Given the segmented nature of society and unequal economy, the quest for substantive equality, and justice, remains work in progress and concerns have been expressed from time to time about its shortfalls and pace of implementation. The corrective lies in our functioning democracy, its accountability mechanisms including regularity of elections at all levels from village and district councils to regional and national levels, the Rule of Law, and heightened levels of public awareness of public issues.

    The one incontrovertible fact about the Muslim experience in modern India is that its citizens professing Islamic faith are citizens, consider themselves as such, are beneficiaries of the rights guaranteed to them by the Constitution, participate fully in the civic processes of the polity and seek correctives for their grievances within the system. There is no inclination in their ranks to resort to ideologies and practices of violence.

    The same diversity of historical experience, and the perceptions emanating from it, is to be found in Indonesia that has the world’s largest population of Muslims and where two Islamist parties – Nahdatul Ulema and Muhammadiyah function legally, have large memberships, and participate in political activities including local and national elections. On a visit to Jakarta a few months back, I had occasion to solicit their views on contemporary debates on Political Islam. They said Islam in Indonesia has united with the culture of the people and their Islamic traditions have adapted themselves to local conditions. They felt Indonesian Muslims are moderate in their outlook, that Islam does not advocate extremism, and that radicalization of Islam is harmful and does not benefit the community.

    Both instances cited above indicate that in countries having complex societal makeup, accommodation of diversity in political structures and socio-economic policies is not an option but an imperative necessity ignoring which can have unpleasant consequences.

    The Indian model

    I come back to the principal theme of this talk. Why is the Indian model of relevance to our globalizing world?

    Globalization has many facets – economic, political and cultural. All necessitate the emergence of a set of norms, values and practices that are universally accepted. A sociologist has defined it as ‘the compression of the world and the intensification of consciousness of the world as a whole.’ An obvious implication of this would be assimilation and homogenization. In a world of intrinsically diverse societies at different levels of development, this could only result in denial of their diversity and imposition of uniformity. Such an approach can only result in conflict.

    The challenge for the modern world is to accept diversity as an existential reality and to configure attitudes and methodologies for dealing with it. In developing such an approach, the traditional virtue of tolerance is desirable but insufficient; our effort, thinking and practices have to look beyond it and seek acceptance of diversity and adopt it as a civic virtue.

    We in India are attempting it, cannot yet say that we have succeeded, but are committed to continue the effort. We invite all right-minded people to join us in this endeavour.

    http://scroll.in/article/809168/full-text-hamid-ansari-on-how-arabs-dont-get-to-define-muslim-culture

  2. জঙ্গি দমনে সৌদির পাশে থাকবে বাংলাদেশ

    সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদবিরোধী যে কোনো উদ্যোগে সৌদি আরবকে বাংলাদেশ সহায়তা করবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

    সম্প্রতি সৌদি আরব, জাপান ও বুলগেরিয়া সফরের অভিজ্ঞতা জানাতে বুধবার গণভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন তিনি।

    সৌদি নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটে যোগ দেওয়া প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “সৌদি যে উদ্যোগ নিয়েছে- জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবিরোধী ভূমিকা গ্রহণ করার যে আহ্বান; আমরা সাথে সাথে সেই আহ্বানে সাড়া দিয়েছি।

    “আমি নীতিগতভাবে মনে করি, এটা অত্যন্ত যুগোপযোগী পদক্ষেপ তারা নিয়েছে।”

    প্রধানমন্ত্রী বলেন, “বাদশাহকে আমি জানিয়েছি যে, সন্ত্রাস দমনের ক্ষেত্রে, জঙ্গি দমনের ক্ষেত্রে, যে কোনো উদ্যোগে বাংলাদেশ সব সময় সহায়তা করবে এবং দুটো মসজিদের (মক্কা ও মদিনার) নিরাপত্তা বিধানে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে যত ধরনের সহযোগিতা দরকার, এমনকি সামরিক সহযোগিতা দিতেও আমরা প্রস্তুত।”

    সৌদি আরবে পাঁচদিনের দ্বিপক্ষীয় সফর শেষে মঙ্গলবার রাতে ঢাকায় ফেরেন শেখ হাসিনা। এর আগে ১৮ থেকে ২০ মে বুলগেরিয়ায় গ্লোবাল উইমেন লিডারস ফোরাম এবং ২৬ থেকে ২৯ মে জাপানে জি-৭ শীর্ষ সম্মেলনের আউটরিচ মিটিংয়ে যোগ দেন তিনি।

    প্রধানমন্ত্রী সৌদি সফরের সময় ওমরাহ পালন করেন এবং মদিনায় মহানবীর রওজা মোবারক জিয়ারত করেন। শেখ হাসিনা সৌদি বাদশাহর সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেন। এছাড়া সৌদি পররাষ্ট্র, অর্থসহ একাধিকমন্ত্রী বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

    সৌদি শ্রমমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে এক সৌজন্য সাক্ষাতে বাংলাদেশ থেকে দক্ষসহ আরও পাঁচ লাখ জনশক্তি নেওয়ার অঅগ্রহ প্রকাশ করেন।

    সৌদিতে জনশক্তি রপ্তানির বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে শেখ হাসিনা বলেন, “শুধু লোক পাঠানোটাই না, আগে আমরা সৌদি আরব সম্পর্কে ভাবতাম শুধু লোকই পাঠাবো; সেখানে বড় একটা পরিবর্তন এসেছে সেটাতেই আপনাদের গুরুত্ব দিতে হবে।

    “সেটা হল- তারা আমাদের দেশে বিনিয়োগে আগ্রহী এবং আমি তাদেরকে সেই আহ্বান জানিয়েছি যে তারা এখানে বিনিয়োগ করবেন। ইতোমধ্যেই তাদেরকে আমরা প্রস্তাব দিয়েছি যে, আমরা জায়গা দিয়ে দেব।”

    রোববার বাদশাহর সঙ্গে বৈঠকের আগে জেদ্দায় সৌদি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে একটি বৈঠক করেন শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী সৌদি ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানালে তারা বিনিয়োগের সম্ভাবনা খুঁজতে বাংলাদেশে প্রতিনিধি দল পাঠাবেন বলে জানান।
    সংবাদ সম্মেলনে জনশক্তি রপ্তানির বিষয়েও কথা বলেন শেখ হাসিনা।

    তিনি জানান, সৌদিতে বর্তমানে ২০ লাখ বাংলাদেশি কর্মরত রয়েছেন।

    এর পাশাপাশি নতুন করে ডাক্তার, প্রকৌশলী, শিক্ষকসহ বিভিন্ন শ্রেণির মানুষও সৌদি আরবে পাঠানোর সুযোগ হয়েছে বলে জানান তিনি।

    ‘এ ব্যাপারে তারা খুব আগ্রহী’ মন্তব্য করে তিনি বলেন, “এবার আরেকটা বড় গুণগত পরিবর্তন, যে মহিলা শ্রমিকরা যাবে তারা সঙ্গে সন্তান, স্বামী নিতে পারবে।”

    সাম্প্রতিক বিদেশ সফরগুলো নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমি মনে করি পরপর তিনটি সফর আমাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই সফরগুলিতে সকলের সঙ্গে একটা সুসম্পর্কই শুধু না, বাংলাদেশের যে আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন হয়েছে, এটা একটা অদ্ভূত অনুভূতি যে, প্রত্যেকেই বিস্ময় প্রকাশ করেছে যে, বাংলাদেশ কীভাবে সাতভাগ প্রবৃদ্ধি অর্জন করল, উন্নতি করে যাচ্ছে।”

    http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1164674.bdnews

  3. হজ নিয়ে সৌদি সরকারের সমালোচনায় ইরান

    সৌদি আরবের হজ ব্যবস্থাপনার সমালোচনা করেছেন ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি।

    তিনি বলেছেন, “রিয়াদের দমনমূলক আচরণের কারণে মুসলিম বিশ্বের হজ ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব গ্রহণের বিষয়টি এখন বিবেচনার সময় এসেছে।”

    গত বছর হজের সময় পদদলনে শতাধিক হজযাত্রী নিহত হওয়ার পর থেকেই সৌদি আরবের হজ ব্যবস্থাপনার সমালোচনা করে আসছে ইরান।

    সোমবার এক বিবৃতিতে খামেনি বলেন, “সৌদি শাসকরা, যারা আল্লাহর পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে এবং ইরানের গর্বিত ও বিশ্বস্ত হজযাত্রীদের প্রিয় কাবাঘর পরিদর্শনের পথ রুদ্ধ করেছে, তারা মানুষকে অপদস্থ ও বিপথগামী করছে।”

    “সৌদি শাসকেরা মুসলিম বিশ্বের প্রতি যে অন্যায় করেছে তার দায়িত্ব গ্রহণ থেকে অবশ্যই জনগণ (মুসলিম বিশ্বের) তাদের পালিয়ে যেতে দেবে না।”

    এ বছর ১১ সেপ্টেম্বর হজ পালন হবে। যদিও ইরানের নাগরিকরা এবারের হজ পালন থেকে বিরত আছেন।

    মে মাসে সৌদি আরব ও ইরানের কর্মকর্তরা হজ সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে বিরোধের সমাধানে আসতে ব্যর্থ হয়।

    ইরানের দাবি, সৌদি কর্তৃপক্ষ ইরানের হজযাত্রীদের ‘যথাযথ নিরাপত্তা ও সম্মান প্রদাণে ব্যর্থ’ হয়েছে।

    অন্যদিকে, সৌদি কর্তৃপক্ষ বলছে, হজ সংক্রান্ত বিষয়ে ইরানের দাবি ‘অগ্রহণযোগ্য’।

    গত বছর হজ পালনে দেশটির প্রায় ৬০ হাজার নাগরিক সৌদি আরব গিয়েছিল। তাদের মধ্যে প্রায় চারশ’জন পদদলনে নিহত হয়। আর কোনও দেশের এত নাগরিক নিহত হননি।

    আঞ্চলিক আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ইরান ও সৌদি আরবের বিরোধ দীর্ঘদিনের। গত বছর হজের ওই ঘটনায় যা আরও চরম আকার ধারণ করেছে।

    এ বছর জানুয়ারিতে সৌদি আরব তাদের দেশের একজন প্রখ্যাত শিয়া মুসলিম নেতার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করলে তার প্ররিপ্রেক্ষিতে ঘটা নানা ঘটনায় দুই দেশ পরষ্পরের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে।
    [http://bangla.bdnews24.com/world/article1209824.bdnews]

  4. ইরানিরা মুসলিম নয়: সৌদি শীর্ষ ইমাম

    সৌদি আরবের হজ ব্যবস্থাপনা নিয়ে ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতার সমালোচনার একদিন পর ‘ইরানিদের অমুসলিম’ বলে অভিহিত করেছেন সৌদি আরবের শীর্ষ ইমাম।

    বিবিসি বলছে, সৌদি আরবের গ্রান্ড মুফতি আব্দুল আজিজ আল শেখ ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনির অভিযোগগুলোকে ‘বিস্ময়কর নয়’ বলে মন্তব্য করেছেন।

    প্রাচীন ইরানি ধর্ম জরথুস্ত্রের দিকে ইঙ্গিত করে আব্দুল আজিজ বলেন, “তারা তো মেজাইয়ের (প্রাচীন ইরানি পুরোহিতমণ্ডলী) সন্তান।”

    মধ্যপ্রাচ্যের দুটি নেতৃস্থানীয় মুসলিম দেশ, সুন্নি সংখ্যাগরিষ্ঠ সৌদি আরব ও শিয়া সংখ্যাগরিষ্ঠ ইরানের মধ্যে পরস্পরের বিষয়ে গভীর সন্দেহ বিরাজ করছে।

    গেল বছর হজের সময় পদদলিত হয়ে কয়েক হাজার হাজি মারা যাওয়ার ঘটনার সমালোচনা করে আলি খামেনি হাজিদের ‘খুন’ করার জন্য সৌদি আরবকে অভিযুক্ত করেন।

    তিনি বলেন, “হৃদয়হীন খুনি সৌদিরা আহতদের চিকিৎসার ব্যবস্থা না করে, তাদের সহায়তা না করে এমনকি পানিও পান করতে না দিয়ে মৃতদের সঙ্গে কন্টেইনারের ভিতরে বন্দি করে রেখেছিলেন, তাদের খুন করেছেন তারা।”

    তবে এ অভিযোগের বিষয়ে কোনো প্রমাণ দেখাননি তিনি। সোমবার (২৪ সেপ্টেম্বর) ওই পদদলনের ঘটনার এক বছর পূর্তিতে আলি খামেনি এসব কথা বলেন।

    ওই ঘটনায় বেসরকারি হিসাবে ২,৪২৬ জন হাজির মৃত্যু হয়েছিল, যাদের মধ্যে ৪৬৪ জন ইরানি।

    অপরদিকে সৌদি কর্তৃপক্ষের দাবি ওই ঘটনায় ৭৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছিল। ঘটনার তদন্তের ফলাফল নিয়ে খুব অল্প তথ্য প্রকাশ করেছে সৌদি কর্তৃপক্ষ, কিন্তু সমালোচনা প্রত্যাখ্যান করেছে।

    মক্কা সংবাদপত্র আলি খামেনির মন্তব্যের বিষয়ে আব্দুল আজিজের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি খামেনির অভিযোগ উড়িয়ে দেন।

    তিনি বলেন, “আমাদের অবশ্যই বুঝতে হবে তারা মুসলমান নয়। তারা মেজাইয়ের সন্তান এবং মুসলিমদের সঙ্গে তাদের শত্রুতা পুরনো বিষয়, বিশেষ করে ঐতিহ্যবাহী মুসলমানদের (সুন্নি) সঙ্গে।”

    সৌদি আরবের জনসংখ্যার ৮৫ থেকে ৯০ শতাংশ সুন্নি, অপরদিকে ইরানি জনসংখ্যার ৯০ থেকে ৯৫ শতাংশ শিয়া।

    সৌদি আরবের রাজপরিবার ও ধর্মীয় প্রভাবশালী গোষ্ঠী প্রধানত কট্টরপন্থি সুন্নি ধারা ওহাবি মতবাদের অনুসারী। এরা প্রায়ই শিয়াদের মূল বিশ্বাস থেকে সরে যাওয়া ‘প্রত্যাখ্যানকারী’ বলে অভিহিত করে থাকে।

    http://bangla.bdnews24.com/world/article1210458.bdnews

  5. Iranians neither xenophile nor xenophobic, but Revolutionary

    President Hassan Rouhani underlined that Iranians are neither xenophile nor xenophobic and welcome constructive engagement with rest of the world.

    President Rouhani and members of his cabinet renewed allegiance to the late Founder of the Islamic Republic Imam Khomeini on Monday paying a visit to his tomb on the eve of the 38th anniversary of the victory of the Islamic Revolution.

    Speaking during the ceremony, Rouhani said the discourse of Imam Khomeini is compliance, follow-up and advancing the revolutionary ideals, including freedom and independence, which was dictated by the Islamic Republic of Iran noting that the discourse should not be referred to selectively.

    “His path was independence; it does not mean isolation, it means preventing the domination of others over the fate of a country; we are neither xenophobic nor xenophile,” Rouhani underlined.

    “The best realization of hid path is the elections during which Iranians enjoy freedom and democracy,” he said urging the nation to participate in the upcoming presidential elections massively to creat another epic.

    President Rouhani reiterated that Imam Khomeini believed in cultural and popular struggle to win the Revolution; “he rejected being accustomed to the status quo and keeping silent against the oppression.”

    http://en.mehrnews.com/news/123126/Iranians-neither-xenophile-nor-xenophobic-but-Revolutionary

    http://en.mehrnews.com/news/123126/Iranians-neither-xenophile-nor-xenophobic-but-Revolutionary

  6. ঢাকায় ইরানি নওরোজ উৎসব
    http://www.amadershomoy.biz/unicode/2017/03/24/231365.htm

    ফার্সি নববর্ষ উপলক্ষে শুক্রবার ঢাকায় পালিত হল ইরানি নওরোজ উৎসব। ঢাকাস্থ ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্র ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের যৌথ উদ্যোগে রাজধানীর বিএমএ মিলনায়তনে ‘নওরোজ উৎসব ও এর প্রেরণাদায়ক ঐতিহ্য’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
    অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন, বাংলাদেশ এর চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের অধ্যাপক অনিসুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূত ড. আব্বাস ভায়েজী দেহনাভী ও প্রখ্যাত নাট্যব্যক্তিত্ব ও নাট্যনির্মাতা জনাব মামুনুর রশীদ।
    অনুষ্ঠানে বক্তরা বলেন, নওরোজ মানেই বসন্তের শুরু। আর বসন্ত মানেই ইরানিদের নতুন বছরের যাত্রা। শীত ঋতুর সমাপ্তির মধ্য দিয়ে বসন্ত যেমন পুরনো সব জরাজীর্ণতাকে ঝেড়ে ফেলে প্রকৃতিকে নতুন করে সাজায়, পুষ্প পল্লবে আচ্ছাদিত করে চারদিক তেমনি ইরানিরাও নওরোজে প্রকৃতির নতুন রূপের সাথে মিশে একাকার হয়ে যায়। বাড়িঘর, অঙ্গিনা, অলি-গলি, রাস্তা সবকিছু ঝেড়ে ঝকঝকে করার পাশাপাশি এগুলোর সৌন্দর্য বর্ধনের মধ্য দিয়ে সমাজকে নতুন করে আলিঙ্গন করে। এদিন ইরানিরা পরিবার-পরিজন ও বয়োজ্যেষ্ঠদের সাথে দেখা-সাক্ষাৎ করেন, একে অপরকে উপহার দেন ও দরিদ্রদের সাহায্য করেন। এমনকি নওরোজ শুরু হওয়ার পূর্বের শেষ শুক্রবার ইরানিরা কবরস্থানে যান এবং আপনজন যারা পৃথিবী থেকে চিরবিদায় গ্রহণ করেছেন তাদেরকে স্মরণ করেন।
    বক্তারা আরো বলেন, নওরোজ বলতেই ইরানিদের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী উৎসব ধরে নেয়া হলেও কোন কোন রেওয়ায়াতে বলা হয়েছে, খ্রিস্টপূর্ব ৩ হাজার বছরেরও আগে থেকে এই নওরোজ উৎসব পালিত হয়ে আসছে। এই নওরোজ উৎসব কেবল ইরানেই সীমাবদ্ধ নয়, আফগানিস্তান, তুরস্ক, মধ্য এশিয়া ও উপমহাদেশের দেশগুলাতেও তাদের নিজ নিজ সংস্কৃতি ও আচার অনুষ্ঠান অনুযায়ী এই উৎসব পালিত হয়ে থাকে। জাতিসংঘও বিশ্বে শান্তি ও সংস্কৃতির নিদর্শন হিসেবে ২০১০ সালে ফারসি নতুন বছরকে আন্তর্জাতিক নওরোজ দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে।

  7. মুসলমানদের বিভক্তি দূর করায় প্রধানমন্ত্রীর গুরুত্বারোপ

    মুসলমানদের মধ্যে বিভক্তির অবসান ঘটিয়ে সংঘাত বন্ধে গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

    বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সৌদি আরব পার্লামেন্টের মজিলিসে সুরার স্পিকার আবদুল্লাহ বিন মোহাম্মদ বিন ইব্রাহিম আলি-আল-শেখের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল সৌজন্য সাক্ষাতে এলে একথা বলেন শেখ হাসিনা।

    পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

    প্রেস সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, মুসলিমদের মধ্যে যে বিভক্তি; শিয়া, সুন্নি বা বিভিন্ন গ্রুপে যে যুদ্ধ হচ্ছে এটা বন্ধ করতে হবে।

    “আমরা নিজেরা নিজেরা যুদ্ধ করছি। এর মধ্যে লাভবান হচ্ছে অস্ত্র ব্যবসায়ীরা। এটা বন্ধ করতে হবে এবং নিজেদের মধ্যে বসে এটা আলোচনা করতে হবে যে, সমস্যা কি ও এর সমাধান বের করতে হবে,” প্রধানমন্ত্রীকে উদ্ধৃতি করে বলেন প্রেস সচিব।

    নিজেদের মধ্যে সংঘাতের কারণে মুসলমানরা অন্য দেশে শরণার্থী হচ্ছে এবং এটা মুসলমানদের জন্য লজ্জা বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

    প্রেস সচিব বলেন, “প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, শেষ বিচার করবেন আল্লাহ, তাহলে এই বিভেদ কেন? শিয়া, সুন্নী। এই বিভেদগুলো বন্ধ করতে হবে।”

    ধর্মের নামে আত্মঘাতী হামলা চালানোর সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, এর ফলে মুসলমানদের বদনাম হচ্ছে।

    ইসলামের সত্যিকারের মর্মবাণী বোঝানোর ক্ষেত্রে ওলামাদের ভূমিকা রয়েছে বলে মন্তব্য করেন সৌদি স্পিকার।

    সাক্ষাতে প্রধানমন্ত্রীকে সৌদির বাদশাহর শুভেচ্ছা পৌঁছে দেন সে দেশের স্পিকার।
    তিনি বলেন, তার নিজের সফর এবং প্রধানমন্ত্রীর আসন্ন সফরে বাংলাদেশ-সৌদি আরব সম্পর্ক আরো গভীর হবে বলে তিনি মনে করেন।

    স্পিকার আরো বলেন, বাদশাহ তাকে বলেছেন, বাংলাদেশের সঙ্গে সৌদির সম্পর্ক আরো শক্তিশালী হবে এবং প্রধানমন্ত্রীর আসন্ন সফরের মাধ্যমে আরো সুদৃঢ় হবে।

    যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সফরকালে সৌদি আরবে অনুষ্ঠেয় একটি সম্মেলনে অংশ নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ আল সৌদ।

    সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদে আগামী ২১ মে ‘অ্যারাবিক ইসলামিক আমেরিকান হিস্টোরিকাল সামিট’ শিরোনামে এই সম্মেলন হবে।

    ডোনাল্ড ট্রাম্প ছাড়াও বিভিন্ন মুসলিম দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানরা এই সম্মেলনে যোগ দেবেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীও আসন্ন সম্মেলনে যোগ দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

    http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1333283.bdnews

  8. PM to attend Arab Islamic American Summit
    Dhaka renews its stance over Saudi-led alliance

    Bangladesh has reiterated its position over the much-talked-about Saudi-led Islamic coalition, reports UNB

    Foreign Minister AH Mahmood Ali made the remark adding Dhaka will remain ready to send troops to the Kingdom if the security of the two holy mosques is threatened.

    The foreign minister made the remark at a press conference at the foreign ministry on Thursday focusing on Prime Minister Sheikh Hasina’s visit to the Kingdom of Saudi Arabia from May 20-23.

    “It’s a bit premature to call it a coalition. It’s still evolving. Nothing is done in written yet. It’s still under discussion,” he said.

    The foreign minister said Bangladesh will extend necessary support and troops, if requested, considering people’s respect, love and devotion for the two mosques — Al-Masjid al-Haram (the Sacred Mosque) in Makkah and Al-Masjid an-Nabawi (the Prophet’s Mosque) in Madina.

    Minister Ali maintained that Bangladesh is talking about center — Global Centre for Combating Extremist Thoughts — not coalition.

    He said the Prime Minister’s visit to Saudi Arabia to attend the Arab Islamic American Summit in Riyadh will help make ties between the two countries stronger.

    The visit will also play an important role in improving relations with other participating Muslim countries, Mahmmod Ali said.

    Earlier, Saudi King Salman bin Abdulaziz Al Saud, the Custodian of the Two Holy Mosques, invited the Prime Minister to join the summit to be hosted by his country.

    US President Donald Trump, among others, will attend the summit to mark his first visit to the Kingdom since he assumed the office as the 45th US President in January last.

    Asked about any possible meeting with Donald Trump and other leaders on the sidelines, the Foreign Minister said, “Let’s see.”

    • উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় নতুন অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠা এবং নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা জোরদারের লক্ষ্যে আয়োজিত এই সম্মেলনে ইসলামী চরমপন্থার বিরুদ্ধে লড়াই জোরদারের আহ্বান জানান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ লড়াইকে ‘সভ্যতার সংঘাতের’ বদলে ‘শুভ ও অশুভের যুদ্ধ’ হিসেবে বর্ণনা করেন তিনি।
      পররাষ্ট্র সচিব বলেন, এই সামিটের মূল উদ্দেশ্য ছিল সবাই মিলে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদকে চিহ্নিত করা; মূলমন্ত্র ছিল ‘টুগেদার উই প্রিভেইল’।

      “সবাই যদি আমরা সম্মিলিতভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াই, তাহলে এটা রোধ করা সম্ভব।”

      সৌদি আরবের নেতৃত্বে মুসলিম দেশগুলোর জোট নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, “এই জোটের একটা মিলিটারি সাইড আছে, একটা পলিটিক্যাল সাইড আছে। আমরা প্রাইমারিলি পলিটিক্যাল সাইডে শতভাগ অংশ নিচ্ছি। সামরিক দিকে কোন পরিস্থিতিতে আমরা সৈন্য পাঠাব তা পররাষ্ট্রমন্ত্রী আগেই ব্যাখ্যা করেছেন।

      “সেটা হল, দুই পবিত্র স্থান (মক্কা ও মদিনা) আক্রান্ত হলে তা রক্ষার জন্য আমরা সৈন্য পাঠাব।”

      http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1338273.bdnews

      • PM urges global leaders for solution to refugee crisis
        http://print.thefinancialexpress-bd.com/2017/05/23/173225

        Prime Minister Sheikh Hasina has urged world leaders to take a strong stance for finding a solution to global refugee crisis that contributes to the rise in terrorism and violent extremism endangering global peace and development.

        “Global refugee crisis contributes to the rise in terrorism and violent extremism. Refugees could be a potential breeding ground of terrorists and extremists,” she said in a written statement on Sunday at the inaugural ceremony of Arab-Islamic-American Summit at King Abdul Aziz International Conference Centre in Riyadh.

        Custodian of the Two Holy Mosques King Salman bin Abdulaziz Al Saud, US President Donald Trump, Presidents and Prime Ministers of fellow Arab and Islamic countries spoke at the meeting.

        Sheikh Hasina called upon all to join the launching of a reconstruction and development plan for the war-ravaged countries like Syria and Iraq on the model of post-Second World War Marshall Plan.

        She said the longtime sufferings and deprivation of the people of Palestine always cause a sense of injustice in the minds of the young generation. “We must act together for the establishment of a Palestinian State.”

        Regarding the war-ravaged countries like Iraq and Syria, the Prime Minister said that these countries have become the main centres of recruitment and operation for terrorist organisations.

        She also proposed four specific steps like stopping the source of supply of arms and flow of financing to terrorists and their outfits alongside removing the division within the Muslim Ummah for peaceful and sustainable settlement of conflicts.

        Hasina’s another proposed step is pursuing the principle of peaceful settlement of international disputes through dialogues that can address the divides leading to a win-win situation for all.

        Extending her thanks to King Salman for his initiative to establish the Islamic Counter Terrorism Centre in Riyadh, she said, “We’re happy to be a founding member of this Centre.”

        The Prime Minister reiterated that Bangladesh maintains a ‘zero tolerance’ policy to all forms of violent extremism. “We’ve always stood firm not to allow any terrorist individual or entity to use our territory or resources.”

        She went on saying, “To us, a terrorist is a terrorist. They don’t have any religion, belief or race. They may come from any religious background. Islam is a religion of peace. It never supports violence or killing. We denounce the use of religion to justify any form of violent extremism.”

        Hasina said her government has effectively dealt with homegrown violent extremists in Bangladesh as a number of local outfits have been banned. “These elements used to get support from some vested quarters.”

        She said her government has adopted a multipronged strategy to address this menace. “Our law enforcement agencies have been made effective with proper training to combat extremism. We’re also working to build awareness among people against terrorism.”

        The Prime Minister said she is personally holding meetings and exchanging views through videoconferences with all sections of society, especially the public representatives, teachers, students and Imams of mosques, across the country to build a social movement against terrorism and militancy.

        Hasina called upon all to declare from the meeting that Islam should not be used to refer to terrorists.

        Hasina turned a bit emotional recalling her refugee life saying, “I feel the pain of refugee, as I myself had been a refugee. I along with my family was internally displaced in Dhaka in 1971 during our Liberation War.”

        After the assassination of her father, Father of the Nation Bangbandhu Sheikh Mujibur Rahman along with 18 members of her family, Hasina said she and her younger sister had to take refuge abroad for six years until 1981.

        “Who else can better realise than me the pain of a refugee? The image of three-year-old Aylan lying lifeless on the seashore and the image of bloodstained Omran in Aleppo shake our consciences. I can hardly take in these images as a mother,” she said.

        Meanwhile, BSS adds: US President Donald Trump expressed his hope to visit Bangladesh as he exchanged greetings with Prime Minister Sheikh Hasina during the Arab Islamic-American (AIA) Summit in the Saudi capital on Sunday. “Yes I would come (to Bangladesh),” Foreign Secretary Md Shahidul Haque quoted the US president as saying while briefing reporters after the summit.

        Prime Minister’s Press Secretary Ihsanul Karim and Deputy Press Secretary Md Nazrul Islam were present at the press briefing.

        The foreign secretary said the two leaders exchanged pleasantries in the holding room of the King Abdul Aziz International Conference Centre in Riyadh before the start of the Arab Islamic-American (AIA) Summit.

        At that time, he said, the prime minister invited the US president to visit Bangladesh.

        “Accepting the invitation, Trump expressed the hope that he would visit Bangladesh,” Haque said.

        Meanwhile, Prime Minister Sheikh Hasina and Tajik President Emomalii Rahmon held a meeting at the King Abdulaziz Conference Centre on the sidelines of the AIA Summit.

        The Tajik president invited Prime Minister Sheikh Hasina to visit Tajikistan at her convenient. “We hope that the Tajik President may visit Bangladesh or the Bangladesh Prime Minister may visit Tajikistan by this year,” the foreign secretary said.

        He said that Tajikistan considers Bangladesh as a potential country for boosting its trade.

        The Bangladesh prime minister also held a meeting with her Malaysian counterpart Najib Razak on the sidelines of the summit.

        The foreign secretary said Bangladesh enjoys very friendly relations with Malaysia for long and the two leaders discussed various issues relating to bilateral interests.

  9. Americans don’t know our region: Iran president criticises Donald Trump, calls Saudi trip ‘a show’

    Trump had singled out Iran during his first official foreign trip, claiming it facilitates terrorism in the region.

    https://scroll.in/latest/838425/americans-dont-know-our-region-iran-president-criticises-donald-trump-calls-saudi-trip-a-show?utm_content=buffer5dbac&utm_medium=social&utm_source=twitter.com&utm_campaign=buffer

    Newly re-elected Iran President Hassan Rouhani on Monday criticised United States President Donald Trump’s administration. Rouhani also undercut Trump’s visit to Saudi Arabia, calling it “just a show”. Trump, who is on his first official foreign trip, had singled out Iran, saying the country “fuelled the fires of sectarian conflict and terror for decades.”

    Rouhani, who just won the presidential election by a large margin, dismissed Trump’s remarks. Soon after Trump had signed a $110-million deal with Saudi, Rouhani said that terrorism could not be “solved through giving money to superpowers”, AP reported.

    Rouhani also said Saudi had “never seen a ballot box” and that he hoped the US administration “settled down” some more, so that he could better understand it. Rouhani also said that the US “did not know our region”, AP reported. “Those who provide consultations or advice to the Americans, unfortunately, they are the rulers who either push America awry or with money, they just buy some people in America.” He added that the US “have always made mistakes in our region”.

    He also questioned how stability can be restored in the region without Iran’s help, BBC reported. “Who can say regional stability can be restored without Iran? Who can say the region will experience total stability without Iran?” he asked.

    Trump had begun his trip by coming down heavily on Iran and claiming it facilitates terror groups. Oil-rich Saudi had backed Trump’s remarks. “The Iranian regime represents the tip of the spear of global terrorism,” King Salaman had said.

    The Sunni-dominated Saudi Arabia, where the terrorists that carried out the September 11 attacks were from, is one of the US’ closest military allies. Iran, on the other hand, is led by the Shia sect, which has historically been at war with the Sunnis. On Sunday, Trump signed a $110-billion arms agreement with Saudi Arabia. Secretary of State Rex Tillerson had said the deal in addition to other investments Washington makes in Riyadh could amount to a total of $350 billion.

  10. ‘Terrorism, meddling in affairs’: Bahrain, Saudi Arabia & Egypt cut diplomatic ties with Qatar
    https://www.rt.com/news/390863-bahrain-cuts-diplomatic-relations-qatar/

    Key Arab League nations, including Saudi Arabia, Egypt and the UAE, have severed diplomatic ties with Qatar after Bahrain said it was cutting all ties and contacts with Doha. Qatar is accused of backing terrorist groups and meddling in other countries’ affairs.

    Bahrain announced early Monday that it is severing diplomatic relations with neighboring Qatar and cutting air and sea connections with Doha, accusing it of meddling in its internal affairs. Bahrain’s state news agency said in a brief statement that Qatari citizens have 14 days to leave the country.

    It accused Doha of supporting terrorism and meddling in Manama’s internal affairs.

    Citing “protection of national security,” Riyadh then announced it was also severing ties with Doha and closing off all land, sea and air contacts, the Saudi state agency said in a statement, cited by Reuters.

    The Saudi-led coalition has announced that Qatar’s participation in its joint military operation in Yemen has been canceled. The coalition’s statement accused Doha of supporting the Al-Qaeda and Islamic State terrorist groups.

    Egypt was next to join the diplomatic war, with Cairo announcing it is cutting relations with Doha, according to Sputnik news agency.

    Egypt has closed all its seaports and airspace to Qatari vessels and planes, the country’s Foreign Ministry said in a statement.

    “The Government of the Arab Republic of Egypt has decided to sever diplomatic relations with Qatar because of the continued hostility of the Qatari authorities towards Egypt,” the Cairo statement read, also accusing Doha of supporting terrorist organizations, including the Muslim Brotherhood.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: