Skip to content

অন্য ঠাণ্ডাযুদ্ধ ইসলামিয়াত পরীক্ষায় বাংলাদেশ

May 16, 2016

সৌদিআরব ইরান ঠাণ্ডাযুদ্ধে বাংলাদেশের সতর্কতা অনস্বীকার্য, জঙ্গিবাদের অপচ্ছায়ার চেয়েও এই নতুন দিনের ঠাণ্ডাযুদ্ধের ছায়া অনেক বেশি গ্রাস করবে বাংলাদেশকে। যতই আমরা আমাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সমালোচনা করি না কেন, যতই রাশিয়া আশ্চর্য হোক না কেন সৌদিআরবের জঙ্গিবাদবিরোধী কোয়ালিশনে বাংলাদেশের দ্রুত যোগদানের ঘোষণা ঠিকই ছিল, আবার একই ভাবে বাংলাদেশের এনার্জি সেক্টরে ইরানকে বড় স্পেস ছেড়ে দেয়ার লক্ষ্যে দুদেশের তড়িৎ নৈকট্য প্রশংসার দাবিদার। বাংলাদেশকে সৌদিআরব ইরানকে ব্যালেন্স করার বর্তমান সময়ের এই চ্যালেঞ্জ পুরোপুরিই নিতে হবে। সবচেয়ে বেশি মাথায় রাখতে হবে সৌদিআরব যেরকম ওয়াহাবি রাজতন্ত্রের দেশ ইরানও তেমনি ইসলামি বিপ্লবের নিয়ন্ত্রিত গণতন্ত্রের দেশ – কাজেই দুজনের কাছ থেকেই রাজনীতি ও অর্থনীতির সকল সুযোগ যেমন বাংলাদেশকে বাস্তববুদ্ধির প্রয়োগে পেতেই হবে তেমনি দুজনের কাছ থেকেই ধর্ম ও সংস্কৃতি বিষয়ে বাংলাদেশকে সমান সাবধান থাকতে হবে।

33 Comments
  1. Full Text: Hamid Ansari on how Arabs don’t get to define Muslim culture
    The Vice President on the presumptions of Muslim cultural homogeneity and why India could work as a model for the globalizing world?

    Vice President Hamid Ansari spoke at the Mohammed V University in Rabat, Morocco on June 1, on ‘Accommodating Diversity in a Globalising World: The Indian Experience.’

    A traveller from a distant land in mashriq-al-aqsa comes to Maghrib-al Aqsa and marvels at his good fortune. His sense of history quickly reminds him that centuries earlier a great name from this land had travelled to India and recorded in some detail his impressions about the governance, manner and customs of Indians. He attained high office and also had his share of minor misfortunes.

    I refer, of course, to Sheikh Abdullah Mohammad ibn Abdullah ibn Mohammad ibn Ibralim al Lawati, better known as Ibn Batuta of Tanja.

    I thank the Government of the Kingdom of Morocco, and His Excellency the President of the University, for inviting me to address the Mohammad V University today.

    Even in distant India, the contribution of Moroccan intellectuals to modern thought and challenges is known and acknowledged. Names like Abdullah Al-Arui and Abid al-Jabri readily come to mind; so do the contributions of feminist writers like Fatima Mernisi and Fatima Sadiqi. The challenge in each case was that of modernity and the contemporary responses to it. Each addressed a specific aspect of the problem; the general question was posed aptly by al-Jabri: “How can contemporary Arab thought retrieve and absorb the most rational and critical dimensions of its tradition and employ them in the same rationalist directions as before – the direction of fighting feudalism, Gnosticism, and dependency?”

    This is a rich field, amply and productively explored by contemporary thinkers in Arab lands. This included the debates on Arabism, nationalism, democracy and Islam. Much has also been written about the trauma, self or externally inflicted, experienced individually and collectively by Arab societies in the past seven decades. The misfortunes visited on Arab lands since the 19th century was in good measure a result of their proximity to Europe in the age of imperialism.

    Arabs and Islam

    I would like to pause here and take up a related matter to draw the attention of the audience to some terminological questions. In current discussions in many places, the terms “Arab” and “Islam” are used together or interchangeably. But are the two synonymous? Is Arab thought synonymous with Islamic thought? Is all Arab thought Islamic or visa versa? Above all, can all Islamic thinking be attributed to Arabs?

    I raise these questions because for a variety of reasons and motivations the contemporary world, particularly the West, tends to create this impression of “a powerful, irrational force that, from Morocco to Indonesia, moves whole societies into cultural assertiveness, political intransigence and economic influence.” The underlying basis for this, as Aziz Al-Azmeh put it, are “presumptions of Muslim cultural homogeneity and continuity that do not correspond to social reality.”

    Allow me to amplify. Islam is a global faith, and its adherents are in all parts of the world. The history of Islam as a faith, and of Muslims as its adherents, is rich and diversified. In different ages and in different regions the Muslim contribution to civilisation has been note worthy. In cultural terms, the history of Islam “is the history of a dialogue between the realm of religious symbols and the world of everyday reality, a history of the interaction between Islamic values and the historical experiences of Muslim people that has shaped the formation of a number of different but interrelated Muslim societies.’

    This audience is in no need of being reminded of the truism that reasoning should proceed from facts to conclusions and should eschew a priori pronouncements.

    What then are facts?

    The Wikipedia indicates the world’s Muslim population in 2015 as 1.7 billion. The Pew Research Center of the United States has published country-wise and region-wise religious composition and projections for 198 countries for the period 2010 to 2050. It indicates that in 2010 Muslims numbered 1.59 billion out of which 986 million were in Asia-Pacific. It projects that four years from now, in 2020, the corresponding figures would be 1.9 billion out of which 1.13 billion (around 60 percent) would be in Asia-Pacific. The comparative figures for West Asia–North Africa would be 317 and 381 million (19.9% and 20.52%) and for Sub-Saharan Africa 248 and 329 million (15.59% and 17.31%) respectively. Within the Asia-Pacific region Indonesia, India, Pakistan, Bangladesh, Iran, Turkey together would account for 830 million in 2010 and 954 million in 2020.

    These numbers underline the fact that an overwhelming number of Muslims of the world are non-Arabs and live in societies that are not Arab. Equally relevant is the historical fact they contributed to and benefited from the civilisation of Islam in full measure. This trend continues to this day.

    The one conclusion I draw from this is that in ascertaining Islamic and Muslim perceptions on contemporary happenings, the experiences and trends of thinking of the non-Arab segments of large Muslim populations in the world assume an importance that cannot be ignored. These segments include countries with Muslim majorities (principally Indonesia, Bangladesh, Pakistan, Iran, and Turkey) as also those where followers of the Islamic faith do not constitute a majority of the population (India, China, and Philippines).

    India is sui generis

    Amongst both categories, India is sui generis. India counts amongst its citizens the second largest Muslim population in the world. It numbers 180 million and accounts for 14.2 percent of the country’s total population of 1.3 billion. Furthermore, religious minorities as a whole (Christians, Sikhs, Buddhists, Jains, and Parsis or Zoroastrians) constitute 19.4 percent of the population of India.

    India’s interaction with Islam and Muslims began early and bears the imprint of history. Indian Muslims have lived in India’s religiously plural society for over a thousand years, at times as rulers, at others as subjects and now as citizens. They are not homogeneous in racial or linguistic terms and bear the impact of local cultural surroundings, in manners and customs, in varying degrees.

    Through extensive trading ties before the advent of Islam, India was a known land to the people of the Arabian Peninsula, the Persian Gulf, and western Asia and was sought after for its prosperity and trading skills and respected for its attainments in different branches of knowledge. Thus Baghdad became the seeker, and dispenser, of Indian numerals and sciences. ThePanchatantra was translated and became Kalila wa Dimna. Long before the advent of Muslim conquerors, the works of Al-Jahiz, Ibn Khurdadbeh, Al-Kindi, Yaqubi and Al-Masudi testify to it in ample measure. Alberuni, who studied India and Indians more thoroughly than most, produced a virtual encyclopedia on religion, rituals, manners and customs, philosophy, mathematics and astronomy. He commenced his great work by highlighting differences, but was careful enough ‘to relate, not criticize’.

    Over centuries of intermingling and interaction, an Indo-Islamic culture developed in India. Many years back, an eminent Indian historian summed it up in a classic passage:

    ‘It is hardly possible to exaggerate the extent of Muslim influence over Indian life in all departments. But nowhere else is it shown so vividly and so picturesquely, as in customs, in intimate details of domestic life, in music, in the fashion of dress, in the ways of cooking, in the ceremonial of marriage, in the celebration of festivals and fairs, and in the courtly institutions and etiquette’.

    Belief, consciousness and practice became a particularly rich area of interaction. Within the Muslim segment of the populace, there was a running tussle between advocates of orthodoxy and those who felt that living in a non-homogenous social milieu, the pious could communicate values through personal practice. In this manner the values of faith, though not its theological content, reached a wider circle of the public. This accounted for the reach and popularity of different Sufi personalities in different periods of history and justifies an eminent scholar’s observation that ‘Sufism took Islam to the masses and in doing so it took over the enormous and delicate responsibility of dealing at a personal level with a baffling variety of problems.’

    It also produced a convergence or parallelism; the Sufi trends sought commonalities in spiritual thinking and some Islamic precepts and many Muslim practices seeped into the interstices of the Indian society and gave expression to a broader and deeper unity of minds expressive of the Indian spiritual tradition. The cultural interaction was mutually beneficial and an Islamic scholar of our times has acknowledged ‘an incontrovertible fact that Muslims have benefited immensely from the ancient cultural heritage of India.’

    I mention this because I am aware, but dimly, about the role of Sufi movements and ‘zawiyas’ in the history of Morocco. There is, in my view, room for comparative studies of Sufi practices in Morocco and India.

    It is this backdrop that has impacted on modern India and its existential reality of a plural society on the basis of which a democratic polity and a secular state structure was put in place.

    The framers of our Constitution had the objective of securing civic, political, economic, social and cultural rights as essential ingredients of citizenship. Particular emphasis was placed on rights of religious minorities. Thus in the section on Fundamental Rights ‘all persons are equally entitled to freedom of conscience and the right freely to profess, practice and propagate religion.’ In addition, every religious denomination shall have the right to establish and maintain institutions for religious and charitable purposes, to manage its own affairs in matters of religion, and to acquire and administer movable and immovable property. Furthermore, all religious or linguistic minorities shall have the right to establish and administer educational institutions of their choice. A separate section on Fundamental Duties of citizens enjoins every citizen ‘to promote harmony and the spirit of common brotherhood amongst all the people of India transcending religious, linguistic and regional or sectional diversities’ and also ‘to value and preserve the rich heritage of our composite culture.’

    Given the segmented nature of society and unequal economy, the quest for substantive equality, and justice, remains work in progress and concerns have been expressed from time to time about its shortfalls and pace of implementation. The corrective lies in our functioning democracy, its accountability mechanisms including regularity of elections at all levels from village and district councils to regional and national levels, the Rule of Law, and heightened levels of public awareness of public issues.

    The one incontrovertible fact about the Muslim experience in modern India is that its citizens professing Islamic faith are citizens, consider themselves as such, are beneficiaries of the rights guaranteed to them by the Constitution, participate fully in the civic processes of the polity and seek correctives for their grievances within the system. There is no inclination in their ranks to resort to ideologies and practices of violence.

    The same diversity of historical experience, and the perceptions emanating from it, is to be found in Indonesia that has the world’s largest population of Muslims and where two Islamist parties – Nahdatul Ulema and Muhammadiyah function legally, have large memberships, and participate in political activities including local and national elections. On a visit to Jakarta a few months back, I had occasion to solicit their views on contemporary debates on Political Islam. They said Islam in Indonesia has united with the culture of the people and their Islamic traditions have adapted themselves to local conditions. They felt Indonesian Muslims are moderate in their outlook, that Islam does not advocate extremism, and that radicalization of Islam is harmful and does not benefit the community.

    Both instances cited above indicate that in countries having complex societal makeup, accommodation of diversity in political structures and socio-economic policies is not an option but an imperative necessity ignoring which can have unpleasant consequences.

    The Indian model

    I come back to the principal theme of this talk. Why is the Indian model of relevance to our globalizing world?

    Globalization has many facets – economic, political and cultural. All necessitate the emergence of a set of norms, values and practices that are universally accepted. A sociologist has defined it as ‘the compression of the world and the intensification of consciousness of the world as a whole.’ An obvious implication of this would be assimilation and homogenization. In a world of intrinsically diverse societies at different levels of development, this could only result in denial of their diversity and imposition of uniformity. Such an approach can only result in conflict.

    The challenge for the modern world is to accept diversity as an existential reality and to configure attitudes and methodologies for dealing with it. In developing such an approach, the traditional virtue of tolerance is desirable but insufficient; our effort, thinking and practices have to look beyond it and seek acceptance of diversity and adopt it as a civic virtue.

    We in India are attempting it, cannot yet say that we have succeeded, but are committed to continue the effort. We invite all right-minded people to join us in this endeavour.

    http://scroll.in/article/809168/full-text-hamid-ansari-on-how-arabs-dont-get-to-define-muslim-culture

  2. জঙ্গি দমনে সৌদির পাশে থাকবে বাংলাদেশ

    সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদবিরোধী যে কোনো উদ্যোগে সৌদি আরবকে বাংলাদেশ সহায়তা করবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

    সম্প্রতি সৌদি আরব, জাপান ও বুলগেরিয়া সফরের অভিজ্ঞতা জানাতে বুধবার গণভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন তিনি।

    সৌদি নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটে যোগ দেওয়া প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “সৌদি যে উদ্যোগ নিয়েছে- জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবিরোধী ভূমিকা গ্রহণ করার যে আহ্বান; আমরা সাথে সাথে সেই আহ্বানে সাড়া দিয়েছি।

    “আমি নীতিগতভাবে মনে করি, এটা অত্যন্ত যুগোপযোগী পদক্ষেপ তারা নিয়েছে।”

    প্রধানমন্ত্রী বলেন, “বাদশাহকে আমি জানিয়েছি যে, সন্ত্রাস দমনের ক্ষেত্রে, জঙ্গি দমনের ক্ষেত্রে, যে কোনো উদ্যোগে বাংলাদেশ সব সময় সহায়তা করবে এবং দুটো মসজিদের (মক্কা ও মদিনার) নিরাপত্তা বিধানে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে যত ধরনের সহযোগিতা দরকার, এমনকি সামরিক সহযোগিতা দিতেও আমরা প্রস্তুত।”

    সৌদি আরবে পাঁচদিনের দ্বিপক্ষীয় সফর শেষে মঙ্গলবার রাতে ঢাকায় ফেরেন শেখ হাসিনা। এর আগে ১৮ থেকে ২০ মে বুলগেরিয়ায় গ্লোবাল উইমেন লিডারস ফোরাম এবং ২৬ থেকে ২৯ মে জাপানে জি-৭ শীর্ষ সম্মেলনের আউটরিচ মিটিংয়ে যোগ দেন তিনি।

    প্রধানমন্ত্রী সৌদি সফরের সময় ওমরাহ পালন করেন এবং মদিনায় মহানবীর রওজা মোবারক জিয়ারত করেন। শেখ হাসিনা সৌদি বাদশাহর সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেন। এছাড়া সৌদি পররাষ্ট্র, অর্থসহ একাধিকমন্ত্রী বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

    সৌদি শ্রমমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে এক সৌজন্য সাক্ষাতে বাংলাদেশ থেকে দক্ষসহ আরও পাঁচ লাখ জনশক্তি নেওয়ার অঅগ্রহ প্রকাশ করেন।

    সৌদিতে জনশক্তি রপ্তানির বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে শেখ হাসিনা বলেন, “শুধু লোক পাঠানোটাই না, আগে আমরা সৌদি আরব সম্পর্কে ভাবতাম শুধু লোকই পাঠাবো; সেখানে বড় একটা পরিবর্তন এসেছে সেটাতেই আপনাদের গুরুত্ব দিতে হবে।

    “সেটা হল- তারা আমাদের দেশে বিনিয়োগে আগ্রহী এবং আমি তাদেরকে সেই আহ্বান জানিয়েছি যে তারা এখানে বিনিয়োগ করবেন। ইতোমধ্যেই তাদেরকে আমরা প্রস্তাব দিয়েছি যে, আমরা জায়গা দিয়ে দেব।”

    রোববার বাদশাহর সঙ্গে বৈঠকের আগে জেদ্দায় সৌদি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে একটি বৈঠক করেন শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী সৌদি ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানালে তারা বিনিয়োগের সম্ভাবনা খুঁজতে বাংলাদেশে প্রতিনিধি দল পাঠাবেন বলে জানান।
    সংবাদ সম্মেলনে জনশক্তি রপ্তানির বিষয়েও কথা বলেন শেখ হাসিনা।

    তিনি জানান, সৌদিতে বর্তমানে ২০ লাখ বাংলাদেশি কর্মরত রয়েছেন।

    এর পাশাপাশি নতুন করে ডাক্তার, প্রকৌশলী, শিক্ষকসহ বিভিন্ন শ্রেণির মানুষও সৌদি আরবে পাঠানোর সুযোগ হয়েছে বলে জানান তিনি।

    ‘এ ব্যাপারে তারা খুব আগ্রহী’ মন্তব্য করে তিনি বলেন, “এবার আরেকটা বড় গুণগত পরিবর্তন, যে মহিলা শ্রমিকরা যাবে তারা সঙ্গে সন্তান, স্বামী নিতে পারবে।”

    সাম্প্রতিক বিদেশ সফরগুলো নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমি মনে করি পরপর তিনটি সফর আমাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই সফরগুলিতে সকলের সঙ্গে একটা সুসম্পর্কই শুধু না, বাংলাদেশের যে আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন হয়েছে, এটা একটা অদ্ভূত অনুভূতি যে, প্রত্যেকেই বিস্ময় প্রকাশ করেছে যে, বাংলাদেশ কীভাবে সাতভাগ প্রবৃদ্ধি অর্জন করল, উন্নতি করে যাচ্ছে।”

    http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1164674.bdnews

  3. হজ নিয়ে সৌদি সরকারের সমালোচনায় ইরান

    সৌদি আরবের হজ ব্যবস্থাপনার সমালোচনা করেছেন ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি।

    তিনি বলেছেন, “রিয়াদের দমনমূলক আচরণের কারণে মুসলিম বিশ্বের হজ ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব গ্রহণের বিষয়টি এখন বিবেচনার সময় এসেছে।”

    গত বছর হজের সময় পদদলনে শতাধিক হজযাত্রী নিহত হওয়ার পর থেকেই সৌদি আরবের হজ ব্যবস্থাপনার সমালোচনা করে আসছে ইরান।

    সোমবার এক বিবৃতিতে খামেনি বলেন, “সৌদি শাসকরা, যারা আল্লাহর পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে এবং ইরানের গর্বিত ও বিশ্বস্ত হজযাত্রীদের প্রিয় কাবাঘর পরিদর্শনের পথ রুদ্ধ করেছে, তারা মানুষকে অপদস্থ ও বিপথগামী করছে।”

    “সৌদি শাসকেরা মুসলিম বিশ্বের প্রতি যে অন্যায় করেছে তার দায়িত্ব গ্রহণ থেকে অবশ্যই জনগণ (মুসলিম বিশ্বের) তাদের পালিয়ে যেতে দেবে না।”

    এ বছর ১১ সেপ্টেম্বর হজ পালন হবে। যদিও ইরানের নাগরিকরা এবারের হজ পালন থেকে বিরত আছেন।

    মে মাসে সৌদি আরব ও ইরানের কর্মকর্তরা হজ সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে বিরোধের সমাধানে আসতে ব্যর্থ হয়।

    ইরানের দাবি, সৌদি কর্তৃপক্ষ ইরানের হজযাত্রীদের ‘যথাযথ নিরাপত্তা ও সম্মান প্রদাণে ব্যর্থ’ হয়েছে।

    অন্যদিকে, সৌদি কর্তৃপক্ষ বলছে, হজ সংক্রান্ত বিষয়ে ইরানের দাবি ‘অগ্রহণযোগ্য’।

    গত বছর হজ পালনে দেশটির প্রায় ৬০ হাজার নাগরিক সৌদি আরব গিয়েছিল। তাদের মধ্যে প্রায় চারশ’জন পদদলনে নিহত হয়। আর কোনও দেশের এত নাগরিক নিহত হননি।

    আঞ্চলিক আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ইরান ও সৌদি আরবের বিরোধ দীর্ঘদিনের। গত বছর হজের ওই ঘটনায় যা আরও চরম আকার ধারণ করেছে।

    এ বছর জানুয়ারিতে সৌদি আরব তাদের দেশের একজন প্রখ্যাত শিয়া মুসলিম নেতার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করলে তার প্ররিপ্রেক্ষিতে ঘটা নানা ঘটনায় দুই দেশ পরষ্পরের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে।
    [http://bangla.bdnews24.com/world/article1209824.bdnews]

  4. ইরানিরা মুসলিম নয়: সৌদি শীর্ষ ইমাম

    সৌদি আরবের হজ ব্যবস্থাপনা নিয়ে ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতার সমালোচনার একদিন পর ‘ইরানিদের অমুসলিম’ বলে অভিহিত করেছেন সৌদি আরবের শীর্ষ ইমাম।

    বিবিসি বলছে, সৌদি আরবের গ্রান্ড মুফতি আব্দুল আজিজ আল শেখ ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনির অভিযোগগুলোকে ‘বিস্ময়কর নয়’ বলে মন্তব্য করেছেন।

    প্রাচীন ইরানি ধর্ম জরথুস্ত্রের দিকে ইঙ্গিত করে আব্দুল আজিজ বলেন, “তারা তো মেজাইয়ের (প্রাচীন ইরানি পুরোহিতমণ্ডলী) সন্তান।”

    মধ্যপ্রাচ্যের দুটি নেতৃস্থানীয় মুসলিম দেশ, সুন্নি সংখ্যাগরিষ্ঠ সৌদি আরব ও শিয়া সংখ্যাগরিষ্ঠ ইরানের মধ্যে পরস্পরের বিষয়ে গভীর সন্দেহ বিরাজ করছে।

    গেল বছর হজের সময় পদদলিত হয়ে কয়েক হাজার হাজি মারা যাওয়ার ঘটনার সমালোচনা করে আলি খামেনি হাজিদের ‘খুন’ করার জন্য সৌদি আরবকে অভিযুক্ত করেন।

    তিনি বলেন, “হৃদয়হীন খুনি সৌদিরা আহতদের চিকিৎসার ব্যবস্থা না করে, তাদের সহায়তা না করে এমনকি পানিও পান করতে না দিয়ে মৃতদের সঙ্গে কন্টেইনারের ভিতরে বন্দি করে রেখেছিলেন, তাদের খুন করেছেন তারা।”

    তবে এ অভিযোগের বিষয়ে কোনো প্রমাণ দেখাননি তিনি। সোমবার (২৪ সেপ্টেম্বর) ওই পদদলনের ঘটনার এক বছর পূর্তিতে আলি খামেনি এসব কথা বলেন।

    ওই ঘটনায় বেসরকারি হিসাবে ২,৪২৬ জন হাজির মৃত্যু হয়েছিল, যাদের মধ্যে ৪৬৪ জন ইরানি।

    অপরদিকে সৌদি কর্তৃপক্ষের দাবি ওই ঘটনায় ৭৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছিল। ঘটনার তদন্তের ফলাফল নিয়ে খুব অল্প তথ্য প্রকাশ করেছে সৌদি কর্তৃপক্ষ, কিন্তু সমালোচনা প্রত্যাখ্যান করেছে।

    মক্কা সংবাদপত্র আলি খামেনির মন্তব্যের বিষয়ে আব্দুল আজিজের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি খামেনির অভিযোগ উড়িয়ে দেন।

    তিনি বলেন, “আমাদের অবশ্যই বুঝতে হবে তারা মুসলমান নয়। তারা মেজাইয়ের সন্তান এবং মুসলিমদের সঙ্গে তাদের শত্রুতা পুরনো বিষয়, বিশেষ করে ঐতিহ্যবাহী মুসলমানদের (সুন্নি) সঙ্গে।”

    সৌদি আরবের জনসংখ্যার ৮৫ থেকে ৯০ শতাংশ সুন্নি, অপরদিকে ইরানি জনসংখ্যার ৯০ থেকে ৯৫ শতাংশ শিয়া।

    সৌদি আরবের রাজপরিবার ও ধর্মীয় প্রভাবশালী গোষ্ঠী প্রধানত কট্টরপন্থি সুন্নি ধারা ওহাবি মতবাদের অনুসারী। এরা প্রায়ই শিয়াদের মূল বিশ্বাস থেকে সরে যাওয়া ‘প্রত্যাখ্যানকারী’ বলে অভিহিত করে থাকে।

    http://bangla.bdnews24.com/world/article1210458.bdnews

  5. Iranians neither xenophile nor xenophobic, but Revolutionary

    President Hassan Rouhani underlined that Iranians are neither xenophile nor xenophobic and welcome constructive engagement with rest of the world.

    President Rouhani and members of his cabinet renewed allegiance to the late Founder of the Islamic Republic Imam Khomeini on Monday paying a visit to his tomb on the eve of the 38th anniversary of the victory of the Islamic Revolution.

    Speaking during the ceremony, Rouhani said the discourse of Imam Khomeini is compliance, follow-up and advancing the revolutionary ideals, including freedom and independence, which was dictated by the Islamic Republic of Iran noting that the discourse should not be referred to selectively.

    “His path was independence; it does not mean isolation, it means preventing the domination of others over the fate of a country; we are neither xenophobic nor xenophile,” Rouhani underlined.

    “The best realization of hid path is the elections during which Iranians enjoy freedom and democracy,” he said urging the nation to participate in the upcoming presidential elections massively to creat another epic.

    President Rouhani reiterated that Imam Khomeini believed in cultural and popular struggle to win the Revolution; “he rejected being accustomed to the status quo and keeping silent against the oppression.”

    http://en.mehrnews.com/news/123126/Iranians-neither-xenophile-nor-xenophobic-but-Revolutionary

    http://en.mehrnews.com/news/123126/Iranians-neither-xenophile-nor-xenophobic-but-Revolutionary

  6. ঢাকায় ইরানি নওরোজ উৎসব
    http://www.amadershomoy.biz/unicode/2017/03/24/231365.htm

    ফার্সি নববর্ষ উপলক্ষে শুক্রবার ঢাকায় পালিত হল ইরানি নওরোজ উৎসব। ঢাকাস্থ ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্র ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের যৌথ উদ্যোগে রাজধানীর বিএমএ মিলনায়তনে ‘নওরোজ উৎসব ও এর প্রেরণাদায়ক ঐতিহ্য’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
    অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন, বাংলাদেশ এর চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের অধ্যাপক অনিসুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূত ড. আব্বাস ভায়েজী দেহনাভী ও প্রখ্যাত নাট্যব্যক্তিত্ব ও নাট্যনির্মাতা জনাব মামুনুর রশীদ।
    অনুষ্ঠানে বক্তরা বলেন, নওরোজ মানেই বসন্তের শুরু। আর বসন্ত মানেই ইরানিদের নতুন বছরের যাত্রা। শীত ঋতুর সমাপ্তির মধ্য দিয়ে বসন্ত যেমন পুরনো সব জরাজীর্ণতাকে ঝেড়ে ফেলে প্রকৃতিকে নতুন করে সাজায়, পুষ্প পল্লবে আচ্ছাদিত করে চারদিক তেমনি ইরানিরাও নওরোজে প্রকৃতির নতুন রূপের সাথে মিশে একাকার হয়ে যায়। বাড়িঘর, অঙ্গিনা, অলি-গলি, রাস্তা সবকিছু ঝেড়ে ঝকঝকে করার পাশাপাশি এগুলোর সৌন্দর্য বর্ধনের মধ্য দিয়ে সমাজকে নতুন করে আলিঙ্গন করে। এদিন ইরানিরা পরিবার-পরিজন ও বয়োজ্যেষ্ঠদের সাথে দেখা-সাক্ষাৎ করেন, একে অপরকে উপহার দেন ও দরিদ্রদের সাহায্য করেন। এমনকি নওরোজ শুরু হওয়ার পূর্বের শেষ শুক্রবার ইরানিরা কবরস্থানে যান এবং আপনজন যারা পৃথিবী থেকে চিরবিদায় গ্রহণ করেছেন তাদেরকে স্মরণ করেন।
    বক্তারা আরো বলেন, নওরোজ বলতেই ইরানিদের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী উৎসব ধরে নেয়া হলেও কোন কোন রেওয়ায়াতে বলা হয়েছে, খ্রিস্টপূর্ব ৩ হাজার বছরেরও আগে থেকে এই নওরোজ উৎসব পালিত হয়ে আসছে। এই নওরোজ উৎসব কেবল ইরানেই সীমাবদ্ধ নয়, আফগানিস্তান, তুরস্ক, মধ্য এশিয়া ও উপমহাদেশের দেশগুলাতেও তাদের নিজ নিজ সংস্কৃতি ও আচার অনুষ্ঠান অনুযায়ী এই উৎসব পালিত হয়ে থাকে। জাতিসংঘও বিশ্বে শান্তি ও সংস্কৃতির নিদর্শন হিসেবে ২০১০ সালে ফারসি নতুন বছরকে আন্তর্জাতিক নওরোজ দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে।

  7. মুসলমানদের বিভক্তি দূর করায় প্রধানমন্ত্রীর গুরুত্বারোপ

    মুসলমানদের মধ্যে বিভক্তির অবসান ঘটিয়ে সংঘাত বন্ধে গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

    বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সৌদি আরব পার্লামেন্টের মজিলিসে সুরার স্পিকার আবদুল্লাহ বিন মোহাম্মদ বিন ইব্রাহিম আলি-আল-শেখের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল সৌজন্য সাক্ষাতে এলে একথা বলেন শেখ হাসিনা।

    পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

    প্রেস সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, মুসলিমদের মধ্যে যে বিভক্তি; শিয়া, সুন্নি বা বিভিন্ন গ্রুপে যে যুদ্ধ হচ্ছে এটা বন্ধ করতে হবে।

    “আমরা নিজেরা নিজেরা যুদ্ধ করছি। এর মধ্যে লাভবান হচ্ছে অস্ত্র ব্যবসায়ীরা। এটা বন্ধ করতে হবে এবং নিজেদের মধ্যে বসে এটা আলোচনা করতে হবে যে, সমস্যা কি ও এর সমাধান বের করতে হবে,” প্রধানমন্ত্রীকে উদ্ধৃতি করে বলেন প্রেস সচিব।

    নিজেদের মধ্যে সংঘাতের কারণে মুসলমানরা অন্য দেশে শরণার্থী হচ্ছে এবং এটা মুসলমানদের জন্য লজ্জা বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

    প্রেস সচিব বলেন, “প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, শেষ বিচার করবেন আল্লাহ, তাহলে এই বিভেদ কেন? শিয়া, সুন্নী। এই বিভেদগুলো বন্ধ করতে হবে।”

    ধর্মের নামে আত্মঘাতী হামলা চালানোর সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, এর ফলে মুসলমানদের বদনাম হচ্ছে।

    ইসলামের সত্যিকারের মর্মবাণী বোঝানোর ক্ষেত্রে ওলামাদের ভূমিকা রয়েছে বলে মন্তব্য করেন সৌদি স্পিকার।

    সাক্ষাতে প্রধানমন্ত্রীকে সৌদির বাদশাহর শুভেচ্ছা পৌঁছে দেন সে দেশের স্পিকার।
    তিনি বলেন, তার নিজের সফর এবং প্রধানমন্ত্রীর আসন্ন সফরে বাংলাদেশ-সৌদি আরব সম্পর্ক আরো গভীর হবে বলে তিনি মনে করেন।

    স্পিকার আরো বলেন, বাদশাহ তাকে বলেছেন, বাংলাদেশের সঙ্গে সৌদির সম্পর্ক আরো শক্তিশালী হবে এবং প্রধানমন্ত্রীর আসন্ন সফরের মাধ্যমে আরো সুদৃঢ় হবে।

    যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সফরকালে সৌদি আরবে অনুষ্ঠেয় একটি সম্মেলনে অংশ নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ আল সৌদ।

    সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদে আগামী ২১ মে ‘অ্যারাবিক ইসলামিক আমেরিকান হিস্টোরিকাল সামিট’ শিরোনামে এই সম্মেলন হবে।

    ডোনাল্ড ট্রাম্প ছাড়াও বিভিন্ন মুসলিম দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানরা এই সম্মেলনে যোগ দেবেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীও আসন্ন সম্মেলনে যোগ দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

    http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1333283.bdnews

  8. PM to attend Arab Islamic American Summit
    Dhaka renews its stance over Saudi-led alliance

    Bangladesh has reiterated its position over the much-talked-about Saudi-led Islamic coalition, reports UNB

    Foreign Minister AH Mahmood Ali made the remark adding Dhaka will remain ready to send troops to the Kingdom if the security of the two holy mosques is threatened.

    The foreign minister made the remark at a press conference at the foreign ministry on Thursday focusing on Prime Minister Sheikh Hasina’s visit to the Kingdom of Saudi Arabia from May 20-23.

    “It’s a bit premature to call it a coalition. It’s still evolving. Nothing is done in written yet. It’s still under discussion,” he said.

    The foreign minister said Bangladesh will extend necessary support and troops, if requested, considering people’s respect, love and devotion for the two mosques — Al-Masjid al-Haram (the Sacred Mosque) in Makkah and Al-Masjid an-Nabawi (the Prophet’s Mosque) in Madina.

    Minister Ali maintained that Bangladesh is talking about center — Global Centre for Combating Extremist Thoughts — not coalition.

    He said the Prime Minister’s visit to Saudi Arabia to attend the Arab Islamic American Summit in Riyadh will help make ties between the two countries stronger.

    The visit will also play an important role in improving relations with other participating Muslim countries, Mahmmod Ali said.

    Earlier, Saudi King Salman bin Abdulaziz Al Saud, the Custodian of the Two Holy Mosques, invited the Prime Minister to join the summit to be hosted by his country.

    US President Donald Trump, among others, will attend the summit to mark his first visit to the Kingdom since he assumed the office as the 45th US President in January last.

    Asked about any possible meeting with Donald Trump and other leaders on the sidelines, the Foreign Minister said, “Let’s see.”

    • উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় নতুন অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠা এবং নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা জোরদারের লক্ষ্যে আয়োজিত এই সম্মেলনে ইসলামী চরমপন্থার বিরুদ্ধে লড়াই জোরদারের আহ্বান জানান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ লড়াইকে ‘সভ্যতার সংঘাতের’ বদলে ‘শুভ ও অশুভের যুদ্ধ’ হিসেবে বর্ণনা করেন তিনি।
      পররাষ্ট্র সচিব বলেন, এই সামিটের মূল উদ্দেশ্য ছিল সবাই মিলে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদকে চিহ্নিত করা; মূলমন্ত্র ছিল ‘টুগেদার উই প্রিভেইল’।

      “সবাই যদি আমরা সম্মিলিতভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াই, তাহলে এটা রোধ করা সম্ভব।”

      সৌদি আরবের নেতৃত্বে মুসলিম দেশগুলোর জোট নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, “এই জোটের একটা মিলিটারি সাইড আছে, একটা পলিটিক্যাল সাইড আছে। আমরা প্রাইমারিলি পলিটিক্যাল সাইডে শতভাগ অংশ নিচ্ছি। সামরিক দিকে কোন পরিস্থিতিতে আমরা সৈন্য পাঠাব তা পররাষ্ট্রমন্ত্রী আগেই ব্যাখ্যা করেছেন।

      “সেটা হল, দুই পবিত্র স্থান (মক্কা ও মদিনা) আক্রান্ত হলে তা রক্ষার জন্য আমরা সৈন্য পাঠাব।”

      http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1338273.bdnews

      • PM urges global leaders for solution to refugee crisis
        http://print.thefinancialexpress-bd.com/2017/05/23/173225

        Prime Minister Sheikh Hasina has urged world leaders to take a strong stance for finding a solution to global refugee crisis that contributes to the rise in terrorism and violent extremism endangering global peace and development.

        “Global refugee crisis contributes to the rise in terrorism and violent extremism. Refugees could be a potential breeding ground of terrorists and extremists,” she said in a written statement on Sunday at the inaugural ceremony of Arab-Islamic-American Summit at King Abdul Aziz International Conference Centre in Riyadh.

        Custodian of the Two Holy Mosques King Salman bin Abdulaziz Al Saud, US President Donald Trump, Presidents and Prime Ministers of fellow Arab and Islamic countries spoke at the meeting.

        Sheikh Hasina called upon all to join the launching of a reconstruction and development plan for the war-ravaged countries like Syria and Iraq on the model of post-Second World War Marshall Plan.

        She said the longtime sufferings and deprivation of the people of Palestine always cause a sense of injustice in the minds of the young generation. “We must act together for the establishment of a Palestinian State.”

        Regarding the war-ravaged countries like Iraq and Syria, the Prime Minister said that these countries have become the main centres of recruitment and operation for terrorist organisations.

        She also proposed four specific steps like stopping the source of supply of arms and flow of financing to terrorists and their outfits alongside removing the division within the Muslim Ummah for peaceful and sustainable settlement of conflicts.

        Hasina’s another proposed step is pursuing the principle of peaceful settlement of international disputes through dialogues that can address the divides leading to a win-win situation for all.

        Extending her thanks to King Salman for his initiative to establish the Islamic Counter Terrorism Centre in Riyadh, she said, “We’re happy to be a founding member of this Centre.”

        The Prime Minister reiterated that Bangladesh maintains a ‘zero tolerance’ policy to all forms of violent extremism. “We’ve always stood firm not to allow any terrorist individual or entity to use our territory or resources.”

        She went on saying, “To us, a terrorist is a terrorist. They don’t have any religion, belief or race. They may come from any religious background. Islam is a religion of peace. It never supports violence or killing. We denounce the use of religion to justify any form of violent extremism.”

        Hasina said her government has effectively dealt with homegrown violent extremists in Bangladesh as a number of local outfits have been banned. “These elements used to get support from some vested quarters.”

        She said her government has adopted a multipronged strategy to address this menace. “Our law enforcement agencies have been made effective with proper training to combat extremism. We’re also working to build awareness among people against terrorism.”

        The Prime Minister said she is personally holding meetings and exchanging views through videoconferences with all sections of society, especially the public representatives, teachers, students and Imams of mosques, across the country to build a social movement against terrorism and militancy.

        Hasina called upon all to declare from the meeting that Islam should not be used to refer to terrorists.

        Hasina turned a bit emotional recalling her refugee life saying, “I feel the pain of refugee, as I myself had been a refugee. I along with my family was internally displaced in Dhaka in 1971 during our Liberation War.”

        After the assassination of her father, Father of the Nation Bangbandhu Sheikh Mujibur Rahman along with 18 members of her family, Hasina said she and her younger sister had to take refuge abroad for six years until 1981.

        “Who else can better realise than me the pain of a refugee? The image of three-year-old Aylan lying lifeless on the seashore and the image of bloodstained Omran in Aleppo shake our consciences. I can hardly take in these images as a mother,” she said.

        Meanwhile, BSS adds: US President Donald Trump expressed his hope to visit Bangladesh as he exchanged greetings with Prime Minister Sheikh Hasina during the Arab Islamic-American (AIA) Summit in the Saudi capital on Sunday. “Yes I would come (to Bangladesh),” Foreign Secretary Md Shahidul Haque quoted the US president as saying while briefing reporters after the summit.

        Prime Minister’s Press Secretary Ihsanul Karim and Deputy Press Secretary Md Nazrul Islam were present at the press briefing.

        The foreign secretary said the two leaders exchanged pleasantries in the holding room of the King Abdul Aziz International Conference Centre in Riyadh before the start of the Arab Islamic-American (AIA) Summit.

        At that time, he said, the prime minister invited the US president to visit Bangladesh.

        “Accepting the invitation, Trump expressed the hope that he would visit Bangladesh,” Haque said.

        Meanwhile, Prime Minister Sheikh Hasina and Tajik President Emomalii Rahmon held a meeting at the King Abdulaziz Conference Centre on the sidelines of the AIA Summit.

        The Tajik president invited Prime Minister Sheikh Hasina to visit Tajikistan at her convenient. “We hope that the Tajik President may visit Bangladesh or the Bangladesh Prime Minister may visit Tajikistan by this year,” the foreign secretary said.

        He said that Tajikistan considers Bangladesh as a potential country for boosting its trade.

        The Bangladesh prime minister also held a meeting with her Malaysian counterpart Najib Razak on the sidelines of the summit.

        The foreign secretary said Bangladesh enjoys very friendly relations with Malaysia for long and the two leaders discussed various issues relating to bilateral interests.

  9. Americans don’t know our region: Iran president criticises Donald Trump, calls Saudi trip ‘a show’

    Trump had singled out Iran during his first official foreign trip, claiming it facilitates terrorism in the region.

    https://scroll.in/latest/838425/americans-dont-know-our-region-iran-president-criticises-donald-trump-calls-saudi-trip-a-show?utm_content=buffer5dbac&utm_medium=social&utm_source=twitter.com&utm_campaign=buffer

    Newly re-elected Iran President Hassan Rouhani on Monday criticised United States President Donald Trump’s administration. Rouhani also undercut Trump’s visit to Saudi Arabia, calling it “just a show”. Trump, who is on his first official foreign trip, had singled out Iran, saying the country “fuelled the fires of sectarian conflict and terror for decades.”

    Rouhani, who just won the presidential election by a large margin, dismissed Trump’s remarks. Soon after Trump had signed a $110-million deal with Saudi, Rouhani said that terrorism could not be “solved through giving money to superpowers”, AP reported.

    Rouhani also said Saudi had “never seen a ballot box” and that he hoped the US administration “settled down” some more, so that he could better understand it. Rouhani also said that the US “did not know our region”, AP reported. “Those who provide consultations or advice to the Americans, unfortunately, they are the rulers who either push America awry or with money, they just buy some people in America.” He added that the US “have always made mistakes in our region”.

    He also questioned how stability can be restored in the region without Iran’s help, BBC reported. “Who can say regional stability can be restored without Iran? Who can say the region will experience total stability without Iran?” he asked.

    Trump had begun his trip by coming down heavily on Iran and claiming it facilitates terror groups. Oil-rich Saudi had backed Trump’s remarks. “The Iranian regime represents the tip of the spear of global terrorism,” King Salaman had said.

    The Sunni-dominated Saudi Arabia, where the terrorists that carried out the September 11 attacks were from, is one of the US’ closest military allies. Iran, on the other hand, is led by the Shia sect, which has historically been at war with the Sunnis. On Sunday, Trump signed a $110-billion arms agreement with Saudi Arabia. Secretary of State Rex Tillerson had said the deal in addition to other investments Washington makes in Riyadh could amount to a total of $350 billion.

  10. ‘Terrorism, meddling in affairs’: Bahrain, Saudi Arabia & Egypt cut diplomatic ties with Qatar
    https://www.rt.com/news/390863-bahrain-cuts-diplomatic-relations-qatar/

    Key Arab League nations, including Saudi Arabia, Egypt and the UAE, have severed diplomatic ties with Qatar after Bahrain said it was cutting all ties and contacts with Doha. Qatar is accused of backing terrorist groups and meddling in other countries’ affairs.

    Bahrain announced early Monday that it is severing diplomatic relations with neighboring Qatar and cutting air and sea connections with Doha, accusing it of meddling in its internal affairs. Bahrain’s state news agency said in a brief statement that Qatari citizens have 14 days to leave the country.

    It accused Doha of supporting terrorism and meddling in Manama’s internal affairs.

    Citing “protection of national security,” Riyadh then announced it was also severing ties with Doha and closing off all land, sea and air contacts, the Saudi state agency said in a statement, cited by Reuters.

    The Saudi-led coalition has announced that Qatar’s participation in its joint military operation in Yemen has been canceled. The coalition’s statement accused Doha of supporting the Al-Qaeda and Islamic State terrorist groups.

    Egypt was next to join the diplomatic war, with Cairo announcing it is cutting relations with Doha, according to Sputnik news agency.

    Egypt has closed all its seaports and airspace to Qatari vessels and planes, the country’s Foreign Ministry said in a statement.

    “The Government of the Arab Republic of Egypt has decided to sever diplomatic relations with Qatar because of the continued hostility of the Qatari authorities towards Egypt,” the Cairo statement read, also accusing Doha of supporting terrorist organizations, including the Muslim Brotherhood.

  11. Calls for internationalisation of holy sites a declaration of war: Saudi Arabia
    http://print.thefinancialexpress-bd.com/2017/07/31/179313

    The foreign minister of Saudi Arabia has termed Qatar’s demands for an internationalisation of the Muslim hajj pilgrimage a declaration of war against the kingdom.

    Saudi-owned Al Arabiya television said this on Sunday, although it was unclear whether Qatar had actually made any such demand.

    “Qatar’s demands to internationalise the holy sites is aggressive and a declaration of war against the kingdom,” Adel al-Jubeir was quoted as saying on Al Arabiya’s website. “We reserve the right to respond to anyone who is working on the internationalisation of the holy sites,” he said.

    However, it was unclear whether Qatar made the demand. The country did accuse the Saudis of politicising Hajj and addressed the United Nations Special Rapporteur on freedom of religion on Saturday, expressing concern about obstacles facing Qataris who want to attend hajj this year.

    No one from the Qatari government was immediately available for comment.

    Saudi Arabia, the United Arab Emirates (UAE), Egypt and Bahrain have previously issued a list of 13 demands for Qatar, which include curtailing its support for the Muslim Brotherhood, shutting down the Doha-based Al Jazeera TV channel, closing a Turkish military base and downgrading its relations with the Gulf enemy Iran.

    Foreign ministers of the four countries on Sunday said that they were ready for dialogue with Qatar if it showed willingness to tackle their demands.

    ‘মক্কা-মদিনার আন্তর্জাতিকীকরণের ডাক যুদ্ধ ঘোষণার শামিল’

    হজের স্থানগুলোর আন্তর্জাতিকীকরণের কাতারের ‘দাবি’কে সৌদি আরবের বিরুদ্ধে ‍যুদ্ধ ঘোষণার শামিল বলে মন্তব্য করেছেন সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

    রোববার সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন আল আরাবিয়া টেলিভিশন এ কথা জানিয়েছে; অপরদিকে এ ধরনের কোনো আহ্বান জানানোর কথা অস্বীকার করেছে কাতার।

    আল আরাবিয়ার ওয়েবসাইটে দেওয়া উদ্ধৃতিতে সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল জুবেইর বলেছেন, “পবিত্র স্থানগুলোকে আন্তর্জাতিকীকরণের কাতারের দাবি আক্রমণাত্মক এবং সৌদি আরবের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা।

    “যারাই পবিত্র স্থানগুলোর আন্তর্জাতিকীকরণের জন্য কাজ করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের অধিকার আমাদের আছে।”

    অপরদিকে কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আব্দুলরাহমান আল থানি বলেছেন, তার দেশের কোনো সরকারি কর্মকর্তা এ ধরনের কোনো আহ্বান জানাননি।

    আল জাজিরা টেলিভিশনকে তিনি বলেন, “মিথ্যা তথ্যের জবাব দেয়ার চেষ্টা করছি আমরা। শূন্য থেকে এসব গল্প বানানো হচ্ছে।”

    সৌদি আরব হজকে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করে ধর্মীয় স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করছে বলে শনিবার জাতিসংঘের বিশেষ দূতের কাছে অভিযোগ করেছে কাতার। চলতি বছর হজ গমনেচ্ছু কাতারিদের যে বাধাগুলোর মুখোমুখি হতে হচ্ছে তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে দেশটি।

    কাতারের বিরুদ্ধে জঙ্গিদের মদত দেয়ার অভিযোগ তুলে দেশটির সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে সৌদি আরব ও তার মিত্র সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিশর ও বাহরাইন। পাশাপাশি সড়ক, জলপথ ও বিমানপথে কাতারের সঙ্গে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়ে দেশটির বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে ওই চার আরব দেশ।

    এরপর মুসলিম ব্রাদারহুডকে সমর্থন বন্ধ করা, দোহাভিত্তিক সংবাদ চ্যানেল আল জাজিরা বন্ধ, কাতারে তুরস্কের সামরিক ঘাঁটি বন্ধ ও শত্রুদেশ ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক সীমিত করাসহ ওই চারটি দেশ কাতারের কাছে ১৩টি দাবি পেশ করে। এ দাবিগুলো মানলে কাতারের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হবে বলে জানায় তারা।

    দাবিগুলোকে সার্বভৌমত্ব বিরোধী অভিহিত করে তা প্রত্যাখ্যান করে কাতার। দাবিগুলো প্রত্যাখ্যান করলেও আলোচনার পথ খোলা আছে বলে জানায় দেশটি।

    রোববার ওই চারটি আরব দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা জানিয়েছেন, তাদের দাবিগুলো সমাধানের বিষয়ে সদিচ্ছা দেখালে কাতারের সঙ্গে আলোচনায় প্রস্তুত আছেন তারা।

    http://bangla.bdnews24.com/world/article1372442.bdnews

  12. সৌদিতে শিয়াবিরোধী অভিযানে গোলাগুলিতে বাংলাদেশিসহ নিহত ৪

    http://bangla.bdnews24.com/probash/article1372956.bdnews

    সৌদি আরবে নিরাপত্তা বাহিনী ও শিয়া বিদ্রোহীদের মধ্যে গোলাগুলিতে এক বাংলাদেশিসহ চার প্রবাসী নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

    গত বৃহস্পতিবার দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ শিয়া অধ্যুষিত কাতিফের আওয়ামিয়াহ এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানের সময় এ ঘটনা ঘটলেও সোমবার নিহতের পরিচয় জানা গেছে।

    সৌদি আরবে বাংলাদেশ দূতাবাসের কাউন্সেলর (শ্রম) সারওয়ার আলম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, নিহত মোহাম্মদ আলমগীর হোসাইন (৪৭) চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জের গোবিন্দপুর গ্রামের মোজাফফর খানের ছেলে।

    ওই ঘটনায় নিহতদের মধ্যে দুজন পাকিস্তানি ও একজন ভারতীয় বলে সৌদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে জানানো হয়। নিহতদের লাশ দাম্মাম সেন্ট্রাল হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।

    ওই অঞ্চলে দায়িত্বপ্রাপ্ত বাংলাদেশ দূতাবাসের আইন সহায়তাকারী কর্মকতা মোহাম্মদ ফয়সাল বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “কাতিফে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের দ্রুত এলাকা ছেড়ে অন্যত্র সরে যাওয়ার কথা বলা হয়েছে।”

    রোববার নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানে ১৫ জন বিদেশি নাগরিককে আটক করা হলেও তাদের কোনও সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ না হওয়ায় ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

    ফয়সাল বলেন, “রোববারও কাতিফ ঘুরে দেখা গেছে সেখানকার থানা ভবন সৌদি এলিট ফোর্স ঘিরে আছে। ব্যক্তিগতভাবে খোঁজ নিয়ে জেনেছি, ওই এলাকা নিয়ন্ত্রণের জন্য ৫ হাজার স্পেশাল ফোর্সের সেনা আনা হয়েছে।

    “সরকারিভাবে মাসুরার পাশে শিয়া সমর্থক অধ্যুষিত আওয়ামিয়াহ এলাকার ১১টি মহল্লা থেকে সবাইকে সরে যেতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তাদেরকে সরকারিভাবে অন্য জায়গায় বাসস্থান দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।”

    সোমবারও ওই এলাকায় গোলাগুলির আওয়াজ শুনেছেন জানিয়ে তিনি বলেন, “পুলিশের সহায়তায় অনেক সৌদি পরিবারকে সেখান থেকে নিরাপদে বের হয়েও আসতে দেখেছি। এসময় কয়েকজন বাংলাদেশির সাথে দেখা হলে তাদেরকে দ্রুত ওই এলাকা ছাড়তে পরামর্শ দিলেও তারা আমলেই নেননি।”

  13. Saudi Crown Prince pledges return to ‘moderate’ Islam

    https://www.yahoo.com/news/saudi-crown-prince-pledges-return-moderate-islam-135236082.html

    Saudi Arabia’s powerful Crown Prince Mohammed bin Salman on Tuesday vowed to restore “moderate, open” Islam in a kingdom known for its ultra-conservative rule.

    “We are returning to what we were before — a country of moderate Islam that is open to all religions and to the world,” he said at an economic forum in Riyadh.

    “We will not spend the next 30 years of our lives dealing with destructive ideas. We will destroy them today,” he added.

    “We will end extremism very soon.”

    The crown prince’s statement is the most direct attack by a top official on the Gulf country’s influential conservative religious establishment.

    Since his sudden appointment on June 21, Prince Mohammed has pushed ahead with reforms.

    He is widely regarded as being the force behind King Salman’s decision last month to lift a long-standing ban on women driving.

    Earlier Tuesday, Riyadh announced the launch of an independent economic zone along the kingdom’s northwestern coastline.

    The project, dubbed NEOM, will operate under regulations separate from those that govern the rest of Saudi Arabia.

  14. Israeli Military Chief Gives Unprecedented Interview to Saudi Media: ‘Iran Is Biggest Threat to Mideast’

    In an unprecedented move, a Saudi newspaper on Thursday published an interview with the Israeli military chief, Lt. Gen. Gadi Eisenkot. This is the first time a senior military officer is interviewed by a media outlet in the kingdom, which doesn’t have diplomatic ties with Israel.

    In the interview, Eisenkot called Iran the “biggest threat to the region.” He said Israel and Saudi Arabia are in full agreement about the Iran’s intentions, noting that Israel and Saudi Arabia have never fought each other.

    Eisenkot remarked that “Iran wants to take control of the Middle East, creating a Shi’ite crescent from Lebanon to Iran and then from the Gulf to the Red Sea,” adding that “we must prevent this from happening.

    He said that Israel has no intention of initiating an attack on Hezbollah in Lebanon, saying that “we see Iranian attempts at bringing about an escalation, but I don’t see a high chance for this at the moment.”

    The interview was published two weeks after the storm surrounding Lebanese Prime Minister Saad Hariri’s tumultuous resignation, as well as the wave of arrests of Saudi princes and businessmen and public threats aimed at Iran and Hezbollah.

    https://www.haaretz.com/israel-news/1.823163

    ===

    Saudi Arabia Is Opening a New Front Against Iran, and Wants Israel to Do Its Dirty Work

    The Sunni kingdom is trying to shift the battlefield from Syria to Lebanon. This may lead to a chain reaction

    Late last week, in under 24 hours, the Saudi royal house set off a string of shocks within the kingdom and across the Middle East, making a set of moves that escalated the battle with Iran over regional hegemony.

    The complete Saudi plan, if it exists, has not been revealed yet. However, the series of developments has raised the level of nervousness in its neighbors’ capitals, provoking much guesswork regarding the Saudis’ next moves.

    First came the announcement that Lebanon’s Prime Minister Saad Hariri was resigning. At first it was explained as deriving from his concerns about an Iranian-inspired Hezbollah plot to assassinate him. As the days passed, the resignation seemed more like a Saudi dictate, stemming from Saudi Arabia’s displeasure at the way Hariri was compelled to cooperate with Hezbollah in Lebanon’s government.

    A few hours after the initial announcement, the Saudis announced a wave of arrests of princes and wealthy businessmen, on suspicion of corruption. As the princes were being detained under five-star-hotel conditions at the Ritz Carlton in Riyadh, a strange aerial accident took place in the southern part of the kingdom. The next day it emerged that a prince had tried to escape Saudi Arabia by air, using a helicopter which was shot down by the Saudi air force. The nine passengers and crew on board were killed. In the meantime, Yemen’s Houthi rebels, backed by Iran, fired a missile at Riyadh’s airport. American missiles successfully intercepted the missile. In retaliation, Saudi Arabia imposed a land and naval blockade on Yemen.

    These weren’t the only developments related to Saudi Arabia this week. U.S. President Donald Trump tweeted words of support for steps taken by King Salman and by the kingdom’s strongman, Crown Prince Mohammad bin Salman. Trump’s son-in-law Jared Kushner visited Saudi Arabia and Israel several days before the wave of purges took place. In Israel, the Foreign Ministry disseminated a position paper among foreign embassies following Hariri’s resignation, TV Channel 10 reported. This was totally congruent with the official Saudi version of events, which put the blame for the crisis in Lebanon squarely at Iran’s feet. Mahmoud Abbas, head of the Palestinian Authority, embarked on an urgent visit to Egypt and Saudi Arabia. Brussels received a surprising request that a senior Saudi delegation come on a visit next week to discuss methods of combating terror. The Saudis were responding to an invitation which had been issued by the Europeans ten months earlier.

    Is there one line connecting these dots, as well as one linking it to the crisis deliberately-generated by Saudi Arabia, the United Arab Emirates and Egypt with regard to fractious Qatar last summer? Is there a link between these issues and the reconciliation between the Palestinian Authority and Hamas, which began to be implemented in Gaza last week, led by Cairo? The conventional wisdom among intelligence officials and academic scholars is that these are steps designed to consolidate the influence of Mohammad bin Salman, ahead of the future transfer of power from his 82-year-old father into his hands.

    It’s unclear if the Saudis will necessarily make do with these moves. The royal house is particularly close to the Trump administration and Saudi Arabia was one of the few countries, along with Israel, which enthusiastically welcomed Trump’s election, this time last year. Over the past year there have been a growing number of reports around the world of increasing diplomatic coordination between Riyadh and Jerusalem, accompanied by cooperation in intelligence matters. Israel and the Saudis see Iran as a common enemy, and both are frustrated at the West’s incompetence in dealing with Iran’s growing influence in what is known as the “Shi’ite Crescent” in the region.

    The string of events, starting with the Qatari crisis last summer, strengthens the assumption that this is part of a wider Saudi move, an ambitious attempt to reach a new regional order. On the diplomatic front this is linked to the internal Palestinian reconciliation, led by Cairo but which also requires financial backing by the Saudis and the Emirates. This won’t be all, apparently. The defense establishment and political circles in Israel are preparing for the likely possibility that the Trump administration will soon present Israel and the Palestinian Authority with a new document, in an attempt to jumpstart the stalled peace process. Such a move may be pursued in a coordinated way between the United States and the Saudis. Saudi ambitions may have other results as well. An article in Haaretz this week by former U.S. ambassador to Israel Dan Shapiro asked whether the Saudis were pushing Israel into a war with Hezbollah and Iran.

    Shapiro, who was Barack Obama’s adviser on Middle East affairs during Obama’s run for the White House, raises the possibility that the fact that the Assad regime in Syria survived the civil war there is driving the Saudis to try and move the battlefield with Iran from Syria to Lebanon, trying to get Israel to do Saudi Arabia’s dirty work. This may lead to a chain reaction, which the Saudis hope for, believes Shapiro. Hariri’s resignation will force Hezbollah to contend with the implications of the political and economic crisis in Lebanon, The Shi’ite organization, in turn, may then escalate a military confrontation with Israel in order to unite the Lebanese public around itself. Shapiro warned Israel against being maneuvered by the Saudis into a premature military confrontation.

    Shapiro is not the only one to raise the possibility of such a scenario. Dov Zakheim, who filled senior posts at the Pentagon during the Reagan administration, wrote an article this week in Foreign Policy in which he discussed the alliance between the United States and Saudi Arabia, the Emirates and Israel. He noted that Kushner’s visit to Riyadh was the third one since Trump entered the White House. Zakheim says that the combination of Trump, Netanyahu and Mohammad bin Salman leaves open any possibility. Zakheim argues that the three are planning something, and it looks like a plan to put pressure on Iran. Israel, as suggested last week, now has to conduct itself under extremely sensitive circumstances. The success of the Assad regime, the increased Russian presence in Syria and the growing influence of Iran have all created a new and unclear situation. Precisely for this reason, believes the General Staff, there is a need to define rules of the game that will maintain Israel’s freedom of military operation on the northern front. This is apparently the reason for the numerous reports of Israeli aerial attacks in Syria, targeting weapons depots and factories, as well as convoys smuggling ordinance to Hezbollah in Lebanon. These circumstances also dramatically increase the risks of an unplanned deterioration as a result of a local incident gone out of control. If Saudi Arabia is deliberately stoking the flames between the sides, this becomes a tangible danger.

    Israel Defense Forces commanders insist that every operation is based on precise intelligence and much thought, before it is brought to political leaders for approval. And yet, it seems that this is a tense period even in comparison to events of recent years, with the frenzy that has gripped the region since the events that shook the Arab world seven years ago this December.

    https://www.haaretz.com/israel-news/1.822032

  15. ‘Wiping out’ extremist ideology is my mission: Issa

    The head of a Saudi-based organization that for decades was charged with spreading the Wahhabi school of Islam around the world has said those times were over and his focus now was aimed at annihilating extremist ideology.

    Former Justice Minister Mohammad al-Issa, appointed secretary-general of the Mecca-based Muslim World League just over a year ago, told Reuters during a European tour that his organization would no longer sit by and let Islam be taken hostage by extremists.

    The push for a more moderate Islam underscores efforts by Saudi Crown Prince Mohammad bin Salman to modernize the kingdom, which finances groups overseen by the organization, and cleave to a more open and tolerant interpretation of Islam. The ambitious young prince has already taken some steps to loosen Saudi Arabia’s ultrastrict social restrictions, scaling back the role of religious morality police, permitting public concerts and announcing plans to allow women to drive next year.

    “The past and what was said, is in the past. What happened in the past and the way in which we worked then, is not the subject of debate,” Issa said in an interview late Thursday. “We must wipe out this extremist thinking through the work we do. We need to annihilate religious severity and extremism which is the entry point to terrorism. That is the mission of the Muslim World League.”

    “What we are doing and want to do is purify Islam of this extremism and these wrong interpretations and give the right interpretations of Islam,” the 52-year-old said through a translator. “Only the truth can defeat that and we represent the truth.”

    The emergence of Daesh (ISIS) in Syria and Iraq with its thousands of foreign fighters has highlighted how Europe in particular has become a breeding ground for angry and fragile people to turn to radical Islam.

    In France alone, a string of attacks that saw hundreds of people killed since 2015 were in large part carried out by French Muslims.

    Issa said part of his work was to address the difficulties Muslims may have in adapting their religion to non-Muslim nations.

    “We try to bring answers to face down these messages that change the reality of Islam. We want to offer the real interpretation of the sacred texts that have been taken hostage and interpreted in a wrong way,” he said.

    As part of those efforts, Issa said he was also working with other faiths. After the Lebanese Maronite patriarch made a historic visit to Riyadh last week, Issa visited religious officials at Paris’ landmark Notre Dame Cathedral, but also Paris’ Grand Synagogue. “We have a common objective to end hatred,” he said. “The Muslim World League really believes that we can accomplish that, and religions are very influential in doing that.”

    http://www.dailystar.com.lb/News/Middle-East/2017/Nov-25/427760-wiping-out-extremist-ideology-is-my-mission-issa.ashx?utm_content=bufferc71d4&utm_medium=social&utm_source=twitter.com&utm_campaign=buffer

  16. Saudi Arabia’s Arab Spring, at Last

    The crown prince has big plans to bring back a level of tolerance to his society.

    I never thought I’d live long enough to write this sentence: The most significant reform process underway anywhere in the Middle East today is in Saudi Arabia. Yes, you read that right. Though I came here at the start of Saudi winter, I found the country going through its own Arab Spring, Saudi style.

    Unlike the other Arab Springs — all of which emerged bottom up and failed miserably, except in Tunisia — this one is led from the top down by the country’s 32-year-old crown prince, Mohammed bin Salman, and, if it succeeds, it will not only change the character of Saudi Arabia but the tone and tenor of Islam across the globe. Only a fool would predict its success — but only a fool would not root for it.

    To better understand it I flew to Riyadh to interview the crown prince, known as “M.B.S.,” who had not spoken about the extraordinary events here of early November, when his government arrested scores of Saudi princes and businessmen on charges of corruption and threw them into a makeshift gilded jail — the Riyadh Ritz-Carlton — until they agreed to surrender their ill-gotten gains. You don’t see that every day.

    We met at night at his family’s ornate adobe-walled palace in Ouja, north of Riyadh. M.B.S. spoke in English, while his brother, Prince Khalid, the new Saudi ambassador to the U.S., and several senior ministers shared different lamb dishes and spiced the conversation. After nearly four hours together, I surrendered at 1:15 a.m. to M.B.S.’s youth, pointing out that I was exactly twice his age. It’s been a long, long time, though, since any Arab leader wore me out with a fire hose of new ideas about transforming his country.

    We started with the obvious question: What’s happening at the Ritz? And was this his power play to eliminate his family and private sector rivals before his ailing father, King Salman, turns the keys of the kingdom over to him?

    It’s “ludicrous,” he said, to suggest that this anticorruption campaign was a power grab. He pointed out that many prominent members of the Ritz crowd had already publicly pledged allegiance to him and his reforms, and that “a majority of the royal family” is already behind him. This is what happened, he said: “Our country has suffered a lot from corruption from the 1980s until today. The calculation of our experts is that roughly 10 percent of all government spending was siphoned off by corruption each year, from the top levels to the bottom. Over the years the government launched more than one ‘war on corruption’ and they all failed. Why? Because they all started from the bottom up.”

    So when his father, who has never been tainted by corruption charges during his nearly five decades as governor of Riyadh, ascended to the throne in 2015 (at a time of falling oil prices), he vowed to put a stop to it all, M.B.S. said:

    “My father saw that there is no way we can stay in the G-20 and grow with this level of corruption. In early 2015, one of his first orders to his team was to collect all the information about corruption — at the top. This team worked for two years until they collected the most accurate information, and then they came up with about 200 names.”

    When all the data was ready, the public prosecutor, Saud al-Mojib, took action, M.B.S. said, explaining that each suspected billionaire or prince was arrested and given two choices: “We show them all the files that we have and as soon as they see those about 95 percent agree to a settlement,” which means signing over cash or shares of their business to the Saudi state treasury.

    “About 1 percent,” he added, “are able to prove they are clean and their case is dropped right there. About 4 percent say they are not corrupt and with their lawyers want to go to court. Under Saudi law, the public prosecutor is independent. We cannot interfere with his job — the king can dismiss him, but he is driving the process … We have experts making sure no businesses are bankrupted in the process” — to avoid causing unemployment.

    “How much money are they recovering?” I asked.

    The public prosecutor says it could eventually “be around $100 billion in settlements,” said M.B.S.

    There is no way, he added, to root out all corruption from top to the bottom, “So you have to send a signal, and the signal going forward now is, ‘You will not escape.’ And we are already seeing the impact,” like people writing on social media, “I called my middle man and he doesn’t answer.” Saudi business people who paid bribes to get services done by bureaucrats are not being prosecuted, explained M.B.S. “It’s those who shook the money out of the government” — by overcharging and getting kickbacks.

    The stakes are high for M.B.S. in this anticorruption drive. If the public feels that he is truly purging corruption that was sapping the system and doing so in a way that is transparent and makes clear to future Saudi and foreign investors that the rule of law will prevail, it will really instill a lot of new confidence in the system. But if the process ends up feeling arbitrary, bullying and opaque, aimed more at aggregating power for power’s sake and unchecked by any rule of law, it will end up instilling fear that will unnerve Saudi and foreign investors in ways the country can’t afford.

    But one thing I know for sure: Not a single Saudi I spoke to here over three days expressed anything other than effusive support for this anticorruption drive. The Saudi silent majority is clearly fed up with the injustice of so many princes and billionaires ripping off their country. While foreigners, like me, were inquiring about the legal framework for this operation, the mood among Saudis I spoke with was: “Just turn them all upside down, shake the money out of their pockets and don’t stop shaking them until it’s all out!”

    But guess what? This anticorruption drive is only the second-most unusual and important initiative launched by M.B.S. The first is to bring Saudi Islam back to its more open and modern orientation — whence it diverted in 1979. That is, back to what M.B.S. described to a recent global investment conference here as a “moderate, balanced Islam that is open to the world and to all religions and all traditions and peoples.”

    I know that year well. I started my career as a reporter in the Middle East in Beirut in 1979, and so much of the region that I have covered since was shaped by the three big events of that year: the takeover of the Grand Mosque in Mecca by Saudi puritanical extremists — who denounced the Saudi ruling family as corrupt, impious sellouts to Western values; the Iranian Islamic revolution; and the Soviet invasion of Afghanistan.

    These three events together freaked out the Saudi ruling family at the time, and prompted it to try to shore up its legitimacy by allowing its Wahhabi clerics to impose a much more austere Islam on the society and by launching a worldwide competition with Iran’s ayatollahs over who could export more fundamentalist Islam. It didn’t help that the U.S. tried to leverage this trend by using Islamist fighters against Russia in Afghanistan. In all, it pushed Islam globally way to the right and helped nurture 9/11.

    A lawyer by training, who rose up in his family’s education-social welfare foundation, M.B.S. is on a mission to bring Saudi Islam back to the center. He has not only curbed the authority of the once feared Saudi religious police to berate a woman for not covering every inch of her skin, he has also let women drive. And unlike any Saudi leader before him, he has taken the hard-liners on ideologically. As one U.S.-educated 28-year-old Saudi woman told me: M.B.S. “uses a different language. He says, ‘We are going to destroy extremism.’ He’s not sugar-coating. That is reassuring to me that the change is real.”

    Indeed, M.B.S. instructed me: “Do not write that we are ‘reinterpreting’ Islam — we are ‘restoring’ Islam to its origins — and our biggest tools are the Prophet’s practices and [daily life in] Saudi Arabia before 1979.” At the time of the Prophet Muhammad, he argued, there were musical theaters, there was mixing between men and women, there was respect for Christians and Jews in Arabia. “The first commercial judge in Medina was a woman!” So if the Prophet embraced all of this, M.B.S. asked, “Do you mean the Prophet was not a Muslim?”

    Then one of his ministers got out his cellphone and shared with me pictures and YouTube videos of Saudi Arabia in the 1950s — women without heads covered, wearing skirts and walking with men in public, as well as concerts and cinemas. It was still a traditional and modest place, but not one where fun had been outlawed, which is what happened after 1979.

    If this virus of an antipluralistic, misogynistic Islam that came out of Saudi Arabia in 1979 can be reversed by Saudi Arabia, it would drive moderation across the Muslim world and surely be welcomed here where 65 percent of the population is under 30.

    One middle-age Saudi banker said to me: “My generation was held hostage by 1979. I know now that my kids will not be hostages.” Added a 28-year-old Saudi woman social entrepreneur: “Ten years ago when we talked about music in Riyadh it meant buying a CD — now it is about the concert next month and what ticket are you buying and which of your friends will go with you.”

    Saudi Arabia would have a very long way to go before it approached anything like Western standards for free speech and women’s rights. But as someone who has been coming here for almost 30 years, it blew my mind to learn that you can hear Western classical music concerts in Riyadh now, that country singer Toby Keith held a men-only concert here in September, where he even sang with a Saudi, and that Lebanese soprano Hiba Tawaji will be among the first woman singers to perform a women-only concert here on Dec. 6. And M.B.S told me, it was just decided that women will be able to go to stadiums and attend soccer games. The Saudi clerics have completely acquiesced.

    The Saudi education minister chimed in that among a broad set of education reforms, he’s redoing and digitizing all textbooks, sending 1,700 Saudi teachers each year to world-class schools in places like Finland to upgrade their skills, announcing that for the first time Saudi girls will have physical education classes in public schools and this year adding an hour to the Saudi school day for kids to explore their passions in science and social issues, under a teacher’s supervision, with their own projects.

    So many of these reforms were so long overdue it’s ridiculous. Better late than never, though.

    On foreign policy, M.B.S. would not discuss the strange goings on with Prime Minister Saad Hariri of Lebanon coming to Saudi Arabia and announcing his resignation, seemingly under Saudi pressure, and now returning to Beirut and rescinding that resignation. He simply insisted that the bottom line of the whole affair is that Hariri, a Sunni Muslim, is not going to continue providing political cover for a Lebanese government that is essentially controlled by the Lebanese Shiite Hezbollah militia, which is essentially controlled by Tehran.

    He insisted that the Saudi-backed war in Yemen, which has been a humanitarian nightmare, was tilting in the direction of the pro-Saudi legitimate government there, which, he said is now in control of 85 percent of the country, but given the fact that pro-Iranian Houthi rebels, who hold the rest, launched a missile at Riyadh airport, anything less than 100 percent is still problematic.

    His general view seemed to be that with the backing of the Trump administration — he praised President Trump as “the right person at the right time” — the Saudis and their Arab allies were slowly building a coalition to stand up to Iran. I am skeptical. The dysfunction and rivalries within the Sunni Arab world generally have prevented forming a unified front up to now, which is why Iran indirectly controls four Arab capitals today — Damascus, Sana, Baghdad and Beirut. That Iranian over-reach is one reason M.B.S. was scathing about Iran’s supreme leader, Ayatollah Ali Khamenei.

    Iran’s “supreme leader is the new Hitler of the Middle East,” said M.B.S. “But we learned from Europe that appeasement doesn’t work. We don’t want the new Hitler in Iran to repeat what happened in Europe in the Middle East.” What matters most, though, is what Saudi Arabia does at home to build its strength and economy.

    But can M.B.S. and his team see this through? Again, I make no predictions. He has his flaws that he will have to control, insiders here tell me. They include relying on a very tight circle of advisers who don’t always challenge him sufficiently, and a tendency to start too many things that don’t get finished. There’s a whole list. But guess what? Perfect is not on the menu here. Someone had to do this job — wrench Saudi Arabia into the 21st century — and M.B.S. stepped up. I, for one, am rooting for him to succeed in his reform efforts.

    And so are a lot of young Saudis. There was something a 30-year-old Saudi woman social entrepreneur said to me that stuck in my ear. “We are privileged to be the generation that has seen the before and the after.” The previous generation of Saudi women, she explained, could never imagine a day when a woman could drive and the coming generation will never be able to imagine a day when a woman couldn’t.

    “But I will always remember not being able to drive,” she told me. And the fact that starting in June that will never again be so “gives me so much hope. It proves to me that anything is possible — that this is a time of opportunity. We have seen things change and we are young enough to make the transition.”

    This reform push is giving the youth here a new pride in their country, almost a new identity, which many of them clearly relish. Being a Saudi student in post-9/11 America, young Saudis confess, is to always feel you are being looked at as a potential terrorist or someone who comes from a country locked in the Stone Age.

    Now they have a young leader who is driving religious and economic reform, who talks the language of high tech, and whose biggest sin may be that he wants to go too fast. Most ministers are now in their 40s — and not 60s. And with the suffocating hand of a puritanical Islam being lifted, it’s giving them a chance to think afresh about their country and their identity as Saudis.

    “We need to restore our culture to what it was before the [Islamic] radical culture took over,” a Saudi woman friend who works with an N.G.O. said to me. ”`We have 13 regions in this country, and they each have a different cuisine. But nobody knows that. Did you know that? But I never saw one Saudi dish go global. It is time for us to embrace who we are and who we were.”

    Alas, who Saudi Arabia is also includes a large cohort of older, more rural, more traditional Saudis, and pulling them into the 21st century will be a challenge. But that’s in part why every senior bureaucrat is working crazy hours now. They know M.B.S. can call them on the phone at any of those hours to find out if something he wanted done is getting done. I told him his work habits reminded me of a line in the play “Hamilton,” when the chorus asks: Why does he always work like “he’s running out of time.”

    “Because,” said M.B.S., “I fear that the day I die I am going to die without accomplishing what I have in my mind. Life is too short and a lot of things can happen, and I am really keen to see it with my own eyes — and that is why I am in a hurry.”

    • Radio Sputnik’s Brian Becker and John Kiriakou discussed how journalist Thomas Friedman managed to write a fawning article about Mohammed bin Salman while almost completely ignoring any of the controversy (starving the country of Yemen, for example) swirling around the Gulf giant of which Salman is crown prince.

      Thomas Friedman, a writer at the New York Times, has published an article entitled “Saudi Arabia’s Arab Spring, at Last.” It starts with the following:

      “I never thought I’d live long enough to write this sentence: The most significant reform process underway anywhere in the Middle East today is in Saudi Arabia. Yes, you read that right. Though I came here at the start of Saudi winter, I found the country going through its own Arab Spring, Saudi style.”

      The story then continues with a one-sided view of what Saudi Arabia’s crown prince supposedly envisions for his country. There’s a lot of talk about how Saudi Arabia is going to reform from within, both in terms of economy and society, but the Loud & Clear hosts remained quite skeptical about the story. They invited Alexander Mercouris, editor-in-chief of the news website The Duran, to discuss the article’s contents — and what it’s missing.

      “It’s surreal… The reality is extremely different, and anybody who knows anything about Saudi Arabia at all can see how different it is,” Mercouris said about Friedman’s article.

      As Becker notes, women have basically no rights in Saudi Arabia; they are not allowed to drive, which is supposed to change soon, but there are no plans in place to allow women to travel without a male “guardian,” or to give them the vote.

      What’s probably less widely known is that there are also wanted posters for immigrant workers, whose passports belong to their employees; according to Becker, immigrant workers who don’t show up at their jobs, where abuse is rampant, are liable to find their names and faces all around Riyadh on such posters. There is, indeed, dire need of social reform.

      And that is what Friedman’s article is trying to say. In Becker’s words, the author says “[Saudi Arabia] is bad, but it’s actually reforming.”

      However, as Mercouris points out, the narrative that “Saudi Arabia is reforming” has been there for ages.
      “If you go back to 1960s… already you were reading and hearing how Saudi Arabia was reforming,” he noted.

      “[Mohammed bin Salman] is making some very cosmetic changes to the very harsh social restrictions that exist in Saudi Arabia, but he’s absolutely not proposing any fundamental changes to the structure of power.”

      The power of Saudi Arabia belongs to the royal family — the House of Saud — which comprises some 15,000 people, who see the wealth of the kingdom as their own, Mercouris says. While currently the House of Saud has to rely on alliances with other families to keep the kingdom stable, Mohammed seeks to centralize power in his own hands.

      The Friedman story conveniently avoids delving into foreign policy issues related to Saudi Arabia, dedicating only a single paragraph to the widely discussed controversies.

      “On foreign policy, [bin Salman] would not discuss the strange goings on with Prime Minister Saad Hariri of Lebanon coming to Saudi Arabia and announcing his resignation,” Friedman writes.

      “He insisted that the Saudi-backed war in Yemen, which has been a humanitarian nightmare, was tilting in the direction of the pro-Saudi legitimate government there,” Friedman continues, pointing out that the Saudis are looking for a 100 percent eradication of the Houthi rebels because of a recent missile attack on the Riyadh airport. The article, however, does not mention the indiscriminate Saudi bombings that have led to numerous civilian casualties nor does it put any blame for the Yemeni atrocities, including a huge and growing famine, on the Saudis’ hands.

      The article also quotes bin Salman saying that Iran’s supreme leader “is the new Hitler of the Middle East.”

      We don’t want the new Hitler in Iran to repeat what happened in Europe in the Middle East,” bin Salman told Friedman.

      Bin Salman is also quoted as looking forward to bringing Saudi Arabia’s version of Islam “back to the center.” But, as Kiriakou notes, that is disingenuous, as Saudi Islam has never been “center.” According to Mercouris, the Saudis have been aligned with Wahhabism, the most strict and belligerent branch of Sunni Islam, since the 18th century.

      “It is probably true that the Saudis have somewhat tightened-up religious controls in response to the Mecca mosque attack of 1979, but in no conceivable way was Saudi Arabia before 1979 or at any time at all a liberal state,” Mercouris points out passionately.

      Of course, one-sided arguments are a feature of Friedman’s work: as the hosts note, Friedman is invariably an apologist for the current foreign policy of the United States. Back during the Yugoslavia war, Becker recalls, Friedman wrote an article saying that the “hidden hand of the market” would never be able to exist without a proverbial fist: the US military. He justified the bombings of Yugoslavia by saying that McDonald’s and other US transnational companies, including those in Silicon Valley, will not be able to flourish without them.

      Back then, of course, American rhetoric on its military interventions focused on “exporting democracy,” a far more noble-sounding cause than the 21st century’s familiar and more bellicose refrain of “fighting terrorism.”

      Mercouris concurred, “he is the establishment voice in the media, justifying American foreign policy.”

      “The US is a great lover of strong men running various countries, and bin Salman seems to be the latest one, and therefore you get Friedman sent off to Saudi Arabia to speak to him and write a wonderful article saying what a wonderful man he is.”

      “When it all goes wrong, he will move on to support the next strong man who comes and takes his place,” Mercouris notes.

  17. সৌদি আরব গেলেন প্রধানমন্ত্রী
    https://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1483682.bdnews

    সৌদি নেতৃত্বাধীন মুসলিম দেশগুলোর জোটের যৌথ সামরিক মহড়ার সমাপনী অনুষ্ঠানে যোগ দিতে সৌদি আরবে গেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

    সৌদি আরব থেকে তিনি যাবেন যুক্তরাজ্যে, কমনওয়েলথ সরকার প্রধানদের শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে।

    আট দিনের এই সফর শেষে আগামী ২৩ এপ্রিল তার দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

    প্রধানমন্ত্রী রোববার বিকাল পৌনে ৫টায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে হজরত শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে সৌদি আরবের দাম্মামের উদ্দেশে রওনা হন। স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টা ৩৫ মিনিটে দাম্মামের কিং ফাহাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন তিনি।

    সোমবার ২৩ দেশের যৌথ সামরিক মহড়া ‘গাল্ফ শিল্ড-ওয়ান’ এর কুচকাওয়াজ ও সমাপনী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন শেখ হাসিনা।

    সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ আল সৌদের আমন্ত্রণে শেখ হাসিনা এই অনুষ্ঠানে যোগ দিচ্ছেন।

    সৌদি আরবের পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশে গত ১৮ মার্চ শুরু হওয়া গাল্ফ শিল্ড-ওয়ানে বাংলাদেশও অংশ নিচ্ছে।

    অংশগ্রহণকারী দেশের সংখ্যা এবং ব্যবহৃত সমরাস্ত্রের বিবেচনায় এ মহড়াকে উপসাগরীয় অঞ্চলে হওয়া অন্যতম বৃহৎ সামরিক মহড়া হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

    বাংলাদেশ এর আগে সৌদি আরব নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটে অংশ নিয়ে এবার সামরিক মহড়ায় যোগ দিয়েছে।

    পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “আবহমান ধর্মীয়, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সম্পর্কের পাশাপাশি সামরিক ক্ষেত্রেও সৌদি আরবের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক সম্প্রসারিত হচ্ছে।”

    গাল্ফ শিল্ড-ওয়ানের সমাপনী অনুষ্ঠানে যোগদান শেষে কমনওয়েলথ সরকার প্রধানদের বৈঠকে (সিএইচওজিএম) যোগ দিতে সোমবার বিকেলেই দাম্মাম থেকে লন্ডনের পথে রওনা হওয়ার কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর।

    ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে’র আমন্ত্রণে ১৭ থেকে ২১ এপ্রিল ২৫তম কমনওয়েলথ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন শেখ হাসিনা।

    পররাষ্ট্রমন্ত্রী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব, এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এই সফরে তার সঙ্গে থাকছেন।

    কমনওয়েলথ সম্মেলনের এবারের প্রতিপাদ্য ঠিক হয়েছে ‘টুয়ার্ডস এ কমন ফিউচার’।

    পররাষ্ট্রমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে জানান, প্রাক কমনওয়েলথ সম্মেলন সভায় বাংলাদেশ ও রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সেখানে কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলো প্রথমবারের মতো রোহিঙ্গা প্রশ্নে বাংলাদেশের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেছে।

    “কমনওয়েলথ শীর্ষ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে (রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন) বর্তমান চিত্রটি অন্য সদস্যগুলোর রাষ্ট্রপ্রধানদের সামনে তুলে ধরবেন বলে আশা করা যাচ্ছে।”

    শেখ হাসিনা ১৭ এপ্রিল সকালে ওয়েস্ট মিনস্টারে কমনওয়েলথ নারী ফোরামের ‘এডুকেট টু এম্পাওয়ার: মেইকিং ইকুইটেবল অ্যান্ড কোয়ালিটি প্রাইমারি এডুকেশন অ্যান্ড সেকেন্ডারি এডুকেশন এ রিয়েলিটি ফর গার্লস অ্যাক্রস দ্য কমনওয়েলথ’ শীর্ষক অধিবেশনে বক্তব্য দেবেন।

    বিকালে যুক্তরাজ্যের গবেষণা সংস্থা ওডিআই আয়োজিত ‘বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রগতি: নীতি, অগ্রগতি ও সম্ভাবনা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা থাকবেন প্রধান বক্তা।

    এছাড়া ১৮ এপ্রিল এশীয় নেতাদের অংশগ্রহণে ‘ক্যান এশিয়া কিপ গ্রোইং?’ শীর্ষ একটি গোলটেবিল আলোচনাতেও তিনি যোগ দেবেন।

    সেদিন বিকালে তিনি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে আয়োজিত অভ্যর্থনা অনুষ্ঠান ও নৈশভোজে যোগ দেবেন। ১৯ এপ্রিল কমনওয়েলথ সরকার প্রধানদের বৈঠকের উদ্বোধনী ও অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন।

    এছাড়া কমনওয়েলথ মহাসচিবের দেওয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠান এবং রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের দেওয়া নৈশভোজেও প্রধানমন্ত্রীর অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে।

    ২০ এপ্রিল সম্মেলনের সমাপনী কার্যনির্বাহী অধিবেশনে অংশ নেওয়ার পরদিন তিনি রয়েল কমনওয়েলথ সোসাইটি (আরসিএস) আয়োজিত সংবর্ধনা এবং রানির জন্মদিনের অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। এছাড়া প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেওয়া এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানেও তিনি অংশ নেবেন।

    শীর্ষ সম্মেলনের পাশাপাশি বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধানদের সঙ্গে বৈঠক করার কথা রয়েছে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর।

  18. PM joins Saudi-led military drill’s ending ceremony
    http://today.thefinancialexpress.com.bd/first-page/pm-joins-saudi-led-military-drills-ending-ceremony-1523900802

    Prime Minister Sheikh Hasina joined on Monday the concluding ceremony of a Saudi-led joint grand military exercise, ‘Gulf Shield-1’, at the Eastern Province of Al-Jubail in Saudi Arabia.

    Sheikh Hasina was greeted by the Saudi King on her arrival at the venue as she oversaw the conclusion of the military drill in the presence of a number of leaders of friendly countries took part in the month-long exercise, said prime minister’s press secretary Ihsanul Karim.

    The prime minister joined the function at the invitation of the Saudi King and the custodian of the two holy mosques Salman bin Abdulaziz Al-Saud as the parades of armed forces of 24 participating countries, including Bangladesh, featured the ceremony.

    Saudi Arabia organised the military exercise for boosting defence cooperation and coordination with friendly countries to protect the Gulf regional security and peace through enhanced military readiness, also to ensure global peace.

    The participating countries were the USA, the UK, the UAE, Saudi Arabia, Bangladesh, Bahrain, Qatar, Kuwait, Egypt, Jordan, Sudan, Mauritania, Malaysia, Pakistan, Chad, Djibouti, Niger, Comoros, Afghanistan, Oman, Guyana, Turkey and Burkina Faso.

    An 18-member delegation of Bangladesh Armed Forces participated in the exercise that began on March 18.

    Spokesman for the military exercise Brigadier General Abdullah Al-Subaie on Saturday said the Saudi defence ministry organised the drill with participants from land, air and naval forces from 24 countries.

    He said the drills featured two types of military operations with one being conventional military operations represented by coastal defence attacks against the enemy.

    Another one, he said, was the irregular war operations carried out by besieging and penetrating villages and industrial installations so as to cleanse them of hostile elements.

    The spokesman said one of the most important aims of the exercise was to activate the concept of joint military combat operations plans to counter hostile acts that could threaten the security and stability of the region.

    Analysts said the military exercise is considered one of the largest ones in the region, both in terms of the number of participating countries and the quality of its weapons.

    Some of them called the Gulf Shield-1 drill a turning point in terms of the techniques used in accordance with the most modern military systems in the world.

    Sheikh Hasina was scheduled to leave Dammam for London on Monday afternoon (local time) to attend the Commonwealth Heads of Government Meeting (CHOGM) Summit there.

    The Prime Minister will return home at 9:15am on April 23.

  19. Govt backtracks on taking Saudi loan
    Model mosques
    http://today.thefinancialexpress.com.bd/last-page/govt-backtracks-on-taking-saudi-loan-1530035306

    Bangladesh has scrapped its decision on taking US$ 1.0 billion financial support from Saudi Arabia for building over 550 model mosques, officials said.

    On Tuesday, the government’s economic council revised the 560-model mosque project.

    The Executive Committee of the National Economic Council (ECNEC) decided to implement the project on government resources.

    Presided over by the Prime Minister Sheikh Hasina, the ECNEC endorsed the project in Dhaka along with 13 other schemes at a cost of Tk 161.47 billion.

    “Since the Saudi government hasn’t confirmed its pledged fund yet, we have decided to set up the mosques on our own,” said Planning Minister AHM Mustafa Kamal after the ECNEC meeting.

    The Islamic Foundation of the Ministry of Religious Affairs took up the project at Tk 90.62 billion in April last year.

    It was hopeful about getting the Saudi grant.

    A government official said the authorities sought ECNEC approval for the project last year based on the assurance of Saudi King Salman bin Abdulaziz Al Saud.

    The king pledged the fund during Prime Minister Sheikh Hasina’s visit to the kingdom in June 2016.

    The fund confirmation was affected when Riyadh arrested 11 princes, including a prominent billionaire, and dozens of current and former ministers, in a sweeping crackdown.

    The crown prince consolidated power in November last year.

    Mustafa Kamal said since there are some changes and developments in the kingdom, the Prime Minister has decided not to request the donor for disbursing the grant.

    “We’ve been able to finance the multi-billion dollar Padma Bridge project from our own resources. So we will be able to set up the mosques from our own funds,” he said.

    Although the Economic Relations Division (ERD) requested Saudi Arabia to confirm its grant for Bangladesh repeatedly, the donor had not responded positively, said a division official.

    He told the FE that since the important portfolios inside the Saudi government underwent changes, the pledged fund could be delayed further.

    According to the revised project proposal, the Islamic Foundation Bangladesh will construct the mosques-cum-Islamic cultural centres by December 2020.

    Once constructed, some 2,200 people will be able to offer their prayers at a time in each of the mosque.

    According to the ministry, there are currently some 0.26 million mosques across the country and those are not in good shape.

    Under the project, model mosques in 64 districts and 16 coastal areas will be four-storey buildings, while the rest buildings will be three-storey.

  20. masud karim permalink

    Lebanon says US pullout from Iran deal to hurt MidEast
    Khamenei criticises S Arabia over management of hajj pilgrimage

    http://today.thefinancialexpress.com.bd/world/lebanon-says-us-pullout-from-iran-deal-to-hurt-mideast-1531756050

    Lebanese President Michel Aoun said on Monday the US withdrawal from world powers’ 2015 nuclear agreement with Iran would have negative consequences for Middle East stability.

    Aoun, a Maronite Christian politician, is a political ally of Lebanon’s Iran-backed Shi’ite Muslim group Hezbollah. The United States, which classifies Hezbollah as a terrorist organisation, arms and trains Lebanon’s army.

    “The unilateral US withdrawal from the nuclear agreement (in May) will have negative repercussions for security and stability in the region,” Aoun wrote on Twitter, his first public comment on the accord.

    “Lebanon considered (the deal) a cornerstone for stability in the region, helping make it an area free of weapons of mass destruction,” Aoun’s office said in a statement summarising a meeting between him and Iranian foreign ministry official Hossein Jaberi Ansari.

    Aoun said he welcomed the commitment of other countries to continue with the deal.

    In Lebanon’s May parliamentary elections Hezbollah together with groups and individuals that are politically aligned to it won more than half of parliament’s seats, boosting the group politically.

    Under the 2015 accord, Iran won a lifting of international sanctions in return for verifiable curbs on its disputed uranium enrichment program.

    US President Donald Trump withdrew Washington from the deal in May, calling it deeply flawed, and has reimposed stringent US sanctions, heaping pressure on other signatories including major European allies to follow suit.

    European powers have reaffirmed their commitment to the accord and say they will do more to encourage their businesses to stay engaged with Iran, though a number of firms have already said they plan to pull out to avoid US penalties.

    Meanwhile, Iran’s top authority Supreme Leader Ayatollah Ali Khamenei has criticised Saudi Arabia over its management of the hajj pilgrimage and called for a fresh investigation into a 2015 crush that killed hundreds, Iranian state TV reported on Monday.

    The criticism comes ahead of this year’s haj and amid tension between Tehran and Riyadh over proxy wars in Iraq, Syria, Lebanon and Yemen in which the two support opposing sides.

    Riyadh says nearly 800 pilgrims died when two big groups of pilgrims collided at a crossroads in Mina, a few km (miles) east of Mecca, on their way to performing the “Stoning of the Devil” ritual at Jamarat.

    Counts by countries of repatriated bodies showed over 2,000 people may have died, including more than 400 Iranians.

    “A fact-finding committee, with Iran’s presence, should be formed to investigate these cruelties.

    Relevant Iranian authorities should mobilise all legal resources to follow up the tragedy,” Khamenei said in a speech to Iran’s haj organisers.

    “The holy lands of Mecca and Mina belong to all Muslims … it does not belong to rulers of Saudi Arabia,” said Khamenei.

    The kingdom, Iran’s key regional rival, presents itself as the guardian of Islamic orthodoxy and custodian of its holiest places in Mecca and Medina.

    Iran boycotted the haj in 2016 amid tensions with Saudi Arabia over the incident.

    About 90,000 Iranians attended the pilgrimage last year.

    Iran also boycotted the haj for three years after 402 pilgrims, including 275 Iranians, died in clashes with Saudi security forces at an anti-U.S. and anti-Israel rally in Mecca in 1987. The so-called “deliverance from infidels” rallies are banned by the Saudi authorities.

    “Haj is the best opportunity to display that religion and politics cannot be separated … the real haj is a combination of unity and seeking deliverance from infidels,” he said.

    Approximately 85,000 Iranians are expected to attend the haj pilgrimage this year in Islam’s holiest city Mecca.

    Riyadh severed diplomatic relations in 2016 after Iranian protesters stormed the Saudi embassy in Tehran following the execution of a Shi’ite cleric in Saudi Arabia in January 2016.

    Saudi Arabia welcomed President Donald Trump’s decision in May to withdraw the United States from the international nuclear agreement with Iran and to reimpose economic sanctions on its arch-foe Tehran.

  21. masud karim permalink

    এবারের ভোট: রিকনসিলিয়েশন বনাম গণহত্যা

    কোনও দেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম বা বিপ্লবের পরে জাতীয় ক্ষেত্রে সকলকে একত্রিত করে মূলধারায় আনা (রিকনসিলিয়েশন) প্রয়োজন হয়। পৃথিবীর ইতিহাস বলে, সব ধরনের স্বাধীনতা সংগ্রামে বা বিপ্লবে সচেতনভাবে কিছু স্বাধীনতা বা বিপ্লববিরোধী থাকে। আবার পরিস্থিতির শিকার হয়েও একদল বিরোধিতা করে। স্বাধীনতা সংগ্রামের পরে প্রয়োজন হয় ওই বিরোধিতাকারী বা কোলাবরেটর নেতাদের শাস্তি দিয়ে বাদবাকিদের স্বাধীনতা বা বিপ্লবের ধারায় নিয়ে আসা। যাতে ওই ভূ-খণ্ডে স্বাধীনতা বা বিপ্লববিরোধী কেউ না থাকে এবং পরবর্তী প্রজন্মে কোনওমতেই স্বাধীনতা বা বিপ্লববিরোধী কোনও চিন্তা-চেতনা প্রবাহিত না হয়। পাশাপাশি স্বাধীনতাবিরোধী চিন্তা-চেতনা লালিত হয় এমন কোনও সামাজিক বা রাজনৈতিক সংগঠন যাতে কোনওক্রমে ওই ভূ-খণ্ডে গড়ে না ওঠে, তা নিশ্চিত করতে হয়।

    বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় জামায়াতে ইসলামী, নেজামী ইসলামী ও মুসলীম লীগ প্রভৃতি দলের নেতৃত্বে স্বাধীনতাবিরোধী আলবদর ও রাজাকার বাহিনী গড়ে উঠেছিল। একদল মানুষ ওই সব বাহিনীতে স্বেচ্ছায় ও উদ্দেশ্যমূলকভাবে যোগ দিয়েছিল। আরেক দল পরিস্থিতির শিকার হয়ে যোগ দিয়েছিল।

    তাদের নেতৃত্বে বাংলাদেশে লাখ লাখ মানুষকে হত্যা করা হয়েছিল, লাখ লাখ মা-বোনের আব্রু নষ্ট করা হয়েছিল। লুঠ-তরাজ, অগ্নিসংযোগের মতো ঘটনাও ঘটানো হয়েছিল লাখ লাখ ক্ষেত্রে। শিশু হত্যা, ভ্রুণ হত্যা সবই ঘটিয়েছিল তারা। এরাই মূলত পাকিস্তানি বাহিনীকে সব ধরনের অপকর্ম করতে সহায়তা জুগিয়েছিল। স্বাধীনতার পরে এদের অনেককে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল, অনেকের নাগরিকত্ব বাতিল করা হয়েছিল। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ তখন সমস্যায় জর্জরিত।

    তার পরেও বঙ্গবন্ধু রিকনসিলিয়েশনের বিষয়টি হাতে নেন। তিনি তেত্রিশ হাজার চিহ্নিত স্বাধীনতাবিরোধী অপরাধীর বিচার প্রক্রিয়া শুরু করে, তাদের জেলে আটক রেখে বাদবাকিদের সাধারণ ক্ষমা করেন। এই সাধারণ ক্ষমা ও পাশাপাশি প্রকৃত অপরাধীদের বিচারের প্রক্রিয়া চালু রেখে বঙ্গবন্ধু রিকন্সিলিয়েশন বা সকলকে মূলধারায় অন্তর্ভূক্তির কাজ শুরু করেন। অন্যদিকে সাংবিধানিকভাবে দেশে এমন পরিবেশ তৈরি করেন, যাতে এই সাধারণ অপরাধীরা স্বাধীনতার ধারায় ধীরে ধীরে চলে আসতে বাধ্য হয় এবং ভবিষ্যত প্রজন্মের স্বাধীনতাবিরোধী হওয়ার কোনও সুযোগ তৈরি না হয়। এ লক্ষ্যে সংবিধানে ধর্মভিত্তিক কোনও রাজনৈতিক সংগঠন গড়ে তোলা নিষিদ্ধ করেন। পাশাপাশি কোলাবরেটরদের ভোটাধিকার বাতিল ও নির্বাচনে প্রতিযোগিতায় অযোগ্য ঘোষণা করেন সাংবিধানিকভাবে। এর সঙ্গে তখন রাষ্ট্রীয়ভাবে সামাজিক ও রাজনৈতিক পরিবেশ এমন পথে লালন করা হচ্ছিল যে দেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাইরে কারও বেড়ে ওঠার কোন সুযোগ ছিল না। এখানে একটি বিষয় উল্লেখ করা দরকার, পৃথিবীর সব দেশেই রিকন্সিলিয়েশন হয় স্বাধীনতা বা বিপ্লবের চেতনায়- যাতে ভবিষ্যতে এক চেতনায় একটি জাতি বা মানবগোষ্ঠী গড়ে ওঠে এবং ওই মানবগোষ্ঠীর হেজিমনি ও মানসিক চেতনা স্বাধীনতা বা বিপ্লবের ধারায় বেড়ে ওঠে।

    এখানে সব থেকে গুরুত্ব দিতে হয় মানসিক কর্তৃত্ব বা হেজিমনির ওপর। যাতে রিকনসিলিয়েশন সম্পূর্ণরূপে স্বাধীনতার মৌল চেতনায় হয়, তা না হলে ওই স্বাধীনতা ব্যর্থ হয়ে যেতে পারে। যে লক্ষ্যে স্বাধীনতা অর্জন করা হয়েছিল, তা কখনও পূরণ হয় না। বঙ্গবন্ধু সেই ধারায় এগুচ্ছিলেন। কিন্তু সেই অভিযাত্রা থামিয়ে দেয়া হয় বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ভেতর দিয়ে।

    বঙ্গবন্ধুকে হত্যার সঙ্গে সঙ্গে রাষ্ট্রীয় কর্তৃত্ব থেকে স্বাধীনতার মৌল চেতনা ফেলে দেয়া হয়। সেখানে স্বাধীনতাবিরোধী অর্থাৎ কোলাবরেটরদের চেতনা ও তাদের মূল উৎস পাকিস্তানের সেই ধর্ম ব্যবসায়ী রাষ্ট্রের চিন্তা-চেতনার যাত্রা শুরু করা হয়। আর একের পর এক সামরিক ফরমান বলে সংবিধান থেকে, রাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গ থেকে স্বাধীনতার চেতনার কর্তৃত্ব ছেঁটে ফেলা শুরু হয়। ধীরে ধীরে রাষ্ট্র কর্তৃত্বে স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রতিষ্ঠা করা হয়।

    কাজটি যদিও শুরু হয়েছিল খোন্দকার মোশতাকের হাত দিয়ে, তবে তা দৃঢ় রূপ পায় স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সামরিক শাসক জিয়াউর রহমানের হাতে। জিয়াউর রহমান রাষ্ট্র, রাজনীতি ও সমাজে সর্বত্রই স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকার ও আলবদরদের প্রতিষ্ঠা করেন। স্বাধীনতার চিন্তা-চেতনার কর্তৃত্বের অবসান ঘটিয়ে রাজাকারদের চিন্তা-চেতনার রাজত্ব কায়েম করতে নেমে পড়েন। যার ফলে বাংলাদেশ একটি মিনি পাকিস্তান হিসেবে রূপ নেয় রাষ্ট্রিকভাবে।

    এক্ষেত্রে জিয়ার অনুসারীদের বক্তব্য হলো, জিয়া একটি রিকনসিলিয়েশন করেছিলেন। তিনি স্বাধীনতাবিরোধী ও স্বাধীনতার পক্ষ শক্তির ভেতর সম্মিলন ঘটিয়ে জাতিকে এক করেছিলেন। শুধু এখানেই শেষ নয়, জিয়ার অনুসারীরা এক্ষেত্রে বাংলাদেশে যারা সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও কর্তৃত্ব বাঁচিয়ে রাখল, তাদের দোষারোপ করেন। তারা বলেন, এরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বলে, স্বাধীনতার বিরোধী শক্তির কথা বলে, দেশের মানুষকে বিভক্ত করে রেখেছে। এখানে বাস্তবতা হলো জিয়া রিকনসিলিয়েশন করেছিলেন স্বাধীনতাবিরোধীর চেতনার কর্তৃত্বকে প্রতিষ্ঠা করে। তিনি স্বাধীনতাবিরোধীদের চেতনার অধীনে, তাদের হেজিমনির অধীনে স্বাধীনতার পক্ষের বিশাল জনগোষ্ঠীকে নিয়ে আসার চেষ্টা করেন। সেই লক্ষ্যেই তিনি রাষ্ট্রীয় কর্তৃত্ব, সামাজিক প্রভাব ও রাজনৈতিক অঙ্গন গড়ে তোলার পথে নামেন।

    সামরিক শাসক থেকে রাজনৈতিক নেতা হওয়ার জন্য জিয়ার এভাবে রাজাকার-আলবদরদের প্রতিষ্ঠা করার দরকার ছিল না। তিনি মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বাধীনতার চেতনায় রাষ্ট্র পরিচালনা, রাজনৈতিক দল গঠন ও সামাজিক পরিবেশ তৈরি করতে পারতেন। প্রকৃত উদ্দেশ্য রিকনসিলিয়েশন থাকলে তিনি নির্দিষ্ট অপরাধে অপরাধী তেত্রিশ হাজার রাজাকার-আলবদরকে মু্ক্তি না দিয়ে তাদের বিচার চালু রাখতে পারতেন। পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধের হেজিমনি যাতে ধীরে ধীরে সকল স্বাধীনতাবিরোধী মেনে নেয়, সেই পথে দেশকে এগিয়ে নিতে পারতেন। বন্ধ করতে পারতেন পরবর্তী প্রজন্মে যাতে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী চেতনা প্রবাহিত না হয়। তার বদলে সমাজে, রাষ্ট্রে ও রাজনীতিতে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীদের আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করে দেশের মানুষকে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তি ও পক্ষ শক্তিতে ভাগ করার সুযোগ সৃষ্টি করেন জিয়া। স্বাধীনতার ভেতর দিয়ে মুক্তিযুদ্ধবিরোধী শক্তির যে বিলোপ ঘটেছিল, জিয়া তাদের প্রতিষ্ঠিতই শুধু করেন না, মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তি হিসেবে সমাজে দাঁড়ানোর পথ করে দেন।

    রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বাধীনতা বিরোধীদের এই আধিপত্য সৃষ্টি করে দেয়ার পরে দেশের স্বাধীনতার চেতনার মানুষগুলো অন্তত সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে যতটা পারে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বজায় রাখতে জীবন বাজি রেখে নেমে পড়তে বাধ্য হয় তখন। কারণ মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বা স্বাধীনতার চেতনা তারা জীবন বাজি রেখেই অর্জন করেছিল।

    জিয়া মুক্তিযুদ্ধের বা স্বাধীনতার চেতনার পক্ষে না গিয়ে কেন এ পথে গেলেন? এর উত্তর, স্বাধীনতার চেতনার পক্ষে গেলে জিয়াকে রাজনৈতিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হতে দীর্ঘ সময় ব্যয় করতে হতো এবং হয়ত সেটা সম্ভবও ছিল না। কারণ স্বাধীনতার চেতনার পথের রাজনৈতিক দল হিসেবে তখন আওয়ামী লীগ, মোজাফফর ন্যাপ, সিপিবি ও জাসদ প্রতিষ্ঠিত অবস্থায় ছিল। এ কারণে রাজনৈতিকভাবে সহজ অবস্থান তৈরি করার জন্য জিয়া রাষ্ট্র ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে দেশটাকে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি ও বিপক্ষের শক্তিতে ভাগ করে ফেললেন। তিনি নিজে মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তির নেতা হলেন। আর নিজেদের এই সহজ অবস্থান ধরে রাখার জন্য এখনও তার দল দেশে এই বিভক্তি রেখেছে। রাজকার পরিবারের সন্তানদের একটি বড় অংশকে স্বাধীনতার চেতনায় দেশকে ভাবতে শিখতে দিল না তারা। মূলত তাদেরকে এক ধরনের রাজনৈতিক প্রতিবন্ধী করে রেখেছে। কারণ বিএনপি (জিয়ার দল) জানে গোটা দেশের মানুষ স্বাধীনতার মৌল চেতনায় প্রবাহিত হলে, স্বাধীনতার হেজিমনি শতভাগ প্রতিষ্ঠিত হলে তাদের আর কোনও অস্তিত্ব থাকে না। এভাবে জিয়া, সাত্তার ও এরশাদ টানা একুশ বছর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাকে ব্যবহার করে দেশের মানুষকে বিভক্ত করে রেখেছে। এর পরে খালেদা জিয়া দুইবারে দশ বছর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থেকে একইভাবে দেশকে বিভক্ত করে নিজের অস্তিত্ব বজায় রেখেছেন।

    বেগম জিয়ার জন্য সুযোগ ছিল ১৯৯১ থেকে স্বাধীনতার পক্ষের আরেকটি রাজনৈতিক দল হয়ে ওঠার। তিনি সে সুযোগ না নিয়ে প্রত্যক্ষ জামায়াতের সমর্থন নেন। তবে এটাও সত্য, বেগম জিয়ার এর বাইরে যাওয়ার কোনও পথ নেই। কারণ, তার দলের কর্তৃত্ব ও কাঠামো স্বাধীনতাবিরোধীদের হাতে। তাছাড়া বেগম জিয়া ১৯৭১-এ পাকিস্তানের পক্ষে ছিলেন। জিয়া তাকে মুক্তিযুদ্ধে নিয়ে যাওয়ার জন্য লোক পাঠালেও তিনি যাননি। সব মিলে তিনি স্বাধীনতারবিরোধী পক্ষকে লালন করবেন এটাই স্বাভাবিক।

    যা হোক, ২০০৮-এ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় আসে, সে সময়ের শেখ হাসিনা অনেক পরিণত একজন নেতা। এর আগে তিনি ১৯৮১ থেকে ১৯৯১ পর্যন্ত টানা দশ বছর রাজপথের মূল নেতা ছিলেন। তাছাড়া তিন বারের বিরোধী দলের নেতা ও একবারের প্রধানমন্ত্রী। এই বিশাল অভিজ্ঞতার ভাণ্ডার নিয়ে শেখ হাসিনা ২০০৮-এ ক্ষমতায় আসেন। শেখ হাসিনার ২০০৮-এর ক্ষমতায় আসার আগের সব থেকে বড় বিষয় হলো ক্ষমতায় আসার পূর্ব প্রস্তুতি।

    শেখ হাসিনার গত দশ বছরের রাষ্ট্র পরিচালনা যদি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করা হয় এবং ২০০৮-এর নির্বাচনী ইশতেহার পর্যালোচনা করলে বোঝা যায় কতটা প্রস্তুতি নিয়ে তিনি ২০০৮-এ রাষ্ট্রক্ষমতায় এসেছেন। এই পরিণত রাজনৈতিক নেতৃত্ব শেখ হাসিনা তাই দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে দেশের জনগোষ্ঠীকে একটি বৃত্তের মধ্যে নিয়ে আসার রিকনসিলিয়েশন কাজে মনোযোগী হন। পৃথিবীর সব দেশে যেভাবে স্বাধীনতার পরে রিকনসিলিয়েশন হয়, বাংলাদেশের পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে তাকে ওই কাজটি সাড়ে তিন দশক পরে এসে শুরু করতে হচ্ছে। এতটা দীর্ঘ সময় পরে এ কাজ অনেক জটিল হয়ে গেছে। তার পরেও দেশের স্বার্থে, স্বাধীনতাকে অর্থবহ করার স্বার্থে সর্বোপরি মানুষের স্বার্থে ওই জটিল ও কঠিন কাজে হাত দেন শেখ হাসিনা। পৃথিবীর সব দেশ স্বাধীনতা যুদ্ধোত্তরকালে যা করে, শেখ হাসিনাও সেই কাজ শুরু করেন। তিনি স্বাধীনতার বিরোধিতাকারী, দেশের মানুষ হত্যাকারী যুদ্ধাপরাধী নেতাদের বিচার কাজ আগে শুরু করেন। অন্যান্য দেশে এই বিচার কাজ অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত আদালতের মাধ্যমে শেষ করা হয়। শেখ হাসিনা বাংলাদেশের পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে তা না করে তাদের উচ্চ আদালতে আপিল করার যাবতীয় সুযোগ দিয়ে প্রায় ৮ বছর সময় নিয়ে যুদ্ধাপরাধীর মূল নেতাদের বিচার ও শাস্তি শেষ করেছেন।

    এ কাজে শেখ হাসিনা দেশের নতুন প্রজন্মের বড় একাংশের সমর্থন পেয়েছেন ঠিকই, তবে সকলের পাননি। এই না পাওয়ার কারণ, জিয়াউর রহমান দেশকে যে স্বাধীনতার পক্ষ ও বিপক্ষ শক্তিতে ভাগ করে গেছেন সে জন্য। জিয়ার দল স্বাধীনতার বিপক্ষ চেতনা তরুণ শ্রেণির একাংশের মধ্যে লালিত হবার সুযোগ তৈরি করছে সারাক্ষণ। তার পরেও যুদ্ধাপরাধী নেতাদের বিচার শেষ করে শেখ হাসিনা দেশের মানুষের মধ্যে রিকনসিলিয়েশন প্রতিষ্ঠার জন্য নতুন কাজে হাত দেন।

    তিনি লক্ষ্য করেন, জিয়ার দল বিএনপি ও যুদ্ধাপরাধী দলের উস্কানিতে দেশের অন্যতম প্রাচীন ও ধর্মীয় শিক্ষা পদ্ধতির শিক্ষালয় মাদ্রাসার কোমলমতি তরুণ ছেলেদের যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে কাজে লাগানোর চেষ্টা হচ্ছে। শেখ হাসিনা এটা লক্ষ্য করে তাদের স্বাধীনতার মূলধারা ও জাতীয় জীবনের মূল ধারায় আনার কাজে হাত দেন। ধর্মীয় শিক্ষালয়ের একটি অংশ অর্থাৎ কওমি মাদ্রাসার ছাত্রদের তিনি এই ভুল পথ থেকে ফিরিয়ে আনার জন্য গত কয়েক বছর কাজ করেছেন। এ কাজে তিনি এখন অনেক সফল। শেখ হাসিনা এখানে কোনও মৌখিক রাজনৈতিক স্লোগান নিয়ে কাজ করেননি। তিনি বাস্তবতার পথ নিয়েছেন। তিনি ওই শিক্ষালয়ে শিক্ষা নেয়া ছাত্রদের মূল ধারায় আনার পথে তাদের শিক্ষার রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দিয়েছেন। অর্থাৎ মূল ধারায় আনার শুরুটা অন্তত করেছেন।

    শেখ হাসিনার এই কাজের ভেতর দিয়ে এ বিষয়টি স্পষ্ট হয়েছে, তিনি এবারের নির্বাচনের ভেতর দিয়ে ক্ষমতায় এলে আগামী পাঁচ বছরে দেশে রিকনসিলিয়েশনের কাজটি সম্পন্ন করবেন। অর্থাৎ দেশে আর স্বাধীনতার পক্ষ ও বিপক্ষ শক্তি বলে কোনও ভাগ থাকবে না। সকলেই স্বাধীনতার পক্ষ শক্তি হবে। অর্থাৎ এক জাতি, এক প্রাণ। দেশের সব মানুষকে তিনি একটি মিলনের সুতায় বাঁধবেন। তাই তিনি বার বার বলছেন, আমরা দেশটাকে এমন জায়গায় নিয়ে যেতে চাই যাতে দেশ আর কোনওদিন পেছনের দিকে না যায়। অর্থাৎ দেশের সবাই যখন স্বাধীনতার পক্ষ শক্তি হবে, তখন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় যেই আসুক না কেন, রাষ্ট্রের অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক কোনও নীতির পরিবর্তন হবে না। ব্রিটেন বা আমেরিকায় যেমন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা পরিবর্তনের পরে মৌলিক কোন নীতির পরিবর্তন হয় না, বাংলাদেশও তেমনি হবে। আর বাস্তবে শেখ হাসিনা দেশকে ও নিজেকে সেখানে নিয়ে এসেছেন। এবারের নির্বাচনে তার বিজয়ের অর্থই হলো দেশ এই অবস্থানে যাবে। আর কেউ স্বাধীনতাবিরোধী চিন্তা ধারণ করে দেশকে পেছনে নিয়ে যেতে পারবে না।

    এ কারণে দেশের জন্য এখন একমাত্র বিপদ যদি ড. কামালের নেতৃত্বাধীন জামায়াত-বিএনপি ঐক্যফ্রন্ট জয়লাভ করে। কারণ এই জোটের মূল ভিত্তি হলো স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি। তাছাড়া যুদ্ধাপরাধী জামায়াত তাদের মূল চালিকাশক্তি। গত দশ বছরে এই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়েছে। সাজা হয়েছে। এমনকি সাজা হয়েছে যারা যুদ্ধাপরাধীদের লালন করে তাদেরও। তাই এদের প্রতিপক্ষ স্বাভাবিকই মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সকল মানুষ। তারা ক্ষমতায় এলেই তাদের প্রতিশোধের আগুনের শিখা পেট্রোলবোমার থেকে আরও হাজার গুণ শক্তি নিয়ে দাউ দাউ করে জ্বলে উঠবে।

    তাদের বিজয় মানেই প্রথম দিনেই বাংলাদেশে কয়েক লাখ প্রগতিশীল মানুষ হত্যার ভেতর দিয়ে তারা রক্তের হোলি খেলা শুরু করবে। তাদের ফ্রন্টে যে সব কম-বেশি সুস্থ চিন্তার মানুষ আছে, তাদেরও কোনও ক্ষমতা থাকবে না। তাদের বিজয়ের পরে ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টা ধরে সারাদেশে জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্র শিবির যে নরহত্যা করবে তা ঠেকানো। পাশাপাশি তারা যে ঠেকাতে চায় না, তাও কিন্তু শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে তাদের দলের মূল নেতা ড. কামালের বক্তব্য থেকে বোঝা গেছে।

    জামায়াত নিয়ে প্রশ্ন করা সাংবাদিককে তিনি প্রকাশ্যে বলেছেন, ‘চিনে রাখলাম’ এবং তার পরে সাংবাদিক সম্মেলনে বলেছেন, ‘আর তো মাত্র ষোলো দিন আছে।‘ অর্থাৎ ষোলো দিন পরে ওই চিনে রাখা সাংবাদিকসহ তাদের তালিকা তারা ১৯৭১ এর মতো বাস্তবায়িত করবে। আর তারা কিভাবে পুলিশ, বিডিআর, আর্মি ও সাধারণ মানুষ হত্যা করে, তা যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায়ের পরে এ দেশের মানুষ দেখেছে। বিরোধী দলে থেকেও তারা ওইভাবে হত্যা করেছে, তা হলে ক্ষমতা পেলে কত বড় গণহত্যা করবে তা বুঝতে কারও অসুবিধা হওয়ার কথা নয়।

    আরও বাস্তবতা হলো, এই অপশক্তি যদি ক্ষমতায় আসে তা হলে এবার যে লেখক, সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবী হত্যা হবে, তাদের স্মরণে কোনও শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালনের সুযোগও এ ভূখণ্ডে থাকবে না। এই ভূখণ্ডে যাতে আগামী এক শ’ বছরে কোনও প্রগতিশীল চিন্তা মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে না পারে, সেই ব্যবস্থাই তারা করবে। সেভাবেই তারা সব সেক্টরের প্রগতিশীল ও তাদের সমর্থকদের হত্যা করবে। ড. কামাল যেখানে বলছেন ‘চিনে রাখলাম’, সেখানে শিবির, জামায়াত ও বিএনপি কর্মীরা কী করবে তা সহজেই বোঝা যায়।

    স্বাভাবিকভাবে এবারের নির্বাচন সামনে রেখে সব থেকে বড় প্রশ্ন হলো, দেশের মানুষ কি একটি মিলনের মহাক্ষেত্র বা রিকনসিলিয়েশন দেশ চায়, না আবার গণহত্যা হোক সেটাই চায়? আর এটা এখন স্পষ্ট, শেখ হাসিনাকে ভোট দিলে মহামিলন, আর ড. কামালের নেতৃত্বের ঐক্যফ্রন্ট বা জামায়াত-বিএনপিকে ভোট দিলে ভয়াবহ গণহত্যা।

    তাই এবারের নির্বাচন দেশের মানুষের সামনে রিকনসিলিয়েশন বনাম গণহত্যার নির্বাচন হিসেবেই সামনে এসেছে। এখন দেশের মানুষেরই সব থেকে বড় দায় দেশকে গণহত্যার হাত থেকে বাঁচানো।

  22. ইরানের জনগণ আপনাকে পছন্দ করে: হাসিনাকে রাষ্ট্রদূত
    https://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1582830.bdnews

    প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে এসে শেখ হাসিনার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন ইরানের নতুন রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ রেজা নাফার।

    তার দেশের মানুষও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে খুব পছন্দ করেন বলে উল্লেখ করেছেন তিনি।

    বুধবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এই সৌজন্য সাক্ষাতে ইরানের প্রেসিডেন্টের পক্ষ থেকে শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা বার্তা পৌঁছে দেন রাষ্ট্রদূত নাফার।

    সাক্ষাত শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

    শেখ হাসিনাকে বাংলাদেশের ‘জ্ঞানী ও দূরদর্শী’ প্রধানমন্ত্রী অভিহিত করে নাফার বলেন, “ইরানের জণগণ আপনাকে খুব পছন্দ করে।”

    বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের প্রশংসা করে উন্নয়নশীল দেশের যোগ্যতা অর্জনের স্বীকৃতি পাওয়ায় অভিনন্দন জানান তিনি।

    ইরান ও বাংলাদেশের মধ্যে বাণিজ্য বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করে নতুন এই রাষ্ট্রদূত বলেন, “দুই দেশের মধ্যে ঐহিত্যগত ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক যে বন্ধন আছে সেটাকে আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই।”
    ইরানের রাষ্ট্রদূত বলেন, পশ্চিমা অবরোধ সত্ত্বেও ইরান ‘এগিয়ে চলছে’।

    ওই অঞ্চলে উত্তেজনা কমাতে তাদের প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী কাজ করছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, “আমরা যুদ্ধ প্রবণ দেশ না।”

    উপসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে উত্তেজনা কমাতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী কোনো উদ্যোগ নিলে ইরান তা স্বাগত জানাবে বলে মন্তব্য করেন নাফার।

    নতুন দায়িত্ব নেওয়া ইরানের রাষ্ট্রদূতকে স্বাগত জানিয়ে ন্যাম ও ওআইসি সম্মেলনে যোগ দিতে ২০১২ ও ১৯৯৭ সালে নিজের ইরান সফরের কথা স্মরণ করেন শেখ হাসিনা।

    মুসলিম দেশগুলোর এক থাকার ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “নিজেদের মধ্যে কোনো সমস্যা হলে সেটা আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা উচিত। দুটি মুসলিম দেশের মধ্যে সংঘর্ষ হলে জনগণ ভূক্তভোগী হয়।”
    দুই দেশের মধ্যে সাংস্কৃতিক সাযুজ্যের কথা উল্লেখ করে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি ‘সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারো সঙ্গে বৈরিতা নয়’ বলেও জানান শেখ হাসিনা।

    বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন প্রসঙ্গে গ্রামের উন্নয়নের পাশাপাশি ‘ধর্মীয় সম্প্রীতির’ কথাও তুলে ধরেন তিনি।

    সৌজন্য সাক্ষাতে আরো উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান ও কার্যালয় সচিব সাজ্জাদুল হাসান।

  23. masud karim permalink

    হামলার ব্যাপারে পাকিস্তানকে ‘উচ্চ মূল্য দিতে হবে’: ইরান
    https://bangla.bdnews24.com/world/article1593697.bdnews
    পাকিস্তান জঙ্গিদের আশ্রয় দিচ্ছে অভিযোগ করে এজন্য দেশটিকে ‘উচ্চ মূল্য চুকাতে হবে’ বলে হুঁশিয়ার করেছে ইরান।

    বুধবার দক্ষিণপূর্বাঞ্চলীয় সিস্তান-বেলুচিস্তান প্রদেশের পাকিস্তান সীমান্তবর্তী এলাকায় এক আত্মঘাতী গাড়ি বোমা হামলায় ইরানের রেভলিউশনারি গার্ড বাহিনীর ২৭ সদস্য নিহত হন।

    সুন্নি জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ আল আদল এ হামলার দায় স্বীকার করেছে।

    এ ধরনের সুন্নি জঙ্গি গোষ্ঠীগুলো পাকিস্তানের নিরাপদ আস্তান থেকে তৎপরতা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ ইরানের শিয়া মুসলিম কর্তৃপক্ষের।

    ইরানের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, ইরানি বাহিনীর ওপর হামলাকারী সুন্নি জঙ্গি গোষ্ঠীগুলোকে সমর্থন দেওয়ার জন্য আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বী সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতকেও দায়ী করে এসব দেশ ‘প্রতিশোধমূলক অভিযানের’ মুখোমুখি হতে পারে বলে সতর্ক করেছেন রেভলিউশনারি গার্ডের প্রধান মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আলি জাফারি।

    রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারিত মন্তব্যে জাফারি বলেছেন, “কেন পাকিস্তানের সেনাবাহিনী ও নিরাপত্তা সংস্থাগুলো এসব বিপ্লববিরোধী গোষ্ঠীগুলোকে আশ্রয় দেয়? কোনো সন্দেহ নেই পাকিস্তানকে এজন্য ‍উচ্চ মূল্য চুকাতে হবে।”

    ইস্পাহান শহরে বুধবারের হামলায় নিহতদের জানাজার সময় উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণে জাফারি এসব কথা বলেন।

    “এই গত বছর, ছয় থেকে সাতটি আত্মঘাতী হামলা ব্যর্থ করে দেওয়া হয়, কিন্তু তারা এ হামলাটি চালাতে সক্ষম হয়েছে।

    “বিশ্বাসঘাতক সৌদি ও আরব আমিরাত সরকারের জানা উচিত, ইরানের ধৈর্য্যধারণ শেষ হয়েছে এবং আমরা ইসলামবিরোধী অপরাধীদের প্রতি আপনাদের গোপন সমর্থন আর সহ্য করবো না,” জনতার উদ্দেশ্যে বলেন তিনি।

    জনতা সমস্বরে ‘আল্লাহু আকবর’ ধ্বনিতে তার কথায় সায় দেয়।

    ইরান অভিযোগ করলেও কথিত ‍সুন্নি জঙ্গিগোষ্ঠীগুলোকে সমর্থন দেওয়ার কথা অস্বীকার করেছে পাকিস্তান, সৌদি আরব ও আরব আমিরাত।

  24. masud karim permalink

  25. ইরানের সঙ্গে ‘রাজনৈতিক সমাধানে’ আগ্রহ সৌদি ক্রাউন প্রিন্সের
    https://bangla.bdnews24.com/world/article1670883.bdnews

    বিশ্বের দেশগুলো ঐক্যবদ্ধ হয়ে ইরানকে নিবৃত্ত করতে না পারলে তেলের দাম ‘অভাবনীয় পর্যায়ে’ উঠে যেতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান।

    রোববার সম্প্রচারিত এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, তেহরানের সঙ্গে সামরিক নয়, রাজনৈতিক সমাধানই তার বেশি পছন্দ।

    মার্কিন টেলিভিশন নেটওয়ার্ক সিবিএসের ‘সিক্সটি মিনিটস’ অনুষ্ঠানে দেওয়া এ সাক্ষাৎকারে শাসক হিসেবে সাংবাদিক জামাল খাশুগজি হত্যার ‘পূর্ণাঙ্গ দায়’ নেয়ার কথা জানালেও ক্রাউন প্রিন্স ওই হত্যাকাণ্ডে নির্দেশ দেওয়ার কথা সুস্পষ্টভাবে অস্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

    বছরখানেক আগে তুরস্কের সৌদি কনসুলেটে খাশুগজির হত্যাকাণ্ড বিশ্বজুড়ে প্রতিবাদ ও মোহাম্মদ বিন সালমানের মর্যাদাকে প্রশ্নবিদ্ধ করলেও সাম্প্রতিক মাসগুলোতে ইরানের সঙ্গে ওয়াশিংটনের দ্বন্দ্ব ট্রাম্প প্রশাসনের সঙ্গে সৌদি আরবের সম্পর্ককে আরও মজবুত করেছে বলে ধারণা বিশ্লেষকদের।

    “বিশ্ব যদি ইরানকে নিবৃত্ত করতে দৃঢ় ও কঠোর পদক্ষেপ না নেয়, আমরা আরও উত্তেজনা দেখতে পাবো, যা বিশ্বকেই হুমকিতে ফেলবে। তেল সরবরাহ বিঘ্নিত হবে এবং তেলের দাম জীবদ্দশায় দেখিনি এমন অকল্পনীয় আকাশচুম্বী অবস্থানে পৌঁছাবে, ” বলেছেন সৌদি ক্রাউন প্রিন্স।

    গত সপ্তাহের মঙ্গলবার নেওয়া এ সাক্ষাৎকারে মোহাম্মদ বলেছেন, তিনি চলতি মাসের ১৪ তারিখে বিশ্বের সবচেয়ে বড় জ্বালানি শোধনাগারসহ দুটি তেল প্ল্যান্টে হামলায় ইরানের দায় নিয়ে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পস্পেওর অবস্থানের সঙ্গে একমত।

    সৌদি আরবের তেল শিল্পক্ষেত্রের প্রাণকেন্দ্রে ওই হামলায় বিশ্বের তেল সরবরাহের পরিমাণ পাঁচ শতাংশেরও বেশি হ্রাস পায়। যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশ ও সৌদি আরব এ হামলার জন্য ইরানকে দায়ী করলেও তেহরান তা অস্বীকার করে আসছে। অন্যদিকে ইয়েমেনের ইরানঘনিষ্ঠ হুতি বিদ্রোহীরা হামলাটির দায় স্বীকার করেছে।

    সাক্ষাৎকারে এমবিএস হিসেবে সুপরিচিত ক্রাউন প্রিন্স জানান, তিনি শান্তিপূর্ণ সমাধান চান, কেননা সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে যে কোনো যুদ্ধ বিশ্ব অর্থনীতিকে বড় ধরনের ক্ষতির মুখে ফেলবে।

    “রাজনৈতিক ও শান্তিপূর্ণ সমাধান সামরিক উপায়ের চেয়ে বেশি ভালো,” বলেছেন তিনি।

    তেহরানের পারমাণবিক কর্মসূচি ও মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে দেশটির প্রভাববিস্তার রোধে ইরানের সঙ্গে নতুন একটি চুক্তিতে উপনীত হওয়ার লক্ষ্যে দেশটির প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির সঙ্গে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের বৈঠক করা উচিত বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

    জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের সময় রুহানি ও ট্রাম্পের মধ্যে বৈঠক আয়োজনে ইউরোপের দেশগুলো চেষ্টা করলেও ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা নিয়ে দুই পক্ষের অনড় অবস্থানের কারণে ওই উদ্যোগ ব্যর্থ হয়।

    তুরস্কের সৌদি কনসুলেটে খাশুগজি হত্যাকাণ্ডের বর্ষপূর্তির কয়েকদিন আগে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ওই ঘটনার বিষয়টিও উঠে আসে। হত্যাকাণ্ডের নির্দেশ দিয়েছিলেন কি না, এমন প্রশ্নে সৌদি ক্রাউন প্রিন্সের উত্তর ছিল, “একেবারেই না।”

    তবে হত্যাকাণ্ডের দায় এড়াননি তিনি।

    “যেহেতু এটি সৌদি সরকারের হয়ে কাজ করা ব্যক্তিরা করেছে,তাই এর সম্পূর্ণ দায় নিচ্ছি আমি। এটা ভুল ছিল। ভবিষ্যতে যেন এরকম না হয়, সেজন্য অবশ্যই সব ধরনের পদক্ষেপ নেবো আমি,” বলেছেন তিনি।

    তুরস্কের সৌদি কনসুলেটে খাশুগজি হত্যার পর পশ্চিমা বিভিন্ন সরকার এমনকী সিআইয়ের মূল্যায়নেও এমবিএসই ওই হত্যাকাণ্ডের নির্দেশ দিয়েছিলেন বলে ধারণা দেওয়া হয়েছিল। সৌদি কর্মকর্তারা অবশ্য শুরু থেকেই হত্যাকাণ্ডে ক্রাউন প্রিন্সের কোনো ধরনের ভূমিকার অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে।

    “অনেকেরই ধারণা, সৌদি আরবের সরকারের হয়ে কাজ করা ৩০ লাখ লোকের প্রতিদিনের কাজ সম্পর্কে আমার জানা উচিত। এটা অসম্ভব যে ওই ৩০ লাখ লোক তাদের প্রতিদিনের কাজের প্রতিবেদন সৌদি সরকারের শীর্ষ বা দ্বিতীয় শীর্ষ কর্মকর্তাকে পাঠাবেন,” বলেছেন তিনি।

    খাশুগজি হত্যাকাণ্ড নিয়ে সৌদি আরবে তদন্ত চলছে জানিয়ে, দোষী প্রমাণিত হলে পদবী যাই হোক না কেন তাদেরকে বিচারের মুখোমুখি করা হবে বলেও আশ্বস্ত করেছেন তিনি।

    “কেউ বাদ থাকবে না,” বলেছেন তিনি।

    সৌদি আরবের বর্তমান শাসকগোষ্ঠীর সমালোচকখ্যাত খাশুগজি গত বছরের ২ অক্টোবর তুরস্কের সৌদি কনসুলেটে প্রবেশের পর থেকেই তাকে আর দেখা যায়নি। প্রথম দিকে সৌদি আরব খাশুগজির নিখোঁজকাণ্ডে দায় অস্বীকার করলেও তাকে যে কনসুলেটের ভেতরেই হত্যা করা হয়েছে পরে তা স্বীকার করে নেয়।

    এ ঘটনায় গোপনে ১১ সৌদি নাগরিকের বিচার শুরু হলেও মাত্র কয়েকটি শুনানি হয়েছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম।

    জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে খাশুগুজি খুনের ঘটনায় সৌদি ক্রাউন প্রিন্স এবং জ্যেষ্ঠ সৌদি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে তদন্তেরও আহ্বান জানানো হয়েছে।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: