Skip to content

ইউনূসমিতি ৪

June 24, 2013

১৪ জুন ২০১২, বৃহস্পতিবার

পৃথিবীতে এত জায়গা থাকতে বাংলাদেশে কেন সামাজিক ব্যবসার পত্তন হল

আলমাসে ইউনূস নিয়মিত লুকিয়ে লুকিয়ে সামাজিক ছবি দেখতেন।

http://nirmaaan.com/blog/masudkarim/6973

=========================================

৪ ফেব্রুয়ারি ২০১২, শনিবার

লাইফস্টাইলস ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদেই লেখা হয়েছে, ‘ফার্স্ট হি সেইভড ইন্ডিয়া। নাও হি’জ ওয়ার্কিং অন দ্য রেস্ট অব দ্য ওয়ার্ল্ড। দ্য ফাদার অব মাইক্রোক্রেডিট, মুহাম্মদ ইউনূস।’

ওয়েবে ইউনূসের মূল প্রচার উইং yunus centreএর ফেসবুক, টুইটার, গুগল+ পাতায় এই লাইফস্টাইলসকাণ্ড নিয়ে কোনো পোস্ট নেই। ভারত ও বিশ্বের উদ্বেগ বাড়ানো এই শিরোনামের আসল উদ্দেশ্য আসলে কী?

=========================================

৩ ফেব্রুয়ারি ২০১২, শুক্রবার

ছবিতে ইউনূসের মাথার টুপিটা দেখতে তো নেহেরু টুপির মতো লাগছে না, ভাগ্যের পরিহাসে সেটা তো কেমন জানি জিন্নাহ টুপির মতো লাগছে।

========================================

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১২, শনিবার

এমন তেরছা নজর আমাদের প্রধানমন্ত্রীর, working on the rest of the WORLD , হয়ে গেল ইউনূসকে বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট করা হোক! কিন্তু অর্ধতেরছা হয়ে গেছে, ষোলোকলা পূরণ করার জন্য বলা উচিত ছিল, ইউনূসকে বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট করা হোক আর হিলারিকে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক করতে চাই।

======================================

১ মার্চ ২০১২, বৃহস্পতিবার

PM for Yunus as WB Chief তাতে এমন কী মহা সর্বনাশ হয়ে গিয়েছিল কে জানে? কেন এত ক্ষেপে গেলেন মাহফুজ আনাম? লেখাটা পুরো তোলা থাক এখানে।

Commentary
PM for Yunus as WB Chief
Is it a change of heart or a mockery?
Mahfuz Anam
After terming him the “bloodsucker” of the poor and relentlessly harassing him and forcing his departure from Grameen Bank that he founded and led to Nobel Prize stature, Prime Minister Sheikh Hasina, on Wednesday, requested the visiting EU delegation to use their “influence” to make Prof Yunus the next president of the World Bank.

On the occasion she also praised him, according to UNB news agency, for “his outstanding contribution in alleviating poverty through micro credit activities.” The PM is also quoted to have further said that Prof Yunus has vast experience and enjoys an “excellent reputation in the world”. She reportedly holds the view that Prof. Yunus’ vast experience is a “valuable asset” that the World Bank, by making him its next president, can use for the benefit of the world.

This is for the first time we have heard anything positive from the PM about Yunus since she took power this time. Is Sheikh Hasina’s change of heart for real? Or is it a mockery, with the underlying message, ‘Take him away from Bangladesh?’ We hope it is the former.

Countless numbers of us who have attended conferences abroad or who have done business with foreign companies, have faced relentless questions as to how the Bangladesh government could harass the very man honoured the world over.

The support that the international community extended to Prof Yunus was seen by our government more as Yunus’ capacity to lobby to gather support rather than a sign of genuine respect that he enjoyed.

The spontaneity of the global outcry was totally lost on our government. It could not imagine, in its wildest dream, that another Bangladeshi, who wielded no political power, could have earned such a genuinely exalted place in the global scene.

So like a stubborn individual, the more the support for Yunus, the more the government stiffened its attitude and saw it as external interference in our internal affairs. Not for a moment did it ask why heads of states and governments were rooting for this private man who had nothing to show for his power except his reputation for the work he did for the poor, especially women.

Within the country the government, its leaders and especially the prime minister came under severe criticism for their narrow mindedness. Many termed the prime minister’s attitude to be an expression of her jealousy, as some had convinced her that she deserved a Nobel Prize. She appeared to be mean, vindictive, too eager to denigrate people other than her family, and totally blind against people she dislikes for whatever reason and however unjustifiably. To make a long story short, her attack on Prof Yunus greatly diminished her, her party, her government and the country.

Nothing would please us more if Sheikh Hasina really meant what she said to EU delegation. It is never too late to correct a wrong. Yunus’ possible presidency of the World Bank is of least interest to us. (It may be mentioned that the office is always held by an American, just as the IMF’s stewardship is held by Europeans. On what basis our PM made such a request to the EU is beyond our comprehension). What is far more important for Bangladesh and we as a people is that we stop dishonouring a man who needs and deserves to be respected. We stop telling lies about him and about micro-credit that is being adopted in almost all poor countries of the world, some not too poor and a few rich countries as well.

As the age old saying goes, charity begins at home. So also respect for Yunus should begin at home, at the PM’s home (figuratively speaking) to be precise.

If Sheikh Hasina believes what she said to the EU delegation about Yunus’ work, his experience, his reputation then she must acknowledge that inside the country by giving him the respect he deserves. Given the ego our leaders have, it is too much to ask our PM to retract all that she has said about him in the past, especially after it proved to be all false. She would definitely gain the esteem of her countrymen if she had the maturity and the self confidence to admit that she was mistaken.

That said, we can ask her to begin anew. She can start by giving Yunus an audience that he has long requested for and removing the misunderstanding that has been exploited by many smaller people surrounding the PM. She can take steps to restore this man’s prestige that she has so unfairly, cruelly but at the end ineffectively, tried to take away from him.

But, on the contrary, if she does not believe what she has said, then she has only made herself an object of ridicule. The world will know that she advised the EU and indirectly the World Bank and all its members to honour the very man she herself does not honour. What it will do for her own credibility and stature, not to speak of respect among her peers, is an open question. But it is one that should be asked by her.

It is our fervent hope that the PM’s words signal a change of heart. We would further like to hope that she will act according to what she has said and try to heal this festering wound that has harmed us all so much, more her than anybody else. However, if her words turn out to have been just that — words, without any substance or meaning — then it will stand out as having made a mockery of us all.

============================

৩ মার্চ ২০১২, শনিবার

গতকাল যেউত্তর ইউনূস সংবাদমাধ্যমে পাঠিয়েছেন (বাংলায়, ইংরেজিতে) সেউত্তর তিনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে পাঠাননি, পাঠিয়েছেন আমেরিকার রাষ্ট্রদূত ড্যান মজেনাকে। শেখ হাসিনাকে উত্তর দিতে ইউনূস লাগে না, সেটা মাহফুজ আনামরা সেরে নিয়েছেন। আর কোনো কিছু ড্যান মজেনাদের স্পর্শধন্য না হলে আবার ইউনূস উত্তর দেন না।

=============================

২৪ মার্চ ২০১২, শনিবার

এবার সিএনএন মানি তাকে আমাদের সময়ের মহত্তম ১২ জন উদ্যোক্তার একজন হিসাবে তালিকাভুক্ত করল। কিন্তু একটা পার্থক্য থেকে গেল

1. Steve Jobs
Company: Apple
Sales: $108.2 billion
Market Value: $546 billion
Employees: 63,300
Advice: Say no to focus groups and market research.

2. Bill Gates
Company: Microsoft
Sales: $69.9 billion
Market Value: $273.5 billion
Employees: 90,000
Advice: Find very smart people and create small teams.

3. Fred Smith
Company: FedEx
Sales: $39.3 billion
Market Value: $30 billion
Employees: 255,573
Advice: Rely on “first-level” managers.

4. Jeff Bezos
Company: Amazon
Market Value: $84.0 billion
Sales: $48.1 billion
Employees: 56,200
Advice: Take regular mini-retreats.

5. Larry Page and Sergey Brin
Company: Google
Sales: $37.9 billion
Market Value: $203.2 billion
Employees: 32,500
Advice: Spare no expense on innovation.

6. Howard Schultz
Company: Starbucks
Sales: $11.7 billion
Market Value: $40 billion
Employees: 149,000
Advice: Always challenge the old ways.

7. Mark Zuckerberg
Company: Facebook
Sales: $3.71 billion
Market Value: $75 billion-$100 billion (estimate)
Employees: 3,200
Advice: Embrace paranoia.

8. John Mackey
Company: Whole Foods
Sales: $10.1 billion
Market Value: $15.5 billion
Employees: 56,200
Advice: Purpose inspires people.

9. Herb Kelleher
Company: Southwest Airlines
Sales: $15.6 billion
Market Value: $6.4 billion
Employees: 45,392
Advice: Make your customers No. 1.

10. Narayana Murthy
Company: Infosys
Sales: $6.0 billion
Market Value: $32 billion
Employees: 145,088
Advice: Sacrifice today, cash in tomorrow.

11. Sam Walton
Company: Wal-Mart Stores
Sales: $446.9 billion
Market Value: $36.5 billion
Employees: 2.0 million
Advice: Give the people what they want.

12. Muhammad Yunus
Company: Grameen Bank
Advice: Small gifts can equal big impacts.

দেখুন না, সব উদ্যোক্তার যেটা জাত বৈশিষ্ট তাদের কোম্পানি থাকে, বিক্রি-বাটা থাকে, বাজারমূল্য থাকে, কর্মী থাকে, আর যেহেতু তারা মহত্তমদের তালিকাভুক্ত তাদের উপদেশও থাকে। কিন্তু ইউনূসের ক্ষেত্রে আছে শুধু কোম্পানি আর উপদেশ! অবশ্য ঠিকই আছে, তিনি তো মহত্তমদের মধ্যে মহত্তম, আর সবাই তো এখানে অসামাজিক ব্যবসায়ী, তিনিই তো একমাত্র সামাজিক ব্যবসায়ী। এদুটি ব্যবসায়ের মধ্যে আবার পার্থক্যটা চোখে আঙুল দিয়ে বোঝানো গেল, সামজিক ব্যবসায় শুধু কোম্পানি আর উপদেশ থাকে — সেখানে কর্মী লাগে না, বিক্রি-বাটা হয় না, বাজারমূল্যের ধার ধারতে হয়না! আহা!

====================================

২৭ মার্চ ২০১২, মঙ্গলবার

এটা কী করল ইউনূস অন্তঃপ্রাণ ‘প্রথম আলো’, একটা তালিকাকে একেবারে মেধাতালিকা বানিয়ে দিল, ফরচুন ম্যাগাজিনের করা The 12 greatest entrepreneurs of our time-এর তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন ইউনূস, আমরা লিখেছি আমাদের সময়ের মহত্তম ১২ জন উদ্যোক্তার একজন, আর প্রথম আলো লিখল, ১২তম বিশ্বসেরা উদ্যোক্তা। কে দায়ী এজন্য, ফিচারটির অনুবাদক এটিএম ইসহাক? কিন্তু প্রথম পাতার একবারে প্রথম কলামে তো এটিএম ইসহাকের নাম নেই? তাহলে কে? বাংলাদেশের সবচেয়ে ক্ষমতাবান সম্পাদক? এই জ্ঞানের বহর নিয়ে নোবেল বিজয়ীর তোয়াজ করেন? বারো জনের একজনকে, বারোর মধ্যে বারোতম বানিয়ে দেন?

======================================

১৩ জুন ২০১২, বুধবার

যাক জাগ্রত ভারত, ভারতীয় অভিনেতা ইরফান খান অভিনয় করবেন ইউনূসের চরিত্রে ইতালিয়ান পরিচালকের ছবিতে।

Barely has Irrfan Khan completed one big-ticket Hollywood project, the actor is already gearing up for his next international venture. After The Amazing Spiderman, Irrfan will be seen in Italian director Marco Amenta’s Banker To The Poor. In case you are wondering, Irrfan will essay the central character of Nobel-prize winning Bengali economist Muhammad Yunus, who is credited with inventing the breakthrough concept of grameen (rural) bank.

Incidentally, after Paan Singh Tomar, Yunus will be Irrfan’s second biopic role. Prof Yunus’ awe-inspiring endeavour to help the poor procure micro bank loans without collaterals won him the Nobel Peace Prize in 2006. Apparently, the makers of the film zeroed in on Irrfan as the real-life hero of the downtrodden after they saw him play a Bengali ‘bhadralok’ in Mira Nair’s The Namesake.

Irrfan confirmed the news and said, “I have been in talks for that film for a long time. I have already given my consent.” However, he did not divulge any further details for contractual reasons.

A friend of the actor said, “The challenge here is to recreate a living character of such distinguished achievement. Irrfan will meet Muhammd Yunus and spend as much time with him as possible. When he played Paan Singh Tomar, he relied on his imagination. But playing Prof Yunus is a far bigger challenge since he is a much revered living personality. Irrfan will take a few months to get into the character.”

With Banker To The Poor taking off at the end of the year, Irrfan hopes to complete his homework by then.

খবরের লিন্ক এখানে

=============================

১২ আগস্ট ২০১২, রবিবার

সরকার গ্রামীণ ব্যাংক দখল করতে চায় বলে ড. মুহাম্মদ ইউনূস দেশের জন্য ‘ক্ষতিকর’ প্রচারণা চালাচ্ছেন বলে মন্তব্য করেছেন অথমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

রোববার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে এক সেমিনারে বক্তব্য দেওয়ার সময় অর্থমন্ত্রী বলেন, “ইউনূস সাহেব সঠিক কথা বলছেন না। তিনি বলছেন, সরকার গ্রামীন ব্যাংক দখল করতে চায়। আমি প্রথম দিন থেকে বলে আসছি, সরকার গ্রামীণ ব্যাংক দখল করতে চায় না এবং এখন পর্যন্ত দখল করেনি। ইউনূস সাহেব আননেসেসারি ক্যাম্পেইন চালাচ্ছে। ইটস হার্মফুল ফর কান্ট্রি।”

অর্থমন্ত্রী দাবি করেন, মুহাম্মদ ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংক থেকে চলে যাওয়ার পর প্রতিষ্ঠানটি এখন সবচেয়ে ভালো অবস্থায় আছে।

“ইউনূস সাহেব যাওয়ার পর গ্রামীণ ব্যাংক বন্ধ হয়ে গেছে এ রকম প্রপাগান্ডা চালানো হচ্ছে। কিন্তু গত ১০ বছরের মধ্যে গ্রামীণ ব্যাংকের এখন হাইয়েস্ট টাইম।”

=====================================

১২ আগস্ট ২০১২, রবিবার

মোহাম্মদ মুনিমের সাদাসিদে কথা, এই ব্লগে মুহাম্মদ ইউনূস আলোচনায় খুবই গুরুত্বপূর্ণ সংযোজন। মুহাম্মদ ইউনূস নিয়ে আমার নিজের আর নতুন করে তেমন কিছু বলার নেই। এই ব্লগে বেশ কিছু পোস্টে বিভিন্ন আলোচনায় অংশ নিয়ে ইউনূসকে নিয়ে প্রায় সবকিছুই বলা হয়ে গেছে বলে আমি মনে করি। অনেকেই হয়ত সেসব পোস্টগুলো পড়ে ফেলেছেন, তারপরও ভাবছি নতুন পাঠকদের জন্য অথবা পুরনো পাঠকদের জন্য এখানে এই ব্লগের সেই পোস্টগুলোর লিন্ক আবার শেয়ার করতে পারি : বৈদেশিক ঋণ নিয়ে ডঃ মুহাম্মদ ইউনুসের নতুন তত্ত্ব, আবারও সেই সুশীলসঙ্গীতানুষ্ঠান, ঋণলস, ড. ইউনূস : ‘ভারতের ত্রাণকর্তা’?, দারিদ্র্যবণিক ও বিলবোর্ডের ভুবনে একশ’ বছরের সুফিয়া কামাল, পৃথিবীতে এত জায়গা থাকতে বাংলাদেশে কেন সামাজিক ব্যবসার পত্তন হল এনিয়ে একটি ছোট্ট পোস্ট

=======================

১২ আগস্ট ২০১২, রবিবার

আমাদের দেশের অনেকে যারা ‘পাকিস্তান’কে অতি মূল্যবান ভেবেছিলেন বা এখনো ভাবেন — তারা শেখ মুজিবকে ‘বিশ্বাসঘাতক’ হিসাবে দেখেন, যদিও আমাদের দেশের অনেকের বিচারে এবং শেখ মুজিবের বিচারে পাকিস্তানই ছিল বিশ্বাসঘাতক। ঠিক এখন আমাদের দেশের অনেকে যারা ‘মুহাম্মদ ইউনূস’কে অতি মূল্যবান ভাবছেন তারা শেখ হাসিনাকে ‘বিশ্বাসঘাতক’ হিসাবে দেখছেন, যদিও আমাদের দেশের অনেকের বিচারে এবং শেখ হাসিনার বিচারে মুহাম্মদ ইউনূসই বিশ্বাসঘাতক।

==========================

১৪ আগস্ট ২০১২, মঙ্গলবার

গ্রামীণ ব্যাংক বিষয়ে উদ্বেগ নিয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে আলোচনা করে আশ্বস্ত হয়েছেন বলে জানালেন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত ড্যান মজিনা।

সোমবার অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে দেড় ঘণ্টা বৈঠকের পর তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, গ্রামীণ ব্যাংকে ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগের ক্ষমতা এর সদস্যদের থাকবে বলে আশ্বাস পেয়েছেন তিনি।

গ্রামীণ ব্যাংকে ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগের বিধি পরিবর্তনে আইন সংশোধনের প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় অনুমোদন দেওয়ার পর তা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র উদ্বেগ জানিয়ে আসছে।

গত বছর গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে সরকার অব্যাহতি দেওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্র তা নিয়েও অসন্তোষ প্রকাশ করেছিল।

গ্রামীণ ব্যাংক নিয়ে সরকারের নতুন পদক্ষেপে উদ্বেগ নিয়েই অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে যান ড্যান মজিনা। তিনি বলেন, “গ্রামীণ ব্যাংক নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র উদ্বিগ্ন। সে কারণেই বিষয়টি নিয়ে আমরা কথা বলছি।”

মজিনা বলেন, “আমরা একমত হয়েছি যে, গ্রামীণ ব্যাংকে একজন শক্তিশালী এমডি নিয়োগ দেওয়া হবে। সে ক্ষেত্রে অবশ্যই আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুসরণ করা হবে। বাংলাদেশের উন্নয়নের জন্য গ্রামীণ ব্যাংক খুব গুরুত্বপূর্ণ বলেও আমরা একমত হয়েছি।”

“আমরা আরো একমত হয়েছি, প্রতিষ্ঠানটিতে এমন একটি স্বতন্ত্র পর্ষদ থাকা দরকার, যাতে ঋণগ্রহীতাদেরই এমডি নিয়োগের ক্ষমতা থাকে। গ্রামীণ ব্যাংকে স্বতন্ত্র একটি কাঠামো থাকা দরকার,” বলেন তিনি।

মজিনা জানান, গ্রামীণ ব্যাংক একটি শক্তিশালী ও কার্যকর প্রতিষ্ঠান হিসেবে থাকবে- এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রীও একমত হয়েছেন।

============================

১৪ আগস্ট ২০১২, মঙ্গলবার

গ্রামীণ ব্যাংকে ব্যাবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) নিয়োগের জন্য ‘ইচ্ছাপত্র’ (লেটার অব ইনটেন্ট) আহ্বান করবে সকার।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত মঙ্গলবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

মুহিত বলেন, “গ্রামীণ ব্যাংকে এমডি নিয়োগের জন্য ইন্টারন্যাশনাল লেটার অব ইনটেন্ট (ইচ্ছাপত্র) আহ্বানের সিদ্ধান্ত হয়েছে। খুব শিগগিরই এটা আহ্বান করা হবে।”

সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত ড্যান মজিনার সঙ্গে গ্রামীণ ব্যাংক নিয়ে প্রায় দেড় ঘণ্টা বৈঠকের পরদিন এ কথা বললেন অর্থমন্ত্রী।

মুহিতের সঙ্গে ওই বৈঠক শেষে মজিনা সাংবাদিকদের বলেন, গ্রামীণ ব্যাংকে ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগের ক্ষমতা এর সদস্যদের হাতেই থাকবে বলে আশ্বাস পেয়েছেন তিনি।

গ্রামীণ ব্যাংকে ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগের বিধি পরিবর্তনে আইন সংশোধনের প্রস্তাবে গত ২ অগাস্ট মন্ত্রিসভা সম্মতি দেওয়ার পর তা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র উদ্বেগ জানিয়ে আসছে।

=================================

১৬ আগস্ট ২০১২, বৃহস্পতিবার

চ্যাতিয়া উঠিলেন দেখি জনেক মাইলাম বাবা!

গ্রামীণ ব্যাংক ও ড. ইউনূসকে নিয়ে সরকারের বর্তমান অবস্থানের প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশকে সহযোগিতা বন্ধের হুমকি দিতে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপকে পরামর্শ দিয়েছেন উইলিয়াম বি মাইলাম।

পাশাপাশি বিশ্ব ব্যাংকের মতো আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোকেও একই পথ অনুসরণ করতে বলেছেন গত শতকের নব্বইয়ের দশকের শুরুতে তিন বছর ঢাকায় মার্কিন রাষ্ট্রদূতের দায়িত্বে থাকা এই কূটনীতিক।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে মঙ্গলবার মতামত বিভাগে প্রকাশিত এক কলামে এই পরামর্শ দেন বর্তমানে ‘উড্রো উইলসন ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর স্কলার’র এই পণ্ডিত।

গ্রামীণ ব্যাংকের দায়িত্ব থেকে মুহাম্মদ ইউনূসকে অব্যাহতি দেওয়া এবং সর্বশেষ এই ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগের বিধি সংশোধনে সরকারের পদক্ষেপ নিয়ে ওয়াশিংটনের উষ্মা প্রকাশের মধ্যেই এনিয়ে কলম ধরলেন মাইলাম।

তিনি লিখেছেন, “গ্রামীণ ব্যাংকের কর্তৃত্ব সরকার নিতে চায়- এমন আতঙ্ক গত ১৮ মাস ধরে তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে এই ব্যাংকটিকে, সেই সঙ্গে এর প্রতিষ্ঠাতা (ব্যবস্থাপনা পরিচালক) ড. ইউনূসকে।

“ইউনূস নিজে এই শঙ্কার কথা প্রকাশ করে আসছিলেন, চলতি মাসে শেখ হাসিনা নেতৃত্বাধীন সরকারের পদক্ষেপ তা স্পষ্ট করেছে।”

গত ২ জুন গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) নিয়োগের বিধি পরিবর্তন করে ‘সংশোধিত গ্রামীণ ব্যাংক অধ্যাদেশ’ জারির সিদ্ধান্ত নেয় মন্ত্রিসভা।

ইউনূসের দাবি, এর মধ্যদিয়ে সরকার তার ভাষায় ‘গরিবের’ এই ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণ পুরোপুরি নিতে চাইছে।

মাইলামও মনে করেন, সরকারের নিয়োগ করা চেয়ারম্যানের দ্বারা গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা নিয়োগ হলে তাই ঘটবে। ‘দুর্নীতিবাজ’ সরকারি কর্মচারীরা এখন ব্যাংকটিতে ‘লুটপাট’ চালাবে।

ইউনূসের বক্তব্যের পর যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন গ্রামীণ ব্যাংক নিয়ে তাদের উদ্বেগ প্রকাশ করে, যা শেখ হাসিনা সরকার ধর্তব্যের মধ্যেই আনছে না বলে মাইলামের পর্যবেক্ষণ।

এই প্রেক্ষাপটে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি তার পরামর্শ, “যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় সরকারগুলোকে দ্বিপক্ষীয় সব সহযোগিতা (বাংলাদেশকে) বন্ধের হুমকি দিতে হবে। একই কাজ করতে হবে বিশ্ব ব্যাংকের মতো বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোকেও।”

=====================================

১৯ জুলাই ২০১১, মঙ্গলবার

নারীশিক্ষা, সাহিত্য ও গণ আন্দোলনের পথে অসম সাহসের সাথে কাজ করেছেন সুফিয়া কামাল। তার কাজ শেষ হয়ে গেছে, কারণ তার মৃত্যু হয়েছে। রাজনৈতিক সামাজিক প্রেক্ষিতে নারী জাগরণকে নারীর ক্ষমতায়নে রূপান্তরের কাজটিতে রাজনৈতিক অবস্থান নিয়ে সুফিয়া কামালের মতো উজ্জ্বল কেউ আজ আমাদের সামনে নেই। একথা সত্য।

‘দারিদ্রবণিক’ বলতে নিশ্চয়ই ক্ষুদ্র্রঋণ সংস্থা ও এনজিওকে বোঝানো হয়েছে আর ‘বিলবোর্ড’ বলতে নিশ্চয় বিজ্ঞাপন মাধ্যমকে বোঝানো হয়েছে। অবশ্যই এসবের কুপ্রভাব আমাদের সমাজের উপর পড়েছে — কিন্তু এগুলোর সুপ্রভাব অনেক নারীর আর্থিক ও মানসিক অবস্থানকে উন্নতও করেছে। আর ব্যক্তিগত স্তরে এই উন্নতি যখন অনেক ব্যক্তির মধ্যে সাধিত হয়, তখন তার প্রভাব সংখ্যাগত দিক থেকে সমষ্টির উপরও পড়ে। নষ্ট রাজনীতির মাঠে দাঁড়িয়ে যখন আমরা বুঝি তারপরও জনগণের অধিকারের কথা বলতে রাজনীতির বিকল্প নেই। তেমনি ক্ষুদ্র্রঋণ সংস্থা, এনজিও ও বিজ্ঞাপনের জগতের ইতিবাচক দিকটি আমরা হারাতে চাই না — কারণ আমরা দেখেছি আমাদের সমাজের অনেক গভীরে অনেক ব্যক্তির জীবনে এর শক্তিশালী প্রভাব আমাদের সমাজকে অনেক কিছু দিয়েছেও। আমাদের অনেক সমন্বয়ের কাজ করতে হবে। যেরকম বাংলাদেশ রাষ্ট্র তসলিমা নাসরিনকে দেশছাড়া করে বাংলাদেশের নারী আন্দোলনের গতিকে অনেক স্তিমিত করে দিয়েছে — সেরকম ক্ষুদ্র্রঋণ সংস্থা, এনজিও ও বিজ্ঞাপনের জগতের ইতিবাচক নির্দেশনাগুলোকে অবহেলা করলে নারীর ক্ষমতায়ন আরো বাধাগ্রস্তই হবে।

ড. ইউনূস : ‘ভারতের ত্রাণকর্তা’?

http://nirmaaan.com/blog/abishchruto/6789

Advertisements
5 Comments
  1. গ্রামীণ ব্যাংক নিয়ে হিলারির দ্বারস্থ ছিলেন ইউনূস http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1020565.bdnews

    গ্রামীণ ব্যাংক নিয়ে সরকারের সঙ্গে টানাপড়েন নিরসনে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনের সহায়তা চেয়েছিলেন ব্যাংকটির পদচ্যুত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মুহাম্মদ ইউনূস।

    সম্প্রতি হিলারির ফাঁস হয়ে যাওয়া ই-মেইলগুলোর বেশ কয়েকটি প্রকাশ করেছে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর। প্রকাশিত কয়েকটি মেইলে দেখা যায়, গ্রামীণ ব্যাংক প্রশ্নে বাংলাদেশ সরকারকে প্রভাবিত করতে হিলারির কাছে বারংবার তদ্বির করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ বেসামরিক পদকজয়ী মুহাম্মদ ইউনূস।

    শান্তিতে নোবেলজয়ী ইউনূসের সঙ্গে ক্লিনটন পরিবারের বন্ধুত্ব দীর্ঘদিনের।

    মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর হিলারির প্রায় সাত হাজার ইমেইল প্রকাশ করেছে, যার মধ্যে তিন শতাধিক ইমেইলে বাংলাদেশ প্রসঙ্গ এসেছে। এর মধ্যে বেশ কয়েকটিতে গ্রামীণ ব্যাংক প্রসঙ্গ রয়েছে।

    বেশকিছু মেইলে হিলারির জবাব গোপন রেখেছে তারা।

    হিলারির কাছে পৌঁছুতে মেলান ভারভিয়ার নামে একজন কর্মকর্তার কাছে মেইল পাঠিয়েছিলেন গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

    এমন একটি ইমেইল হিলারিকে পাঠিয়ে মেলান লিখেন, “ইউনূস এখনো গ্রামীণ নিয়ে উদ্বিগ্ন।”

    তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনির সঙ্গে হিলারির বৈঠক এবং জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে শেখ হাসিনার অংশ গ্রহণের ফাঁকে গ্রামীণ ব্যাংক নিয়ে আলোচনার অনুরোধ জানিয়ে ইউনূসের পক্ষ থেকে পাঠানো ওই মেইলে লেখা হয়েছে, “প্রিয় মেলান, বাংলাদেশের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভায় যোগ দিতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হাসিনা ওয়াজেদের আমেরিকা সফর নিয়ে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি ১৬ সেপ্টেম্বর হিলারি ক্লিন্টনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। সে সময় বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশে গ্রামীণ ব্যাংক ইস্যু নিয়ে আলোচনার অনুরোধ রইল।

    “ঢাকায় মার্কিন রাষ্ট্রদূতের পরামর্শে আমি আমাদের সমস্যা সম্পর্কে জানাতে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ চেয়েছি। কিন্তু ছয় সপ্তাহ ধরে কোনো সাড়া নেই।

    “আমি প্রেসিডেন্টের স্বাধীনতা পদক (প্রেসিডেন্সিয়াল মেডেল অব ফ্রিডম) পাওয়ায় বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ প্রায় সবাই আমাকে শুভেচ্ছা জানালেও প্রধানমন্ত্রী এবং তার দলের পক্ষ থেকে টু শব্দও করা হয়নি। সুতরাং দেখতেই পাচ্ছেন সমস্যা কতটা জটিল রূপ নিয়েছে।

    “আমার মনে হয় আমি এ ব্যাপারে আপনাকে ধারণা দিতে এবং কী করতে হবে তা সম্পর্কে ধারণা দিতে পারব।

    “সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ। এইচকে (হিলারি) শুভেচ্ছা দেবেন। শিগগিরই দেখা হবে।- ইউনূস।”

    মেইলটি পাঠানো হয় ২০০৯ সালের ৯ সেপ্টেম্বর।

    ওই বছরের ১৭ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টারে গ্রামীণ ব্যাংক নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মন্তব্য উদ্ধৃত করে প্রকাশিত খবরের প্রসঙ্গ টানা হয়েছে।

    সেখানে বলা হয়েছে, “বাংলাদেশের একটি শীর্ষস্থানীয় দৈনিকে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন বিষয়ে আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। সব সংবাদপত্রই একই ধরনের সংবাদ ছেপেছে। এটি প্রধানমন্ত্রী হাসিনার জাতীয় সংসদে দেওয়া বক্তব্যের ওপর। আমার নাম উল্লেখ করা না হলেও প্রতিবেদনের উল্লেখযোগ্য অংশ আমাকে নিয়েই।

    “সম্ভব হলে আমার সম্পর্কে তার ভয়ঙ্কর মনোভাব দূর করার উপায় বের করুন। আমি আপনাকে শান্তির দূত হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। তা না হলে এটা ভয়াবহ রূপ নেবে। প্রধানমন্ত্রী হাসিনা জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের সভায় যোগ দিতে নিউ ইয়র্কে আসবেন এবং তখন সম্ভবত সেক্রেটারি এইচ (হিলারি) এর সঙ্গে তার দেখা হবে।”

    মেইলের নিচে ডেইলি স্টারের প্রতিবেদনটি তুলে দেওয়া হয়।

    ‘ইউনূস ও হাসিনার চলমান বিরোধ’ শিরোনাম দিয়ে মেলান মেইলটি পাঠান হিলারিকে।

    ২০ সেপ্টেম্বর এর জবাবে হিলারি লেখেন, “আগামীকাল ইউনূসের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। আমরা হিলটন ফাউন্ডেশন নিয়ে কথা বলব। তিনি আমার সঙ্গে সেখানে দেখা করতে চান। সেখানে আমি বিষয়টি সম্পর্কে আরো জানব।”

    পরদিন মেলান হিলারিকে জবাবে লেখেন, “আমি ইউনূসের সঙ্গে কথা বলেছি। উনি (প্রধানমন্ত্রী) সবকিছু কঠিন করে তুলছেন। স্বাস্থ্য বিষয়ক প্রকল্প নিয়ে আপনাদের মধ্যে যে আলোচনা হয়েছে সে ব্যাপারে সরকারের সায় মেলেনি।

    “উনি আশা করছেন, উনার যে রাজনীতিতে কোনো আগ্রহ নেই, সে ব্যাপারে তাকে (প্রধানমন্ত্রী) আশ্বস্ত করার পথ পাওয়া যাবে এবং প্রধানমন্ত্রী গ্রামীণের মতো তাকেও দেশগড়ার কাজে লাগাতে পারবেন। এখানে ব্যক্তিগত বিরোধিতার যে গভীরতা আছে তা উনি (ইউনূস) পরিমাপ করতে পারছেন না। অগ্রগতি খুবই খারাপ।”

    নরওয়ের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন এনআরকে ২০১০ সালের ৩০ নভেম্বর ‘কট ইন মাইক্রোক্রেডিট’ নামে প্রচারিত প্রামাণ্যচিত্রর ওপর ভিত্তি করে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমে সংবাদ প্রকাশের বিষয়টিও উঠে এসেছে হিলারি-ইউনূস মেইল চালাচালিতে।

    বয়সসীমা অতিক্রান্ত হওয়ার কারণ দেখিয়ে ২০১১ সালে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে ইউনূসকে অব্যাহতি দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। এর বিরুদ্ধে আইনি লড়াই চালিয়েও হেরে যান ইউনূস।

    • Hasina hints at Muhammad Yunus’s involvement in anti-Bangladesh propaganda
      http://bdnews24.com/bangladesh/2015/09/09/hasina-hints-at-muhammad-yunuss-involvement-in-anti-bangladesh-propaganda

      Prime Minister Sheikh Hasina has alluded to former Grameen Bank managing director Muhammad Yunus to say he was agitated by the loss of his ‘petty post’ and ran a propaganda campaign against the government.

      She said this in Parliament on Wednesday while responding to an MP’s question on whether ‘any superpower’ was behind Bangladesh’s exclusion from the US’ renewed list of countries with Generalised System of Preference (GSP) facility.

      “Not any superpower but some domestic evil forces ran a propaganda campaign against Bangladesh when their interests were hurt.

      “Unfortunately, one of them was Bangladesh’s prime minister and the leader of the opposition. That person is not in any of those positions now, but leads a political party,” Hasina said, hinting at BNP Chairperson Khaleda Zia.

      Hasina said the political leader had written to the US government suggesting the suspension of Bangladesh’s GSP facilities.

      “That person also wrote an article in a little-known Washington-based newspaper to tarnish Bangladesh’s image.”

      Without naming anyone, Hasina said, “Another person did the same for a post. A bank’s MD, after losing his position following a legal battle, became so furious that he started spreading canards against the government.”

      E-mails, made public recently, between Yunus and former US secretary of state Hillary Clinton showed that he had desperately solicited the latter’s help to regain his control over Grameen Bank.

      “The BNP, Jamaat and that bank’s sacked MD tried many times to damage Bangladesh’s image, but they failed to thwart its progress,” Hasina said.

      “They also tried to stop the Padma Bridge construction without any reason. But they have failed in that too. We have started building this bridge on our own.”

      Citing media reports on lobbyists being recruited in the US to stop the war crimes trials in Bangladesh, she said, “The Jamaat and BNP are up with their attempts to smear the country’s image by spreading canards and hiring lobbyists.”

      She said these ‘traitors were determined to carry out their plans anyhow’. “Still, we have tried the war criminals and executed the (court’s) verdicts.”

      The prime minister said she had also received phone calls from some influential people from abroad who asked her not to execute the war criminals’ verdicts.

      She reiterated her position on continuing with the trials of the 1971 war criminals despite all hurdles.

      Hasina said ‘wheeler-dealers were not patriots and lacked a sense of responsibility’. “They only know how to hurt Bangladesh through looting, corruption, murders and plotting.”

      “I hope they won’t be able to do that in future because Bangladesh’s people are now more aware.”

      Returning to the issue of GSP facilities, the prime minister said during her party’s tenure in power US investment in Bangladesh had increased.

      “The US should remember this. Their total investment in Bangladesh rose to $1.2 billion during Awami League government’s tenure from $25 million in 1996.”

      “We had created that opportunity for them and now the US has an investment around $2 billion in Bangladesh.”

      She, however, added the lack of GSP facilities was not hurting the country’s readymade garment sector.

      She said, without any GSP facility, Bangladesh was currently exporting goods to the US markets by paying tax of around $850 million annually.

      “If we had the GSP, we would’ve got benefits of only around $25 million by exporting a small volume of goods.”

      The GSP was not very lucrative for Bangladesh, but it was very important for the country’s image, she added.

      “We possibly could have improved. We were obstructed, but could not be stopped. We have managed to continue the development.”

      Hasina expressed the hope that Bangladesh would get the preferential trade facility back by implementing the action plan provided by the US in 2013.

      The Obama administration revoked the GSP trade benefits in mid-2013 after the Rana Plaza collapse and Tazreen Fashions fire, which left more than 1,200 people dead.

      It renewed the facility for 122 countries, excluding Bangladesh, last month.

      The US said Bangladesh needed to do more to support the readymade garment workers’ rights and fight unfair labour practices to regain the benefit.

      The prime minister on Wednesday said her government in three phases informed the US of the progresses in implementing the action plan.

      “The US government has expressed satisfaction and urged to continue the ongoing initiatives.”

      She said much of the action plan had been implemented, while significant progress was made in other areas.

      Hasina added that, as part of the plan, factory inspectors were appointed, 3,375 of 3,685 garment factories were inspected and 34 of them were shut down.

      Among other measures, the government nearly finalised the rules of the Labour Act and took initiatives to formulate the EPZ Labour Act.

      পদ হারিয়ে ব্যাংক এমডির অপপ্রচার: প্রধানমন্ত্রী

      http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1024203.bdnews

      গ্রামীণ ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুহাম্মদ ইউনূসের দিকে ইঙ্গিত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মামলায় একটি ব্যাংকের সামান্য এমডি পদ হারিয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে সরকারের বিরুদ্ধে সমানে অপপ্রচার চালিয়েছেন তিনি।

      যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি পণ্যের জিএসপি সুবিধা ফিরে না পাওয়ার পিছনে ‘অন্য কোনো পরাশক্তির’ ইন্ধন আছে কি না- এক সংসদ সদস্যের এ প্রশ্নের জবাবে বুধবার জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন।

      তিনি বলেন, “কোনো পরাশক্তি নয়, বরং কিছু অপশক্তি; দেশের বাইরের নয়, বরং দেশের অভ্যন্তরের তাদের কারো কারো ব্যক্তি স্বার্থে আঘাত লাগায় বাংলাদেশের বিরুদ্ধে তারা অপপ্রচার চালায়। আর অত্যন্ত দুঃখের বিষয়, এই বাংলাদেশে যিনি এক সময় প্রধানমন্ত্রী ছিলেন, বিরোধী দলের নেতা ছিলেন। অবশ্য এখন এ ধরনের কোনো পদে নেই কিন্তু একটি দলের নেতা।

      “সেই দলের নেতা যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কাছে চিঠি দিয়ে জিএসপি যাতে বন্ধ হয় তার আবেদন করেছিলেন। তিনি ওয়াশিংটনের কোনো এক অখ্যাত পত্রিকায় একটি প্রতিবেদনও প্রকাশ করেছিলেন, যাতে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়।”

      শেখ হাসিনা বলেন, “বিএনপি-জামায়াত আর ব্যাংকের এমডি মিলে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্নের অনেক চেষ্টা ও অপকর্ম করেছে কিন্তু অগ্রযাত্রা বন্ধ করতে পারেনি। অহেতুক বিনা কারণে পদ্মা সেতু নির্মাণ বন্ধ করতে চেয়েছিল।

      “কিন্তু তারা সেতু নির্মাণ ঠেকাতে পারেনি, আমরা নিজেরাই এই সেতু নির্মাণ করছি।”

      কারও নাম উল্লেখ না করে তিনি বলেন, “কোনো কোনো ব্যক্তি হয়তো একটি পদের জন্য। একটি ব্যাংকের সামান্য এমডি পদটি মামলা করে হারনোর পরে তিনি এতই ক্ষিপ্ত হয়ে যান যে সেখানে সরকারের বিরুদ্ধে সমানে অপপ্রচার চালান।”

      সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনের ফাঁস হওয়া ই-মেইলে মুহাম্মদ ইউনূসের মেইলও পাওয়া গেছে, যাতে গ্রামীণ ব্যাংকে পদ ফিরে পেতে হিলারির হস্তক্ষেপ কামনা করতে দেখা গেছে তাকে।

      যুদ্ধাপরাধের বিচার বন্ধে যুক্তরাষ্ট্রে লবিস্ট নিয়োগের খবরের প্রসঙ্গ তুলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “দেশের স্বাধীনতা বিরোধিতাকারী হানাদার পাকিস্তানী বাহিনীর দোসর জামায়াতে ইসলামী ও বিএনপি অর্থ দিয়ে লবিস্ট রেখে বিদেশে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার পরিচালিত করছে। বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে বিএনপি-জামায়াত উঠে পড়ে লেগেছে।

      “কথায় বলে, ঘরের শত্রু বিভীষণ। কোনো পরাশক্তি নয়, ঘরের শত্রু বিভীষণ অপশক্তি বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করেছি। রায়ও কার্যকর করেছি।”

      আরেক প্রশ্নের জবাবে যুদ্ধাপরাধীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর থেকে বিরত থেকে বিদেশ থেকে ফোন পাওয়ার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, “অনেক বড় বড় হোমড়া চোমড়ারাও টেলিফোন করেছিল, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায় যেন কার্যকর না হয়। ‍ভালো কাজে তাদের কোনো ফোন না পেলেও এ কাজে ফোন পেয়েছি, কথাও বলেছি।”

      তবে যেখানেই যত ষড়যন্ত্র হোক, যত বাধাই আসুক না কেন একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারে অনড় অবস্থান তুলে ধরে তিনি বলেন, “আমি জাতির পিতার কন্যা। আপনজন সবই হারিয়েছি। সব হারিয়ে ‍শুধু বাংলাদেশের ‍মানুষের জন্য আমরা রাজনীতি।

      “বিচার আমরা বাংলার মাটিতে করেছি। ওই বিচার চলবে এবং চলতে থাকবে, তাতে যা ই আসুক না কেন আমি জীবনের মায়া করি না। জীবনের পরোয়া করে আমি চলি না। জীবনকে চ্যালেঞ্জ রেখেই বাংলার মাটিতে রাজনীতি করে যাচ্ছি।”

      ‘দালালদের কোনো দেশপ্রেম ও কর্তব্যবোধ নেই’ মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, “কেবল লুটপাট, দুর্নীতি, মানুষ খুন, ষড়যন্ত্র করা- এর সাথে জড়িত তারা বাংলাদেশের বহু ক্ষতি করেছে। ইনশায়াল্লাহ তারা ভবিষ্যতে আর কোনো ক্ষতি করতে পারবে না। কারণ বাংলাদেশের জনগণ এখন সচেতন।”

      আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “ষড়যন্ত্রকারী যারা অবশ্যই তাদের বিচারও বাংলার মাটিতে হবে।”

      জিএসপি নিয়ে আলোচনায় আওয়ামী লীগ সরকার আমলে বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের বিনিয়োগ বৃদ্ধির কথা তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।

      তিনি বলেন, “যুক্তরাষ্ট্রের এটা মনে রাখা দরকার। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার আগে বাংলাদেশে তাদের বিনিয়োগ ছিল মাত্র ২৫ মিলিয়ন ডলার। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে পর সেটা ১ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হয়।

      “এখন ২ বিলিয়নের মত তাদের বিনিয়োগ এখানে রয়েছে। আমরাই তাদের সেই সুযোগ করে দিয়েছি।”

      জিএসপি সুবিধা না পাওয়ায় তৈরি পোশাক খাতে তেমন প্রভাব পড়ছে না মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, “প্রতি বছর আমরা আমেরিকাকে সাড়ে আটশ মিলিয়ন ডলার ট্যাক্স দিয়ে থাকি। যেটাতে আমরা জিএসপি সুবিধা পেতাম তার রপ্তানি কিন্তু খুবই কম। বড় জোর ২৫ মিলিয়ন ডলারের মত জিএসপি সুবিধা পাওয়া যেত।”

      তবে জিএসপি সুবিধা বন্ধ হওয়া বাংলাদেশের ভাবমূর্তির জন্য ক্ষতিকর ও দুর্নামের বলে মন্তব্য করেন তিনি।

      “হয়তো আমরা আরো ভালো করতে পারতাম। সেখানে বাধাগ্রস্ত হয়েছে। কিন্তু আমাদের থামিয়ে রাখতে পারেনি। অগ্রগতি ধরে রাখতে পেরেছি,” বলেন প্রধানমন্ত্রী।

      লিখিত প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, চলতি বছরে যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বের ১২২টি দেশকে জিএসপি সুবিধা দিয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশকে দেয়নি।

      তিনি বলেন, তৈরি পোশাক ও চিংড়ি খাত এবং ইপিজেডভুক্ত কারখানায় শ্রমিক অধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ করে ২০১৩ সালের ২৭ জুন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের জিএসপি সুবিধা স্থগিত করে। পরে এ সুবিধা পুনর্বহালে বাংলাদেশ সরকারকে বিভিন্ন শর্ত সংবলিত ‘বাংলাদেশ অ্যাকশন প্ল্যান-২০১৩’ বাস্তবায়নের পরামর্শ দেয়।

      এই কর্ম পরিকল্পনা বাস্তবায়নের অগ্রগতি তিন দফায় যুক্তরাষ্ট্রকে জানানো হয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যুক্তরাষ্ট্র সরকার এই বাস্তবায়নের অগ্রগতিতে সন্তোষ প্রকাশ করেছে এবং চলমান কার্যক্রমকে এগিয়ে নিতে তাগিদ দিয়েছে।

      কর্ম পরিকল্পনার অধিকাংশ বিষয় বাস্তবায়ন হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, অবশিষ্ট বিষয়গুলোতে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে। বিশেষ করে কারখানা পরিদর্শক নিয়োগ, ৩ হাজার ৬৮৫টি গার্মেন্ট কারখানার মধ্যে ৩ হাজার ৩৭৫টিতে অগ্নি, বৈদ্যুতিক ও স্ট্রাকচারাল বিষয় পরিদর্শন করে ত্রুটিপূর্ণ ৩৪টি কারখানা বন্ধ করে দেওয়া, বিদ্যমান শ্রম আইনের বিধি প্রায় চূড়ান্ত করা, ইপিজেড শ্রম আইন প্রণয়নের উদ্যোগ গ্রহণ ইত্যাদি।

      ওই কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে জিএসপি সুবিধা ফিরে পাওয়া সম্ভব হবে বলে আশা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী।

  2. ‘প্রভাব খাটিয়ে’ ইউনূসকে অর্থ দিয়েছিলেন হিলারি

    পররাষ্ট্রমন্ত্রী পদের প্রভাব খাটিয়ে হিলারি ক্লিনটন তার ঘনিষ্ঠ নোবেলজয়ী বাংলাদেশি মুহাম্মদ ইউনূসকে এক কোটি ৩০ লাখ ডলারের তহবিল জুগিয়েছিলেন বলে যুক্তরাষ্ট্রের একটি সংবাদপত্র দাবি করেছে।

    ওয়াশিংটনভিত্তিক দি ডেইলি কলার সোমবার তাদের অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করে বলেছে, ক্নিনটন ফাউন্ডেশনের অন্যতম দাতা ইউনূসকে রাষ্ট্রীয় অর্থ জোগানোর মধ্য দিয়ে হিলারি স্বার্থের সংঘাত ঘটিয়েছেন।

    গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইউনূসের সঙ্গে ক্লিনটন পরিবারের ব্যক্তিগত ঘনিষ্ঠতা রয়েছে। ২০০৯ সালে হিলারি পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকার সময় তাকে যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মানে ভূষিত করা হয়।

    গ্রামীণ ব্যাংককে ইউরোপের দেওয়া তহবিল সমানোর অভিযোগ উঠার প্রেক্ষাপটে বয়সসীমা অতিক্রমের কারণ দেখিয়ে ২০১১ সালে ইউনূসকে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে সরানোর পর হিলারির ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া এসেছিল।

    ইউনূসকে সরানোর কারণে অন্য দেশ থেকে চাপ এসেছিল বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পরে বিভিন্ন সময়ে বলেছেন। গত বছর হিলারির ফাঁস হওয়া ই-মেইলেও তার এই তদ্বির চালানোর বিষয়টি প্রকাশ পায়।

    অব্যাহতি দেওয়ার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আইনি লড়াই চালিয়ে ইউনূস হেরে যাওয়ার পর থেকে গ্রামীণ ব্যাংকের কর্তৃত্ব নিয়ে আওয়ামী লীগ সরকারের সঙ্গে ইউনূসের শীতল সম্পর্ক চলছে।

    এই প্রেক্ষাপটে হিলারি যুক্তরাষ্ট্রের আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেটিক দলের প্রার্থী হতে অনেকটা এগিয়ে যাওয়ার মধ্যে তার প্রতিদ্বন্দ্বী রিপাবলিকান পার্টিঘেঁষা ডেইলি কলার এই অভিযোগ তুলল।

    প্রতিবেদনে বলা হয়, ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের পদ হারানোর পর যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক তার নানা প্রতিষ্ঠানকে ইউএসএআইডিসহ ১৮টি সংস্থার মাধ্যমে অনুদান, ঋণ কিংবা কাজ হিসেবে রাষ্ট্রীয় ১ কোটি ৩০ লাখ ডলার দেওয়া হয়েছে।

    এ্ বিষয়ে গ্রামীণ ফাউন্ডেশন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিক্রিয়া চেয়েও পাওয়া যায়নি বলে ডেইলি কলার জানিয়েছে। হিলারির প্রচার দল কিংবা ক্লিনটন ফাউন্ডেশনও কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

    ক্লিনটন ফাউন্ডেশনের তথ্য উদ্ধৃত করে সংবাদপত্রটি বলেছে, ইউনূস এক লাখ থেকে তিন লাখ ডলার দান করেন ক্লিনটন ফাউন্ডেশনকে।

    ইউএসএআইডি থেকে আরও ১ কোটি ১০ লাখ ডলার ১১টি প্রতিষ্ঠান পেয়েছিল জানিয়ে ডেইলি কলার বলেছে, “এই সবগুলো প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ইউনূসের ব্যবসায়িক সম্পর্ক রয়েছে।”

    হিলারি কীভাবে সরকারি পদের সঙ্গে নিজ-সংশ্লিষ্ট ক্লিনটন ফাউন্ডেশনকে মিলিয়ে ফেলেছিলেন, তার উপরই গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে ডেইলি কলারের প্রতিবেদনে।

    এই ধরনের আচরণ উন্নত দেশগুলোতে নিন্দাজনক হলেও সরকারি অর্থের অপব্যয় নিয়ে এফবিআইয়ের তদন্তে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে আসেনি বলে ডেইল কলারের ভাষ্য।

    “যদি ডেইলি কলার এই তথ্যটি পেয়ে থাকে, তাহলে খুব সম্ভবত এফবিআইয়েরও তা পাওয়ার কথা,” বলেন এই সংস্থাটির সাবেক সহকারী পরিচালক রবার্ট হোসকো।

    তবে এই সম্পর্কে এফবিআইয়ের আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া চাইলে তদন্তাধীন বিষয় বলে ডেইল কলারকে এড়িয়ে যায় সংস্থাটি।

    এদিকে ইউনূসের জন্য ক্লিনটনের এই পদক্ষেপে হিলারি স্বার্থের সংঘাত ঘটিয়েছেন দাবি করেছেন রক্ষণশীল সমর্থকদের গ্রুপ সিটিজেন্স ইউনাইটেডের নেতা ডেভিড বশিয়ে।

    রিপাবলিকান এই নেতা বলেছেন, “পররাষ্ট্র দপ্তরের কাজ এবং ক্লিনটন ফাউন্ডেশনের ডোনারদের সুবিধা দিয়ে নিজের স্বার্থ উদ্ধারের এই কাজটি একটি বড় উদাহরণ (স্বার্থের দ্বন্দ্বের)। ই-মেইল ফাঁসের সঙ্গে এটারও তদন্ত করতে পারে এফবিআই।”

    হিলারির প্রভাবে ১৮টি অনুদান ও ঋণ ইউনূস সংশ্লিষ্ট গ্রামীণ ফাউন্ডেশন ও গ্রামীণ আমেরিকাকে দেওয়া হয়েছিল বলে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের ব্যয় সংক্রান্ত বিভাগের তথ্যে দেখা যায়।

    এই বিষয়ে কথা বলতে চাইলে ইউএসএআইডির মুখপাত্র রাফায়েল কুক ডেইলি কলারকে বলেন, এই বিষয়ে সামগ্রিক তথ্য দেওয়ার মতো কেউ এই মুহূর্তে নেই।

    ডিপার্টমেন্ট অফ ট্রেজারি ৬ লাখ ডলার গ্রামীণ আমেরিকাকে তহবিল হিসেবে দিয়েছিল বলে ডেইলি কলারের তথ্য। তবে সে বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি এই দপ্তরের মুখপাত্র।

    ‘স্মল বিজনেস অ্যাডমিনস্টেশন’ ২০১১ সাল থেকে গ্রামীণ আমেরিকাকে ৯ লাখের বেশি ডলার অনুদান দিয়েছে।

    ডেইলি কলার বলেছে, যে রাজ্যে হিলারি সিনেটর সেই নিউ ইয়র্কে প্রতিষ্ঠান চালাতে ও কর্মীদের বেতন দিতে এই অনুদান ব্যবহার হয়।

    http://bangla.bdnews24.com/economy/article1138511.bdnews

    EXCLUSIVE: Disgraced Clinton Donor Got $13M In State Dept Grants Under Hillary

    Hillary Clinton’s Department of State awarded at least $13 million in grants, contracts and loans to her longtime friend and Clinton Foundation donor Muhammad Yunus, despite his being ousted in 2011 as managing director of the Bangladesh-based Grameen Bank amid charges of corruption, according to an investigation by The Daily Caller News Foundation.

    The tax funds were given to Yunus through 18 separate U.S. Agency for International Development (USAID) award transactions listed by the federal contracting site USAspending.gov.

    They highlight how Clinton mixed official government business with Clinton Foundation donors. Yunus gave between $100,000 to $300,000 to the foundation, according to the Clinton Foundation website.

    Groups allied to Yunus received an additional $11 million from USAID, according to the contracting website. Yunus had business relationships with all of them.

    For more than 30 years, Yunus oversaw the distribution of Grameen Bank “micro-credit loans” to the poor to set up small businesses. He was eventually regarded as a saint among many anti-poverty activists.

    But he also got a big helping hand over the three decades Bill and Hillary Clinton actively promoted him and repeatedly showcased him as a celebrity figure at major Clinton Foundation functions.

    The former president is credited with launching a personal lobbying campaign to press the Nobel Committee to award its peace prize to the Yunus. It did so in 2006.

    Secretary Clinton’s mixing of official work with foundation donors is reportedly the focus of a second, less publicized FBI public corruption investigation of the former secretary of state. The more widely known FBI probe focuses on her use of a private email server located in her New York residence to conduct official government business.

    “Presumably if The Daily Caller News Foundation has this information, then the FBI has it,” said Robert T. Hosko, former assistant director of the Bureau’s criminal division. “Certainly, the FBI would want to know the nature of these relationships,” he told TheDCNF.

    “That’s precisely the sort of thing that the FBI would be looking at and should be looking at to determine whether there’s an official act of corruption,” he said.

    The FBI declined comment, saying, “we generally do not comment on whether or not we’re conducting a particular investigation.”

    Clinton was not shy about using her post as America’s chief diplomat on behalf of Yunus and Grameen Bank when the Bangladesh government announced an investigation into multiple allegations of financial mismanagement by the political activist.

    Clinton rocked the Bangladeshi political establishment when she publicly intervened on behalf of Yunus in 2011 as the South Asian government prepared to launch its probe.

    With Bangladesh Foreign Minister Dipu Moni — also a woman — at her side, Clinton said at a State Department news conference that “we have expressed directly to the government our concern and hope that the Grameen Bank … is able to continue to function productively on behalf of the people of Bangladesh.”

    Emails from Clinton’s private server disclose that Bill and Hillary Clinton closely monitored the Bangladesh government’s investigation of Yunus, who is a high-profile fixture at most of the Clinton Foundation’s major gatherings. The foundation features him at 37 places on its website.

    David Bossie, president of the conservative activist group Citizens United and a long-time Clinton critic, called for the FBI to look into possible conflicts of interest linked to the long association between Yunus and the Clintons.

    “The mixing of State Department and U.S. government business with Clinton Foundation donors and interests is a prime example of what the FBI could be investigating in addition to the private email server setup.” Bossie told TheDCNF.

    The Clinton-Yunus relationship dates from Bill Clinton’s tenure as Arkansas governor, when he and Hillary fell in love with the concept of micro-credit loans. Yunus, then a Bangladesh economist, has championed the micro-credit cause through Grameen Bank since 1978.

    Things went terribly wrong for Yunus and Grameen Bank about five years ago when a number of independent authorities decided to take a closer look at the bank and the 50 inter-related enterprises Yunus created, most of which operate in Third World countries where there is little financial oversight.

    Former Secretary Clinton and her husband closely followed Yunus’ mounting problems. A June 11, 2012 email from Amitabh Desai, the foundation’s foreign policy director, for example, alerted Hillary Clinton of a Yunus response to the Bangladesh investigation.

    “In case you haven’t seen it already, WJC wanted HRC and you to see this,” Desai said in the email routed through Cheryl Mills, Hillary Clinton’s chief of staff, and Huma Abedin, her deputy chief of staff. “WJC” is Bill Clinton and “HRC” is Hillary Clinton.

    Hosko said the email “is potentially an indicator of the co-mingling of state business with the Clinton Foundation. It is very concerning.”

    Clinton’s aid to Yunus also included 18 grants, contracts and loans awarded to two of his America-based foundations, the Grameen Foundation USA and Grameen America, according to USASpending.gov.

    The awards, totaling $13 million, were issued by the U.S. Agency for International Development, the development arm of the State Department, beginning when Clinton became secretary of state. Another $11 million in federal funds went to organizations allied with Yunus.

    When asked to explain the Yunus grants and loans, USAID Spokesman Raphael Cook said the agency didn’t have the “manpower” to respond to questions about the transactions.

    Other federal agencies also opened their coffers to Yunus after Clinton entered the administration. The Department of Treasury awarded a $600,000 grant directly to Grameen America under a fund designed to boost financial institutions in community development. A Treasury Department spokesman declined to provide any details beyond the fact the funds were for activities in New York.

    A series of Small Business Administration grants to Grameen America also began in July 2011, totaling $934,000. Those grants were for “salaries and expenses” for the foundation to operate its New York offices where Clinton once a U.S. senator.

    In addition to being revered among anti-poverty activists, Yunus was popular among elements of the Bangladesh military. When a group of generals overthrew the Bangladesh government in January 2007, Yunus considered establishing a new political party to lead the new military-led government, thereby legitimizing the coup.

    The BBC reported April 7, 2007, that “the army would sponsor Nobel Peace prize winner Dr. Muhammad Yunus as a new leader.”

    Sabir Mustafa, the BBC’s Bengali Service editor, added that “Dr. Yunus is still viewed as a credible candidate by elements in the army.” In the end, Yunus opted not to create the new party.

    The Grameen Foundation, USA did not respond to a request for comment from TheDCNF. Neither did spokesmen for the Clinton presidential campaign or the Clinton Foundation.

    http://dailycaller.com/2016/04/17/exclusive-disgraced-clinton-donor-got-13m-in-state-dept-grants-under-hillary/#ixzz46EjSR5rF

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: