Skip to content

ইউনূসমিতি ৩

June 24, 2013

৭ মার্চ ২০১১, সোমবার

এশব্দটির জন্মই হত না যদি আমি ছোট্ট পোস্টের চেয়েও বেশি কিছু না ভাবতাম – আজ সারাদিন ভাবছিলাম নিঃশব্দ পোস্টের কথা, ইউনূসকে নিয়ে একেবারে নিঃশব্দ একটি পোস্ট, কিন্তু নিঃশব্দ পোস্টেরও তো একটা শিরোনাম চাই – তখনই এই শব্দটি আমার মাথায় আঘাত করল – এই একটি শব্দ, ব্যাস আর কিছু নয়। অর্থ কী হবে শব্দটির, শুধু একটি ইঙ্গিত : নিরলস উচ্চারণ করতে করতে একই ভাবে উচ্চারণ করুন ঋণলস। আমাদের মধ্যে কেউ কেউ নিরলস পরিশ্রম করেন আর ইউনূস শয়নে স্বপনে নিশি জাগরণে ঋণ দাগেন। ওদেরকে বলি কর্মপিশাচ আর ইউনূসকে বলব ঋণপিশাচ। এ এক বিকট চরিত্র, যে ভাবে, ঋণে ঋণে সয়লাব করে দিয়ে মানুষের সমাজ থেকে দারিদ্র ছিনিয়ে নিয়ে তাকে রেখে দেবেন যাদুঘরে – বোতলে ভূত আটকে রাখার মতো – মন্ত্র থাকবে ওর হাতে, ওই ঋণপিশাচের হাতে, তাকে অখুশি করলে ওই বোতলের মুখ খুলে দারিদ্র ছড়িয়ে পড়বে সারা পৃথিবীর বুকে।

http://nirmaaan.com/blog/masudkarim/6379

=================================

২৪ জানুয়ারি ২০১৩, বৃহস্পতিবার

‘গ্রামীণ ব্যাংকের ৩০ হাজার কোটি টাকার হদিস নেই’ — এখবর যদি সত্যি হয়, তাহলে বলতেই হবে অনেক আগেই আমরা ঠিক গর্তেই আলো ফেলেছিলাম। এখন সেখান থেকে সাপ বের হচ্ছে।

‘গ্রামীণ ব্যাংকের ৩০ হাজার কোটি টাকার হদিস নেই’

বুধবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে বৈঠক শেষে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি সংবাদিকদের এ কথা জানান।

মোজাম্মেল হক বলেন, “গ্রামীণফোন থেকে পাঠানো ৩০ হাজার কোটি টাকা গ্রামীণ টেলিকমে গেছে।

“ওই টাকা গ্রামীণ ব্যাংকে আসার কথা ছিল। এর সুবিধা ভোগ করার কথা ছিল সদস্যদের। কিন্তু সে টাকা গ্রামীণ ব্যাংকে না এসে গেল কোথায়?”

দেশের সবচেয়ে বড় মোবাইল ফোন সেবাদাতা গ্রামীণফোনের ৩৪ দশমিক ২ শতাংশ শেয়ারের মালিক গ্রামীণ ব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান গ্রামীণ টেলিকম।

ওই অর্থ কোথায় গেছে- জানতে চাওয়া হলে গ্রামীণ ব্যাংক চেয়ারম্যান বলেন, “শোনা কথা, গ্রামীণ টেলিকম থেকে গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্ট নামে একটি আলাদা প্রতিষ্ঠান করা হয়েছে। ওই টাকা সেখানেই আছে।”

গ্রামীণ টেলিকম ও গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্ট দুটো প্রতিষ্ঠানেরই চেয়ারম্যান মুহাম্মদ ইউনূস বলে জানান মোজাম্মেলন হক।

গ্রামীণ ব্যাংকেরও ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছিলেন নোবেলজয়ী ইউনূস। কিন্তু বয়সসীমা অতিক্রান্ত হওয়ায় তাকে অব্যাহতি দেয় সরকার।

গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্ট গ্রামীণ ব্যাংকে কোনো প্রতিবেদন পাঠায় না বলেও জানান মোজাম্মেল হক।

তিনি বলেন, “অর্থ কোথায় গেল তা গ্রামীণ ব্যাংক কমিশন তদন্ত করছে। তদন্ত শেষে তাদের প্রতিবেদনে বিষয়টি জানা যাবে।”

২০১১ সালে কেন্দ্রীয় ব্যাংক অব্যাহতি দেয়ার পর তার বিরুদ্ধে আইনি লড়াইয়ে নেমেছিলেন ইউনূস। তাতে হেরে গিয়ে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে সরে দাঁড়ান তিনি।

এরপর নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগ দিতে সরকারের পক্ষ থেকে একটি সাব-কমিটি করা হয়। তবে আদালতে সাব-কমিটির বিরুদ্ধে মামলা হওয়ায় তার কার্যক্রম থেমে যায়।

ইউনূসকে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া আন্তর্জাতিক মহলে ব্যাপক আলোচনার জন্ম দেয়। যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশ এতে উষ্মা প্রকাশ করে

================================

২৭ মার্চ ২০১১, রবিবার

এখন ইউনূসই বলছেন গ্রামীণ ব্যাংকে বাংলাদেশ সরকারের অংশীদারিত্ব ২৫%, তাহলে কি গ্রামীণ ব্যাংকের ওয়েবসাইটে আপডেট হয়নি, ব্যাংকের ওয়েবসাইট অনুযায়ী আমরা তো জানি ১০%, দেখুন এখানে

Grameen Bank has always been on good terms with the government and has viewed the government as the bank’s partner from the start. The government holds a 25% share of the bank, and has always been a strong supporter of the bank in its fight against poverty.

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে দেয়া সাম্প্রতিক সাক্ষাৎকারে তিনি সরকারের ২৫% শেয়ারের কথা বলেছেন। একটা এত বড় এত বিখ্যাত প্রতিষ্ঠানে কার কত শেয়ার সেটাই যদি নিশ্চিতভাবে জানা না যায়, তাহলে আর কী আলোচনা আমরা করব?

====================================

৪ এপ্রিল ২০১১, সোমবার

জগদীশ ভগবতীর মতো নামী ‘বিশ্বায়ন’ বিশেষজ্ঞ অর্থনীতিবিদ ইউনূস, ক্ষুদ্রঋণ, হাসিনা, ম্যাক্রো অর্থনীতি ও বাংলাদেশ নিয়ে এত সংক্ষিপ্ত একটি ‘মতামত’ না দিয়ে আরো বিশদ একটা লেখা লিখলে আমরা উপকৃত হতাম। শুধু ইলা ভাটের নাম ‘ক্ষুদ্রঋণ’এর প্রবর্তক হিসেবে ঘোষণা করে ইউনূসের এত দিনের গ্রামীণ ব্যাংকের ফলিত প্রচেষ্টাকে খাটো করা যাবে না। তারপর তার একথার ঠিক অর্থ আমি বুঝতে পারিনি

Unfortunately, Bangladesh’s most influential economists, and hence the country’s policies, remain mired in the growth-killing socialist economics that they learned at Cambridge and the London School of Economics a half-century ago.

বাংলাদেশের অর্থনীতি বেশির ভাগ সময়ে ছিল সামরিক শাসক ও সইফুর রহমানের হাতে, বাংলাদেশে একমাত্র হাসিনার গত সরকারের পাঁচ বছরে অর্থনীতি ছিল অর্থনীতিবিদ কিবরিয়ার হাতে, এখন আছে একবারেই আমলা বিবৃতিপ্রিয় একজন মুহিতের হাতে। এরা কেউই কি growth-killing socialist অর্থনীতিবিদ?

তবে ভগবতী একটা গুরুত্বপূর্ণ কথা বলেছেন, ম্যাক্রো অর্থনীতির সংস্কার ছাড়া শুধু ক্ষুদ্রঋণ দিয়ে গ্রামীণ মানুষ বা দরিদ্র মানুষের অবস্থা উন্নতি করা কোনোভাবেই সম্ভব নয়। হাসিনা সরকারের কাছে ম্যাক্রো অর্থনীতির সংস্কার একটা বড় চ্যালেঞ্জ, শুধু নিজের একজন অর্থনীতিবিদ অর্থ উপদেষ্টা দিয়ে সেকাজ হবার নয়। বাংলাদেশের অর্থ মন্ত্রণালয়কে অর্থনীতিবিদদের দ্বারা গঠিত একটা উপদেষ্টা পরিষদ দিয়ে পরিচালনা করা খুবই জরুরি হয়ে পড়েছে।

এখানে পড়ুন : Grameen vs Bangladesh।লেখাটির বাংলা সংস্করণ : গ্রামীণ বনাম বাংলাদেশ

====================================

৫ এপ্রিল ২০১১, মঙ্গলবার

আপডেট : ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের আদেশ আপিল বিভাগে বহাল

ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের পদ থেকে অব্যাহতির বিষয়ে হাইকোর্টের আদেশ বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ।

ইউনূসের অব্যাহতির বিরুদ্ধে করা রিট এর আগে হাইকোর্ট খারিজ করলে তার বিরুদ্ধে গত রোববার করা লিভ টু আপিলও মঙ্গলবার খারিজ করে দেন আপিল বিভাগ।

মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হকের নেতৃত্বে সাত সদস্যের বেঞ্চ এ শুনানি নেওয়ার পর এ আদেশ দেন।

তবে ড. ইউনূসের পক্ষে গ্রামীণ ব্যাংকের পরিচালন পর্ষদের ৯ জন পরিচালকের করা লিভ টু আপিলের শুনানি গ্রহণের পরেই নির্ধারিত হবে ড. ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে থাকছেন কি না।

ড. কামাল শুনানির পর সাংবাদিকদের বলেন, দুটি লিভ টুআপিল ছিলো একটি ড. ইউনূসের পক্ষে করা সেটি আজ খারিজ হয়েছে। অপরটি করা হয় গ্রামীণ ব্যাংকের ৯ জন পরিচালকের পক্ষে যার শুনানি বুধবার অনুষ্ঠিত হবে।

কোন গ্রাউন্ডে আপিল খারিজ করা হলো তা জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, রায়ের কপি পেলেই তা জানা যাবে।

এর আগে শুনানিতে অংশ নিয়ে ড. ইউনূসের আইনজীবী ড. কামাল হোসেন হাইকোর্টে ড. ইউনূসের করা রিট খারিজ করে দেওয়া আদেশকে আইনগত ভ্রান্তিমূলক আদেশ বলে উল্লেখ করেন।

শুনানিতে ড. কামাল হোসেন আরও বলেন, যে কোনো প্রতিষ্ঠানের কাউকে চাকরিচ্যুত বা অব্যহতি দিতে হলে নোটিশ দিতে হয়, আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দিতে হয়। ইউনূসের ক্ষেত্রে তা হয়নি। সরাসরি অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, হাইকোর্ট বিভাগ কোনো রুল না দিয়ে অ্যাটর্নি জেনারেলের বক্তব্যের ভিত্তিতেই আদেশ দিয়েছেন। কিন্তু অ্যাটর্নির বক্তব্য হলফনামা আকারে আদালতে জমা দেওয়া হয়নি, যা আদালতের জন্য অত্যাবশ্যক।

ভারতের সর্বোচ্চ আদালতের দেওয়া তিনটি রায়কে নজির হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, যে ক্ষেত্রে আইনের প্রশ্ন জড়িত সেখানে রুল না দিয়ে রিট সরাসরি খারিজ করা যায় না। রিটে আইনের অনেক ব্যখ্যা জড়িত তাই রিট সরাসরি খারিজের আবেদন আইন সম্মত হয়নি।

‘এ অবস্থায় হাইকোর্টের দেওয়া আদেশটি আইনগতভাবে ভ্রান্তিমূলক’, বলেন ড. কামাল হোসেন।

তিনি আরও বলেন, ১৯৯৩ সালের গ্রামীণব্যাংকের চাকরি বিধিমালা কেবল কর্মীদের জন্য প্রযোজ্য, ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ কর্মীর সংজ্ঞাভুক্ত নয়। এ পদের নিয়োগ দেয় পরিচালনা পর্ষদ আর কর্মী নিয়োগ দেন ব্যবস্থাপনা

পরিচালক। চাকরি বিধিমালায় ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদটি আলাদাভাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে বলেও জানান ড. কামাল।

তিনি বলেন, এ ক্ষেত্রে অবসরের ৬০ বছরের সময়সীমা কর্মীদের জন্য প্রযোজ্য, ব্যবস্থাপনা পরিচালকের জন্য নয়।

এর আগে ২ মার্চ গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পদ থেকে ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে অব্যাহতির আদেশ দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। এর বিরুদ্ধে পরের দিন ৩ মার্চ ড. মুহাম্মদ ইউনূসও গ্রামীণব্যাংকের নির্বাচিত নয় জন পরিচালক দুটি রিট আবেদন করেন। তিনদিনের শুনানি শেষে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ ৮ মার্চ গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে ড. ইউনূসের অব্যাহতি সংক্রান্ত বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশ চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা দু’টি রিটই খারিজ করে দেন।

এর পরের দিনই এ আদেশের বিরুদ্ধে স্থগিতাদেশ চেয়ে দু’টি আবেদন (সিএমপি) করা হয়। এ আবেদনের উপর ১৫ মার্চ শুনানি শেষে আদালত দু’ সপ্তাহ শুনানি মুলতবি করেন।

এরপর গত ২৯ মার্চ শুনানি শেষে ড. ইউনূসের পক্ষে নিয়মিত লিভ টু আপিল দাখিল করতে বলেন আদালত।

হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে স্থগিতাদেশ চেয়ে ড. ইউনূসের পক্ষে আপিল বিভাগে করা আবেদনের (সিএমপি) ওপর গত ২৯ মার্চ শুনানি নিয়ে ৪ এপ্রিল পুনরায় শুনানির দিন ধার্য করা হয়।

তবে হাইকোর্টের আদেশের কপি পাওয়ার পর ড. ইউনূসের পক্ষে নিয়মিত লিভ-টু-আপিল করার বিষয়টি আদালতে জানানো হলে আদালত মঙ্গলবার শুনানির জন্য ধার্য করেন।

বাংলাদেশ সময় ১৩৪১ ঘণ্টা, এপ্রিল ৫, ২০১১

==================================

৬ এপ্রিল ২০১১, বুধবার

আপডেট : লিভ টু আপিল খারিজের নির্দেশ প্রত্যাহারের আবেদন ড. ইউনূসের

ড. মুহাম্মদ ইউনূসের আপিল আবেদন (লিভ টু আপিল) খারিজ করে দেওয়া আপিল বিভাগের আদেশ প্রত্যাহারের জন্য আবেদন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে সুপ্রিম কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ প্রত্যাহার আবেদন ‘রিকল অ্যাপ্লিকেশন’ জমা দেওয়া হয়েছে বলে বাংলানিউজকে জানিয়েছেন ড. ইউনূসের আইনজীবী ও কামাল হোসেন অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েটস চেম্বারের সদস্য ব্যারিস্টার তানিম হোসেন শাওন।

বুধবার এ আবেদনের ওপর শুনানী অনুষ্ঠিত হবে বলে তিনি জানান।

গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে ড. ইউনূসের দায়িত্ব পালন প্রশ্নে হাইকোর্ট বিভাগের দেওয়া আদেশের বিরুদ্ধে করা লিভ টু আপিল মঙ্গলবার খারিজ করে দেন আপিল বিভাগ।

প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়ারুল হকের নেতৃত্বে সাত সদস্যের বেঞ্চ এ শুনানি নেওয়ার পর এ আদেশ দেন।

এর আগে ২ মার্চ গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পদ থেকে ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে অব্যাহতির আদেশ দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। ৩ মার্চ ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও গ্রামীণব্যাংকের নির্বাচিত নয় জন পরিচালক এর বিরুদ্ধে দুটি রিট আবেদন করেন। ৮ মার্চ হাইকোর্ট দু’টি রিটই খারিজ করে দেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৫৮ ঘণ্টা, এপ্রিল ০৫, ২০১১

==================================

৬ এপ্রিল ২০১১, বুধবার

আপডেট : ড. ইউনূসের আবেদনের শুনানি অবকাশের পর

নোবেল বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন (লিভ টু আপিল) খারিজ করে দেওয়া আপিল বিভাগের আদেশ প্রত্যাহারে করা আবেদনের শুনানি মুলতবি করা হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টের অবকাশ শেষ হওয়ার এক সপ্তাহ পর শুনানির দিন নির্ধারণ করেছেন আদালত।

একই সঙ্গে আদালত ড. ইউনূসের গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে থাকার বৈধতা প্রশ্নে হাইকোর্ট বিভাগের দেওয়া আদেশের বিরুদ্ধে ব্যাংকের নয় পরিচালকের করা আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদনের (লিভ টু আপিল) শুনানিও মুলতবি করা হয়েছে।

বুধবার প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হকের নেতৃত্বে সাত সদস্যের আপিল বিভাগ বেঞ্চ সংক্ষিপ্ত শুনানি শেষে এ আদেশ দেন।

ড. ইউনূসের আইনজীবী ড. কামাল হোসেন জানান, সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন ছুটি শেষ হওয়ার এক সপ্তাহ পর আদালত শুনানির দিন নির্ধারণ করেছেন।

৮ এপ্রিল থেকে ২৩ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি থাকবে সুপ্রিম কোর্ট। সেক্ষেত্রে ২ মে শুনানি অনুষ্ঠিত হতে পারে।

উল্লেখ্য, ড. ইউনূসের পক্ষে করা আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন (লিভ টু আপিল) মঙ্গলবার খারিজ করে দেয় আপিল বিভাগ। এ আদেশ প্রত্যাহারের জন্য ওই দিনই আবদেন করা হয়।

বুধবার শুনানি শুরু হলে আদালত ড. ইউনূসের আইনজীবী ড. কামাল হোসেনের কাছে জানতে চান আজ আপনার শুনানি শেষ করতে পারবেন কি-না। আগামীকাল একজন বিচারপতি ছুটিতে থাকবেন। আজ পুরো শেষ করতে না পারলে ছুটির পরে শুনানি হবে।

তখন ড. কামাল হোসেন বলেন, আজকে শেষ করা সম্ভব নয়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে আদালত ছুটির এক সপ্তাহ পর শুনানির জন্য দিন ধার্য করেন।

এ সময়ের মধ্যে ড. ইউনূস দায়িত্ব চালিয়ে যেতে পারবেন কি-না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ড. কামাল হোসেন বলেন, আপিল বিভাগের আদেশের কপি না পাওয়া পর্যন্ত এ বিষয়ে কিছু বলা ঠিক হবে না।

কি কারণে লিভ টু আপিল খারিজ করে দেওয়া আপিল বিভাগের আদেশ প্রত্যাহারের আবেদন করা হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মঙ্গলবার শুনানিতে আমাদের বক্তব্য শেষ করতে পারিনি বলেই আবেদন করা হয়েছে।

আজকের শুনানিতে ড. ইউনূসের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন, ড. কামাল হোসেন, ব্যারিস্টার রোকনউদ্দিন মাহমুদ, সাবেক এটর্নি জেনারেল মাহমুদুল ইসলাম, তানিম হোসেন শাওন।

রাষ্ট্রপক্ষে উপস্থিত ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষে তৌফিক নেওয়াজ।

এর আগে ২ মার্চ গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পদ থেকে ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে অব্যাহতির আদেশ দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। ৩ মার্চ ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও গ্রামীণব্যাংকের নির্বাচিত নয় জন পরিচালক এর বিরুদ্ধে দুটি রিট আবেদন করেন। ৮ মার্চ হাইকোর্ট দু’টি রিটই খারিজ করে দেন।

রোববার এর বিরুদ্ধে নিয়মিত দুটি আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন (লিভ টু আপিল) করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১০০৩ ঘণ্টা, এপ্রিল ০৬, ২০১১

=======================================

২২ এপ্রিল ২০১১, শুক্রবার

উইকিলিকসে ইউনূস বিষয়ক ক্যাবলটি প্রকাশিত হয়েছে ‘দি হিন্দু’তে, ক্যাবল ৯৬৪২১ পাঠানো হয়েছিল ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০০৭ আমেরিকার কলকাতা কনসুলেট থেকে, ‘নাগরিক শক্তি’ নামক রাজনৈতিক দল গঠনের কয়েকদিন পরেই ইউনূসের কলকাতা সফরে আমেরিকার কনসাল জেনারেল Henry Jardine পাঠিয়েছেন এই ক্যাবল।

96421 2/13/2007 1:33:00 PM 07KOLKATA50 Consulate Kolkata UNCLASSIFIED//FOR OFFICIAL USE ONLY VZCZCXRO6060PP RUEHBI RUEHCIDE RUEHCI #0050/01 0441333ZNR UUUUU ZZHP 131333Z FEB 07FM AMCONSUL KOLKATATO RUEHC/SECSTATE WASHDC PRIORITY 1399INFO RUEHNE/AMEMBASSY NEW DELHI PRIORITY 1296RUEHKA/AMEMBASSY DHAKA PRIORITY 0337RUEHCG/AMCONSUL CHENNAI 0547RUEHBI/AMCONSUL MUMBAI 0541RUEHGO/AMEMBASSY RANGOON 0222RUEHKT/AMEMBASSY KATHMANDU 0339RUEHIL/AMEMBASSY ISLAMABAD 0265RHMFIUU/CDR USPACOM HONOLULU HIRUEIDN/DNI WASHINGTON DCRUEAIIA/CIA WASHINGTON DCRHEHAAA/NSC WASHINGTON DCRUEHC/USAID WASHDCRUEHCI/AMCONSUL KOLKATA 1725 UNCLAS SECTION 01 OF 02 KOLKATA 000050 SIPDIS SENSITIVE SIPDIS

E.O. 12958: N/A TAGS: PGOV, PHUM, SOCI, IN, BG

SUBJECT: NOBEL PRIZE WINNER DR. MUHAMMAD YUNUS CONSIDERS ENTERING BANGLADESH POLITICS

1. (SBU) Summary. On February 12, ConGen spoke with Nobel Prize winner Dr. Muhammad Yunus about his plans to enter Bangladesh politics. Yunus, on a two-day visit to Kolkata, expressed a strong interest to enter the political fray and said that he was reviewing his options. He expressed support of the present Caretaker Government and its decision to declare a “State of Emergency,” saying it had averted a possible civil war. Yunus felt that Muslim fundamentalists represented a fringe and that while the dominant parties had developed ties with fundamentalists for political gain, most Bangladeshis did not favor the extremism. Yunus was also receptive to closer commercial and trade relations with India. Yunus recognized the risk of entering politics and its potential to tarnish his exemplary image. However, even as he professed that he was still considering his options, he indicated a strong intent to plunge into the maelstrom of Bangladesh politics. End Summary.

2. (SBU) As a fellow Bengali, Prof. Muhammad Yunus, received a hero’s welcome while participating in two days of programs in Kolkata, West Bengal, from Feb. 11-12. During a lunch hosted by the Calcutta Chamber of Commerce (CCC) for its 175 th anniversary, ConGen spoke with Dr. Yunus about the present political situation in Bangladesh. On February 11, Yunus had issued an open letter saying that he was seeking support from Bangladeshis to launch a political party to reform the violence and corruption in Bangladesh. In the letter, Yunus asked people to send him their opinions on forming a political party focusing on good governance. ConGen asked Yunus was he was intent on entering politics as recently reported. Yunus confirmed that he was interested, having supposedly been asked by many people to step-in and overcome the political impasse between the two strongest political leaders, Sheikh Hasina and Khaleda Zia. Yunus added, though, that he was still discussing the merits of becoming a political figure. CCC President Manoj Mohanka questioned the advisability of Yunus joining the messy world of Bangladesh politics and noted the likelihood of Yunus’ reputation being tarnished. Yunus quickly responded that he understood the dangers of entering politics but felt that responsible people had to step into the political field to make a real change in Bangladesh, which was wracked by corruption and poor governance.

3. (SBU) ConGen asked Yunus for his views on a recent “Economist” magazine article that described the present Bangladesh Caretaker Government’s state of emergency and its support by the Bangladesh military as “The Coup That Dare Not Say Its Name.” Yunus was supportive of the imposition of the state of emergency, saying that it had averted a possible civil war. He did not believe that the military’s support was significant and added that the Caretaker Government’s role was clearly defined under the constitution.

4. (SBU) When asked about the perception in India of the rising fundamentalism in Bangladesh, Yunus said that he saw the Muslim fundamentalists as a fringe not accepted by the Bangladeshi mainstream. ConGen noted, however, that even the Awami League (AL), which had been the primary advocate of a socialist, secular nation, in December had signed an agreement with fundamentalist group Bangladesh Khelafat Majlish (BKM). The agreement with BKM would recognize fatwas issued by Imams and block the introduction of laws contrary to sharia law. Yunus responded that the agreement was a reflection of the AL’s moral bankruptcy and was based on pure political calculus to garner a few additional votes and another example of the need for a new political party.

5. (SBU) ConGen asked Yunus about his views on India and whether better trade relations could be developed. Yunus was positive about expanding economic ties with India and within the South Asian Association for Regional Cooperation (SAARC). He felt that Bangladesh would be receptive to better relations with

KOLKATA 00000050 002 OF 002

India but that often it became a divisive political issue, with Bangladeshi politicians stoking resentment against India for political gain. However, he recognized that the GOI maintained significant non-tariff barriers restricting Bangladeshi goods from India’s markets. He was favorable to opening Chittagong Port to regional trade with India, Burma, Bhutan and China; but said that the port was presently too small and at full capacity. He added Grameen Bank was considering the possibility of financing a new “mega-port” project in Chittagong to meet the regional demand.

6. (SBU) Comment: Although Dr. Yunus limited himself to saying he was still considering his options, the tenor of his comments indicated a strong to desire to jump into the maelstrom of Bangladeshi politics. He recognized that he would face a potentially bruising response from the “two ladies” and other established political figures, but he felt that the situation in Bangladesh had reached a critical juncture as “civil war” had only just been averted. As a person of great moral stature and strong organizational skills, Yunus’ candidacy could offer a possible out from the present Hasina-Zia zero-sum game that cripples Bangladesh’s democratic process.

7. (U) This message was cleared with AmEmbassy Dhaka.

JARDINE

এই ক্যাবল নিয়ে ‘দি হিন্দু’র A. SRIVATHSAN এর সংবাদ প্রতিবেদন : Muhammad Yunus knew seeking to enter politics in Bangladesh would receive ‘bruising response’

এই বিষয়ে বাংলা নিউজ ২৪ ডট কম-এর প্রতিবেদন : ঝুঁকি ও বিপদ জেনেই রাজনীতিতে আগ্রহী হন ড. ইউনূস: উইকিলিকস

ঢাকা: ২০০৭ সালে সেনাবাহিনী সমর্থিত প্রলম্বিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় রাজনীতিতে প্রবেশ করার ইচ্ছা পোষণ করার আগেই নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস এর সম্ভাব্য ঝুঁকি এবং পরিণতি সম্পর্কে সচেতন ছিলেন। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন প্রধান দুই রাজনৈতিক দলের নেত্রী শেখ হাসিনা ও খালেদা জিয়া এবং ‘প্রতিষ্ঠিত অন্যান্য রাজনৈতিক নেতারা’ রাজনৈতিক অঙ্গনে তাঁর এই হঠাৎ-প্রবেশকে কিছুতেই সহজভাবে মেনে নেবেন না।

শুক্রবার ভারতের খ্যাতনামা ইংরেজি দৈনিক ‘দ্য হিন্দু’র অনলাইন সংস্করণে ব্যতিক্রমী গণমাধ্যম উইকিলিকসের বরাত দিয়ে প্রকাশিত এ সম্পর্কিত একটি প্রতিবেদনে নোবেল বিজয়ীর এই আশঙ্কার কথা প্রকাশ করা হয়েছে। ড. মুহাম্মদ ইউনূস তাঁর এই আশঙ্কা ব্যক্ত করেছিলেন কলকাতায় নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের কনসাল জেনারেল অঁরি জারদাঁর (Henry Jardine) কাছে।

২০০৭ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি কলকাতা থেকে ওয়াশিংটনকে পাঠানো অঁরি জারদাঁর গোপন কূটনৈতিক বার্তা থেকে দ্য হিন্দুর জন্য প্রতিবেদনটি তৈরি করেছেন এ শ্রীবাথসান।

ড. ইউনূস সেসময় কয়েকটি অনুষ্ঠানে অংশ্রগ্রহণের উদ্দেশ্যে কলকাতা সফর করছিলেন। কলকাতা চেম্বার অব কমার্স আয়োজিত এক মধ্যাহ্নভোজে জারদাঁ এবং ইউনূস বিষয়গুলো নিয়ে আলাপ করেন। আলাপের সূত্রপাত হয় যখন জারদাঁ ইউনূসের রাজনৈতিক পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চান।

ওই সময় ড. ইউনূস রাজনীতিতে তার অংশগ্রহণের বিষয়ে ব্যাপক আগ্রহের কথা জানান।

কলকাতা চেম্বারের সভাপতি মনোজ মোহংকা এসময় তাদের আলোচনায় ঢুকে পড়েন। রাজনীতিতে প্রবেশে ড. ইউনূসের আগ্রহ দেখে তিনি তাকে বাংলাদেশের সেসময়কার অস্থির ও ঘোলাটে রাজনীতির প্রসঙ্গ তুলে ধরে আশঙ্কা ব্যক্ত করেন যে, রাজনীতিতে প্রবেশের মাধ্যমে ড. ইউনূস নিজের সুনামই ক্ষুন্ন করবেন।

মনোজের এই প্রতিক্রিয়ায় নোবেল বিজয়ী বলেন, এর বিপদ সম্পর্কে তিনি পুরোপুরি সচেতন। তবে তার ধারণা ‘কুশাসন এবং দুর্নীতিজর্জরিত বাংলাদেশের রাজনীতিতে সত্যিকার অর্থেই পরিবর্তন আনতে হলে দায়িত্ববান ব্যক্তিদেরই এগিয়ে আসতে হবে।’

অঁরি জারদাঁ আলোচনার এই পর্যায়ে ড. ইউনূসের কাছে বাংলাদেশে মৌলবাদের বাড়-বাড়ন্ত অবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। জানতে চান। জবাবে ড. ইউনূস তাকে বলেন, বাংলাদেশের ‘মুসলিম মৌলবাদীর সংখ্যা হাতেগোনা। দেশের মূলধারায় এদের কোনো গ্রহণযোগ্যতা নেই।’
মার্কিন কনসাল জেনারেল ধর্মনিরপেক্ষ এবং সমাজতান্ত্রিক ধ্যান-ধারণার লালনকারী দল আওয়ামী লীগের সঙ্গে খেলাফত মজলিশের সম্পাদিত একটি চুক্তির বিষয়ে ড. ইউনূসের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এই চুক্তির মূল বিষয় ছিলো ফতোয়াকে স্বীকৃতি দেয়া এবং শরীয়াহ বিরোধী আইন প্রণয়ন নিষিদ্ধ করা।

ড. ইউনূস এই চুক্তির সমালোচনা করে বলেন, ‘এই চুক্তি হচ্ছে আওয়ামী লীগের নৈতিক দেউলিয়াত্বেরই প্রতিফলন এবং শুধু বাড়তি কিছু ভোট পাওয়ার জন্য স্রেফ রাজনৈতিক হিসেবনিকেশ থেকেই এই চুক্তি করা হয়েছে। বাংলাদেশে যে নতুন একটি রাজনৈতিক দলের প্রয়োজন রয়েছে, এই চুক্তিটি তারই আরেক প্রমাণ।’

বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যকার অর্থনৈতিক সম্পর্ক বৃদ্ধির বিষয়টিকে ড. ইউনূস ইতিবাচকভাবে দেখেন বলেও ওই বৈঠকে জানান। তবে তিনি বলেন, ‘বিষয়টি প্রায়ই বিভেদের ইস্যু হয়ে দাঁড়ায় আর বাংলাদেশের রাজনৈতিক নেতারা রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের জন্য ভারতের বিরুদ্ধে বিষোদগারে মেতে ওঠেন।’

এ প্রসঙ্গে তিনি বাংলাদেশি পণ্যে প্রবেশে ভারত সরকারের নেতিবাচক ভূমিকার সমালোচনা করে বলেন, ‘বিশেষ করে বেশ কিছু অশুল্ক বাধার কারণে ভারতের বাজারে বাংলাদেশি পণ্যের প্রবেশ কঠিন নিয়ন্ত্রণের মুখে পড়ে।’

উইকিলিকসকে উদ্ধৃত করে দ্য হিন্দু জানায়, আঞ্চলিক বাণিজ্যের সুবিধার্থে চট্টগ্রাম বন্দরকে ভারত, মিয়ানমার, ভুটান এবং চীনের জন্য খুলে দেওয়ার পরিকল্পনার ছিল ড. ইউনূসের। এছাড়া গ্রামীণব্যাংকের বিনিয়োগে চট্টগ্রামে বহুমুখী ব্যবহার উপযোগী নতুন একটি বন্দর নির্মাণে প্রকল্প হাতে নেওয়ার ইচ্ছাও তাঁর ছিল।

ড. ইউনূসকে ‘উচ্চ নৈতিকতা ও শক্তিশালী সাংগঠনিক ক্ষমতা সম্পন্ন ব্যক্তি’ হিসেবে উল্লেখ করে মার্কিন গোপন কূটনৈতিক বার্তাটি শেষ করা হয়। বার্তায় জারদাঁ বলেন, ‘রাজনীতিতে তাঁর (ইউনূস) প্রার্থিতা হাসিনা-খালেদার নেতিবাচক রাজনীতির অচলায়তন থেকে মুক্তির একটা সম্ভাব্য উপায় হতে পারে। এ দুই নেত্রীর নেতিবাচক রাজনীতির কারণে বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া মুখ থুবড়ে পড়েছে বলে বার্তায় উল্লেখ করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৫০ ঘন্টা, ২২ এপ্রিল, ২০১১

==================================

গ্রামীণ ব্যাংক ও এর সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যক্রম তদন্তে গঠিত কমিটি আজ অর্থমন্ত্রীর কাছে তাদের তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে।

গ্রামীণব্যাংক বিষয়ক সরকারের গঠিত তদন্ত কমিটি সোমবার সকালে অর্থমন্ত্রীর কাছে রিভিউ প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। এতে কমিটি তাদের সুপারিশে উল্লেখ করেছে, ‘গ্রামীণব্যাংক ও ইউনূসের সামাজিক ব্যবসাকে (সোশ্যাল বিজনেস) একটি নীতিমালার মধ্যে আনা প্রয়োজন।’

গ্রামীণব্যাংকের তহবিল থেকে অর্থ স্থানান্তরের অভিযোগে গত ১০ জানুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশে পাঁচ সদস্যের তদন্ত (রিভিউ) কমিটি গঠন করা হয়।

প্রতিবেদনে গ্রামীণব্যাকের কার্যক্রম, গঠনতন্ত্র, সহযোগী সংস্থাগুলোর কার্যক্রম এবং সর্বোপরি গ্রামীণ ব্যাংকের তহবিল ব্যবস্থাপনার বিষয়গুলো তদন্ত করে দেখা হয়।

তবে নরওয়ের রাষ্ট্রীয় টেলিভশনে প্রচারিত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা তহবিল স্থানান্তরে কোনো অনিয়ম তারা কমিটি খুঁজে পায়নি বলে কমিটি উল্লেখ করে।

বিস্তারিত পড়ুন : গ্রামীণ ব্যাংক ও সোশ্যাল বিজনেসকে নীতিমালার মধ্যে আনার সুপারিশ। [ গ্রামীণব্যাংক বিষয়ক সরকারের গঠিত তদন্ত কমিটি সোমবার সকালে অর্থমন্ত্রীর কাছে রিভিউ প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। এতে কমিটি তাদের সুপারিশে উল্লেখ করেছে, ‘গ্রামীণব্যাংক ও ইউনূসের সামাজিক ব্যবসাকে (সোশ্যাল বিজনেস) একটি নীতিমালার মধ্যে আনা প্রয়োজন।’

গ্রামীণব্যাংকের তহবিল থেকে অর্থ স্থানান্তরের অভিযোগে গত ১০ জানুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশে পাঁচ সদস্যের তদন্ত (রিভিউ) কমিটি গঠন করা হয়।

প্রতিবেদনে গ্রামীণব্যাকের কার্যক্রম, গঠনতন্ত্র, সহযোগী সংস্থাগুলোর কার্যক্রম এবং সর্বোপরি গ্রামীণ ব্যাংকের তহবিল ব্যবস্থাপনার বিষয়গুলো তদন্ত করে দেখা হয়।

তবে নরওয়ের রাষ্ট্রীয় টেলিভশনে প্রচারিত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা তহবিল স্থানান্তরে কোনো অনিয়ম তারা কমিটি খুঁজে পায়নি বলে কমিটি উল্লেখ করে।

সকালে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বিষয়টি জানান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

কমিটিপ্রধান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক এ কে মনোয়ার উদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘রিভিউ কমিটি গ্রামীণব্যাংক ও সোসাল বিজনেসকে একটি নীতিমালার মধ্যে আনার সুপারিশ করেছে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করে প্রতিবেদন জমা দিয়েছি। এখন কী ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে সেটা সরকারের ওপর নির্ভর করছে।’

এক প্রশ্নের জবাবে মনোয়ার উদ্দিন বলেন, ‘প্রতিবেদনে আমরা একটি চেকলিস্ট দিয়েছি। পাশাপাশি আমরা একাধিক সুপারিশও দিয়েছি।’

‘এখন পুরো বিষয়টি সরকারের বিবেচনাধীন’ বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

রিভিউ প্রতিবেদন পাওযার পর অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘নরওয়ের টেলিভিশনে কথিত অভিযোগের কোনও সত্যতা পায়নি রিভিউ কমিটি। তহবিল স্থানান্তরে গ্রামীণব্যাংক কোনও অনিয়ম করেনি, এটি বাংলাদেশ সরকার ও গ্রামীণব্যাংকের সঙ্গে আগেই সমাধান হয়ে গেছে। ’
অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘কমিটিকে দেওয়া কার্যপরিধি অনুযায়ীই তারা কাজ করে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে।’
অর্থমন্ত্রী জানান, এটি পর্যালোচনা করে পরবর্তী পদক্ষেপ সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘দেশে অন্যান্য ক্ষুদ্রঋণ দেওয়া প্রতিষ্ঠানের মধ্যে গ্রামীণব্যাংকেরই সুদের হার ভালো।’

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর নজরুল হুদা, সাবেক ডেপুটি কম্পট্রোলার অ্যান্ড অডিটর জেনারেল সৈয়দা রোকিয়া দীন, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) প্রাক্তন অধ্যাপক আর এম দেবনাথ ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মহসিন রশীদ।

কমিটিকে চার মাসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য বলা হয়েছিল।

বাংলাদেশ সময়: ০১৩৬ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৫, ২০১১ ]

====================================

৫ মে ২০১১, বৃহস্পতিবার

সুপ্রিম কোর্টের রায়ও ইউনূসের বিপক্ষে গেছে।

আইনি লড়াইয়ে হেরে হেলেন ড. ইউনুস। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ বৃহস্পতিবার ড. মুহাম্মদ ইউনূসের লিভ টু আপিলের খারিজ আদেশ প্রত্যাহারে করা আবেদনটি খারিজ করেছে দিয়েছেন। একই সঙ্গে গ্রামীণ ব্যাংকের ৯ পরিচালকের করা লিভ টু আপিলও খারিজ করেছেন আপিল বিভাগ।

রায় ঘোষণার পর ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ জানান তিনি রিভিউ আবেদন করবেন।

লিভ টু আপিল খারিজে আদেশ প্রত্যাহারে ড. ইউনূসের আবেদনকে ভ্রান্ত ধারণা প্রসুত বলেও উল্লেখ করেছেন আদালত।

এর মাধ্যমে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে অব্যাহতিকে বৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেওয়া রায় বহাল থাকলো।

প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হকের নেতৃত্বে সাত সদস্যের বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

ড. ইউনূসের পক্ষে ড. কামালের নেতৃত্বে আইনজীবী প্যানেলের সকলেই এসময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

সুপ্রিম কোর্টের রায় ঘোষণার পর গ্রামীণ ব্যাংকের নির্বাচিত ৯ পরিচালকের পক্ষে রহিমা বেগম লিখিত বক্তব্যে ড. ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান নিয়োগের জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানান।

এর আগে বুধবার আবেদনগুলোর ওপর শুনানি শেষ করে বৃহস্পতিবার রায় দেওয়ার তারিখ নির্ধারন করেন আপিল বিভাগ।

বাংলাদেশ সময় ১০২৯ ঘণ্টা, মে ০৫, ২০১১

খবরের লিন্ক এখানে

==============================

১২ মে ২০১১, বৃহস্পতিবার

১. গ্রামীণ ব্যাংক: রিভিউ কমিটির প্রতিবেদন প্রকাশ করলো সরকার

গ্রামীণ ব্যাংক সম্পর্কিত রিভিউ কমিটির তদন্ত রিপোর্ট জনসম্মূখে প্রকাশ করেছে সরকার।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত http://www.mof.gov.bd ওয়েব সাইটের মাধ্যমে রিভিউ কমিটির রিপোর্ট প্রকাশ করেন।

এ সময় তিনি বলেন, গ্রামীণ ব্যাংক সম্পর্কিত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট প্রথমে জনসম্মূখে প্রকাশ করা হয়েছে। এছাড়া রিভিউ কমিটি’র রিপোর্ট পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। পর্যবেক্ষণ শেষে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিবেদন প্রকাশ সম্পর্কে অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, ‘সুপ্রিম কোর্ট ড. ইউনূসের পিটিশন প্রত্যাখ্যান করেছে। সুতরাং তার আইনজীবী এ ব্যাপারে পুনরায় আপিল করলেও সেটা আর রিভিউ করার কোনো সুযোগ নেই।‘

তিনি বলেন, ‘রিভিউ তখনই করা হয় যখন কোনো বিষয় নিয়ে সন্দেহ থাকে। কিন্তু এক্ষেত্রে সন্দেহের কোনো অবকাশ নেই। সুতরাং এটা আর রিভিউ করা হবে না।’

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগ না দেওয়া পর্যন্ত ড. ইউনূসের অবর্তমানে ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) করবেন। তিনি যদি দায়িত্ব পালনে অপারগ হন তাহলে বিকল্প কারো সন্ধান করা হবে।’

সরকার ইউনূসের সম্মানজনক বিদায় চায়:
‘আমরা গ্রামীণ ব্যাংক ইস্যুটির সম্মানজনক সমাধান চাই’ উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘গ্রামীণ ব্যাংক একটি সরকারি ব্যাংক। সরকারি আদেশবলে গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। ড. ইউনূস এটা প্রতিষ্ঠা করেছেন। কিন্তু এটা যে সরকারি ব্যাংক এটা তিনি স্বীকার করতে চান না। তার সঙ্গে আমাদের এই একটি বিষয়ে মত পার্থক্য।’

ইউনূসকে রাখার আবেদন প্রত্যাখ্যান:
ড. ইউনূসকে ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে বহাল রাখার জন্য পরিচালনা পর্ষদ ও গ্রামীণ ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা আবেদন জানিয়েছিলেন্। সাংবাদিকরা এ ব্যাপারে অর্থমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করলে অর্থমন্ত্রী বলেন,‘সরকার তা প্রত্যাখ্যান করেছে। তাদের এ আবেদন গ্রহণযোগ্য নয়।‘

ইউনূসের দায়িত্বে আসছেন নূরজাহান বেগম
বাংলানিউজকে একটি বিশ্বস্ত সূত্র জানায়, নতুন কাউকে এমডি পদে সরকার দায়িত্ব না দেওয়া পর্যন্ত এমডি পদে দায়িত্ব পালন করবেন ডিএমডি নূরজাহান বেগম।

রিভিউ কমিটি’র পুরো প্রতিবেদনটি হুবহু নিচে দেওয়া হলো:

প্রথম পর্ব
দ্বিতীয় পর্ব

বাংলাদেশ সময়: ১৯৩০ঘণ্টা, মে ১২, ২০১১

খবরের লিন্ক এখানে

২. পদ ছাড়লেন ইউনূস

গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের (এমডি) দায়িত্ব থেকে ইস্তফা দিয়েছেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস। বৃহস্পতিবার রাতে গ্রামীণ ব্যাংকের প্যাডে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তিনি এ কথা জানান।

এতে ইউনূস বলেছেন, “আমি আজ মে ১২, ২০১১ তারিখে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্ব থেকে ইস্তফা দিচ্ছি। গ্রামীণ ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব নূরজাহান বেগমকে আমি আমার দায়িত্ব প্রদান করছি।”

যতোদিন পর্যন্ত গ্রামীণ ব্যাংক অধ্যাদেশের ১৪ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী পরিচালনা পর্ষদ এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা না নিচ্ছে, নূরজাহান বেগম ততোদিন এই দায়িত্ব পালন করে যাবেন বলেও উল্লেখ করেন ইউনূস।

তার স্বাক্ষরিত ওই সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “আপিল বিভঅগের পূর্ণাঙ্গ রায় এখনো আমাদের হাতে আসেনি। আপিল আদালতে যে সমস্ত আইনগত বিষয় উত্থাপন করা হয়েছে সেগুলিকে কোনোভাবে ক্ষুন্ন না করে, শুধু গ্রামীণ ব্যাংকের কার্যক্রম যাতে কোনোভাবে ব্যাহত না-হয় তা, এবং গ্রামীণ ব্যাংকে আমার ২৫ হাজার সহকর্মী, ৮৩ লাখ ঋণগ্রহীতা ও দরিদ্র মালিকগণ যাতে কোনেক্রমে দৈনন্দিন কাজে বাধাগ্রস্ত না-হয় তা নিশ্চিত করার জন্য আমি এ পদক্ষেপ গ্রহণ করলাম।”

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/জেকে/২২৪৯ ঘ.

খবরের লিন্ক এখানে

================================

২৪ অক্টোবর ২০১১, সোমবার

ইউনূস এখন বাংলাদেশের বিপক্ষে ক্যাম্পেইন করছেন। আমার ব্লগে সুশান্ত লিখছেন

বিগত কয়েকদিন ধরে পদ্মা সেতুর অর্থায়ন বন্ধের বিভিন্ন কারন নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। ইতোমধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষনা দিয়েছেন যে, যে বা যারা পদ্মা সেতুর কার্যক্রমে দূর্নীতি করেছেন সেটা প্রমানিত হলে তাকে শাস্তি পেতেই হবে। পদ্মা সেতুর কথিত দুর্নীতির তদন্তের নির্দেশ ইতোমধ্যে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। দুর্নীতি দমন কমিশন কাজও শুরু করেছে।

পদ্মা সেতু প্রকল্প নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন , যে পদ্মা সেতু প্রকল্পের এখনও টেন্ডারই হয়নি, বিশ্বব্যাংক কোনো ঋণও দেয়নি, সেখানে দুর্নীতি হল কীভাবে? আমি স্পষ্টভাবেই বলেছি, যে কেউ দুর্নীতির প্রমাণ দিতে পারলে অভিযুক্তকে আমিও ছাড় দেব না। তিনি বলেন, আমি বিশ্বব্যাংকের কাছে কোথায় কী দুর্নীতি হয়েছে তার তথ্য-প্রমাণ চেয়ে চিঠি দিয়েছি। প্রধানমন্ত্রী দৃঢ়তা প্রকাশ করে বলেন, পদ্মা সেতু আমাদের নির্বাচনী ওয়াদা। এই ওয়াদা পূরণ করতেই হবে।

যে কথা বলতে চাইছিলাম সেইকথা প্রধানমন্ত্রী ও ইতোমধ্যে বলেছেন। আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ড. মুহাম্মদ ইউনূসের প্রতি ইঙ্গিত করে বলেছেন , একজন নোবেল লরিয়েট পদ্মা সেতুর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। এই সেতু যাতে না হয় সে জন্য তিনি আন্তর্জাতিকপর্যায়ে লবিং করছেন।

এবার আমি বলি যে কিভাবে ড. মুহাম্মদ ইউনুস বাংলাদেশ এর উন্নয়ন প্রকল্প সমূহে বাঁধার তৈরী করছেন। আপনার নিশ্চয়ই Moody’s Corporation নাম শুনেছেন। এই Moody’s Corporation এর অন্যতম কাজ হলো বিশ্বব্যাংক এর মতো প্রতিষ্টানের পক্ষে বিভিন্ন দেশ এর ক্রেডিট রেটিং করে থাকে।

১৯ এপ্রিল ২০১১ এর এক নিউজে দেখা যায়, Moody’s Corporation বাংলাদেশ’কে স্ট্যাবল দেশ হিসেবে রেটিং করেছে। এখানে দেখুন বাংলাদেশ এর ক্রেডিট রেটিং।

======================================

৩০ সেপ্টেম্বর ২০১১ সকাল ১০ ঘটিকায় পদ্মা সেতু’র ফান্ড সংক্রান্ত এক মিটিং ছিলো Moody’s Corporation , সিটি ব্যাঙ্ক ও বাংলাদেশ এর মধ্যে। ঐ মিটিং এ Moody’s Corporation সরাসরি বলে বাংলাদেশে এমন কিছু করা যাবে না যেখানে ড. মুহাম্মদ ইউনুস এর সমস্যা হয়।

তথ্য উপাত্ত ও প্রাসঙ্গিক লিন্কের জন্য বিস্তারিত পড়ুন : বাংলাদেশে যাতে financial assistance না আসে সেজন্য ড. মুহাম্মদ ইউনুস কেম্পেইন করছেন।

==================================

৩ জুন ২০১২, রবিবার

৯ মার্চ ১৯১১ তে প্রশ্ন তুলেছিলাম

রায় হয়ে গেছে, ইউনূসের রিট খারিজ করে দেয়া হয়েছে।

গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের অপসারণের আদেশ চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা দুটি রিট খারিজ করে দিয়েছে আদালত।

বিচারপতি মো. মমতাজউদ্দিন আহমেদ ও গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুরের হাইকোর্ট বেঞ্চ মঙ্গলবার বেলা তিনটায় এই আদেশ দেয়।

গ্রামীণ ব্যাংক বিষয়ে না হয় একটা রায় হয়ে গেল, কিন্তু গ্রামীণ ব্যাংকের ‘ফেমিলি এন্টারপ্রাইজ’ হিসেবে করা কোম্পানিগুলোর সাথে গ্রামীণ ব্যাংকের কী ধরনের ভাগ-বাটোয়ারা আছে আমরা তো এসবের কিছুই জানি না। আমি অন্য কোম্পানি নিয়ে অত চিন্তিত নই — কিন্তু গ্রামীণ ফোনের ৩৪% শেয়ারের মালিক ‘গ্রামীণ টেলিকম’এর সাথে গ্রামীণ ব্যাংকের কী সম্পর্ক? ওই বিশাল শেয়ার কার হবে? গ্রামীণ ফোনের ওয়েবসাইটে গ্রামীণ টেলিকমকে বলা হচ্ছে

is a not-for-profit company and works in close collaboration with Grameen Bank.

এই close collaborationএর মানে কী, কে জানে?

গ্রামীণ টেলিকমের ওয়েবসাইটে কোথাও কোম্পানিটির কর্পোরেট কাঠামোর কথা বলা হয়নি। শুধু বলা হয়েছে

a wholly-Owned non-profit Organization to provide phone service in rural areas as an income-generating activity for members of Grameen Bank

wholly-Owned non-profit মানে কী, এটার মানে কী গ্রামীণ ব্যাংকের পূর্ণ মালিকানা? কে জানে?

এই জটিল ধাঁধাঁগুলোর কোনো সমাধান শেষ পর্যন্ত হবে কি না? কিভাবে যে চলত গ্রামীণ ব্যাংক?

আর গত ১৫ মে ২০১২তে খবর : গ্রামীণ ব্যাংক ও এর সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যক্রম পর্যালোচনা করতে একটি কমিশন গঠন করেছে সরকার

গ্রামীণ ব্যাংক ও এর সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যক্রম পর্যালোচনা করতে একটি কমিশন গঠন করেছে সরকার। গ্রামীণ ব্যাংক ও এর সহযোগীদের ভবিষ্যতে করণীয় সম্পর্কে সুপারিশ প্রণয়ন করবে এই কমিশন।
অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ থেকে গতকাল মঙ্গলবার এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।
চার সদস্যের কমিশনের সভাপতি সাবেক সচিব মো. মামুনুর রশিদ। সদস্যসচিব পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমির মহাপরিচালক এম এ কামাল। অপর দুই সদস্য আইনজীবী আজমালুল হোসেন কিউসি ও মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ। কমিশনকে আগামী তিন মাসের মধ্যে এ বিষয়ে প্রতিবেদন পেশ করতে বলা হয়েছে।
এই কমিশন গ্রামীণ ব্যাংকের প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা, দুর্বলতা ও প্রতিবন্ধকতা চিহ্নিত করবে। গ্রামীণ ব্যাংকে সুশাসন নিশ্চিত করার উপায়, বিশেষ করে এর ব্যবস্থাপনার জবাবদিহিতা ও পরিচালনার স্বচ্ছতার বিষয়ে সুপারিশ করবে কমিশন। গ্রামীণ ব্যাংক এবং এর সহযোগী প্রতিষ্ঠানের উদ্দেশ্য, আইনি অবস্থা এবং এর পরিচালনা বিষয়ে একটি পর্যালোচনা করবে। প্রতিষ্ঠানগুলোর সরকারের সঙ্গে কী সম্পর্ক, গ্রামীণ ব্যাংকের সঙ্গে আর্থিক সম্পর্ক কী, গ্রামীণ ব্যাংকের উদ্দেশ্য ও লক্ষ্যের সঙ্গে তারা কীভাবে অবদান রাখছে, এদের সাংগঠনিক, ব্যবস্থাপনা ও আর্থিক কাঠামো কী—এসব বিষয়েও চিহ্নিত করবে এই কমিশন।

=============================

৩ জুন ২০১২, রবিবার

আর এই পর্যালোপনা নিয়ে মুহম্মদ ইউনূসের আশঙ্কা ও গ্রামীণ ব্যাংক বাঁচাতে তার আহবান।

Formation of the Commission of Inquiry

I was very saddened by the news. I am sure many others, including the poor women who are the owners of the Grameen Bank, felt the same as I did. The finance ministry formed a four-member Commission of Inquiry through promulgation of an order on May 15, 2012. The Commission has been given three months to submit their report.

We have set a record through formation of the Commission of Inquiry on the Grameen Bank which is the only Nobel Prize winning organization in Asia, among only 20 winning organizations in the 110 years history of the Nobel Prize. It will remain an unforgettable episode in our history!

But why Commission of Inquiry on the Grameen Bank?

What has caused the government to be dissatisfied with Grameen Bank? Is it Grameen Bank’s innovative modus operandi, and its system of management? It is this that has brought international recognition to the Bank as an institution dedicated to improving the quality of life of the poor. Or has the Grameen Bank caused a large-scale catastrophe for which a Commission of Inquiry has become necessary? What issue of public importance has Grameen Bank caused that requires an enquiry? In the past all enquiry Commissions that the government has formed have been done after a large-scale mishap has occurred and which had raised various questions in the minds of the people. The law regarding formation of an inquiry Commission was designed to deal with this type of unusual situations.

This Commission has been tasked to submit its opinions/recommendations reviewing the activities of the Bank from its inception up to 2010. I was the chief executive during this time. I do not understand why the period after 2010 has been left out of the review. Have all the problems of the Bank after 2010 been solved?

Usually an inquiry Commission is asked to find out the causes and offer solution after an incident. But this time, after reviewing its activities, its philosophy and its operational details, the Commission has been asked to determine the future path of a distinguished organization, and that too, from the very beginning of the organization. It will be difficult for the Commission to complete this huge task with its limited manpower and facilities. If the Commission gives a wrong advice due to the constraints then the consequences might be terrible for the poor people of Bangladesh.

This type of task is usually given to the best researchers of the best research organizations as a long-term project. To prepare such a report it is necessary to have intensive consultation with the people who were behind the designing and setting up those institutions, those who have managed them over years, those who are the beneficiaries of these institutions, people who are familiar with designing and managing such institutions.

After going through a long process of interaction and sifting through all the data, an in-depth analysis is made. When the report is finalized it is submitted to the board for its review. The board goes through its own process of reflection to pick the recommendations they want to implement. Gradually the suitable recommendations of the report are carefully implemented, without impeding the ongoing function of the organization. Given the time limit of the Commission, it is clear that they cannot go through such a process.

Grameen Companies

In the terms of reference of the Commission the government has raised many questions about all the companies, which have the word “Grameen” in their names. One can sense from these questions that government assumes that these companies have been established under the ownership of the Grameen Bank. But in reality these are independent companies with no ownership link to Grameen Bank. As a result most of the questions become irrelevant. I have said many times that it is very easy to get the answers to these questions. All one needs to do is to commission an internationally reputed audit firm. They can easily find out from the history of the bank’s financial transactions whether the bank has invested in any of these companies. Why the need of forming a full-fledged inquiry Commission? Why such a big initiative from the state to find out whether the Grameen Bank is the owner of these companies, and whether it established these companies?

I have established many companies on my own initiative. I have been using the word ‘Grameen’ in their name as an identifying mark of a new class of businesses created to solve social problems. Most of these companies are ‘not for profit’ companies. According to the law, these companies do not have any ‘owner’. Most of these companies are established according to Section 28 of the Company Law. These are non-stock companies and no one gets profit since no one has ownership of these companies. These companies are circumscribed by the personal guaranty of the sponsors, i.e. if a company fails to pay its debt then the sponsors are obligated to pay up as per the limit of their guaranty. So there is no question of Grameen Bank’s ownership of these companies since the idea of ownership is not relevant to these companies. Some of these companies are “for profit” companies, but all of these are themselves owned by “not-for-profit” companies. Again, there is no scope for Grameen Bank, which is a “for-profit” company, to become the owner of these companies.

Grameen Bank has not established any company itself since the Grameen Bank law does not allow it to establish any company.

There are reasons behind the creation of these companies. When I started to work with poor people I started noticing many other problems besides the need for credit. I saw problem of education; so I created Grameen Education. I saw health problem; I created Grameen Kalyan (Well-Being), marketing problems (Grameen Check), agricultural problem (Grameen Krishi or Agriculture), fisheries and animal farming problem (Grameen Fisheries), technology problem (Grameen Telecom, Grameen Communications), insurance problem( Grameen Byabsa Bikash), electricity problem and problem of cooking stoves (Grameen Shakti), and so on.

Each of the companies I created was designed to address a specific problem of the poor. It became a habit for me to create companies to address a social problem. I wanted to make sure that each initiative to solve a problem would become self-reliant. It should be able to operate with its own earnings; it must not be financially dependent on others. Also, I believed that each company should be structurally independent so that if one company goes down, it cannot pull down the others with it.

I tried to solve problems using innovative business ideas, new concepts and new methods. Several of these companies have gained global reputation for their path-breaking work. For example, providing mobile phones to village women through Grameen Telecom, has opened up a whole new thinking in marketing among all the telecom companies of the world. Grameen Shakti has become the global leader in bringing off-grid electricity based on solar power, in the rural areas at the household level.

Not only has Grameen Shakti showed the way to do it, it demonstrated how to scale up in massive way. Grameen Shakti sells more than a thousand solar home systems per day. It will reach one million homes in rural Bangladesh with solar electricity, by October this year. All this is done in a sustainable way. Everybody pays for it, and the company covers all its costs. No one has personal ownership of these companies. These are almost like a ‘trust’. The sole purpose of their existence is to solve problems of the poor. None of these companies was created for anyone to earn personal profit. There is no scope for personal profit from any of these companies.

I do not own share in any Grameen company or any other company anywhere. I do not own any share in Grameen Bank. So there was no scope for me to get profit from these companies, in the past, or at present. I have never received any allowance or honorarium for attending or conducting any meeting of the board of any of the Grameen companies.

Another item in the TOR of the Commission is “What are the succession rules for ownership and management of these institutions.” Interestingly all the companies are registered under the Company’s Act. The rules of formation and restructuring of the Board of Directors are clearly stated in the laws and constitution of the registered company. Common inheritance law governs how the inheritance of the shares of a company will be determined. It is customary that shares of father are inherited by children. But as there is no possibility of owning any share in the Grameen companies (except in Grameen Bank) so the issue of inheritance of ownership is irrelevant here. It will not be surprising if questions rise in public mind as to the purpose and usefulness of government’s high-powered initiative to investigate into the “succession rules for ownership” in Grameen companies, through establishing a Commission.

If one looks at the TOR of the Inquiry Commission one will find that the government is very interested in the relationship between the Grameen Bank and other companies with Grameen names. And then, it is not understandable why the government had to be so interested in the succession rules in a private company (even if there are private share-owners in these companies) to the extent that it found it worthwhile to form a Commission of Inquiry to investigate into it. It must surprise everybody to see that a whole Commission has been put to use their precious time to dig out the relationship which never existed at the time of creating the companies, nor at present. Audit teams from the Central Bank never mentioned it in their yearly audit reports and the Awami League government did not raise any question about it in their previous five year term. Specially knowing fully well that the modus operandi and recommendations of this Commission would be scrutinized thoroughly, and debated rigorously for many years to come at home and abroad.

Backdrop

Grameen Bank started its journey in 1976 in the village of Jobra in Chittagong. I lent Tk 856 from my own pocket. I then became a guarantor and began giving loans from the local branch of Janata Bank. In 1978, with the help of the then Managing Director of Krishi Bank, Mr. Anisuzzaman, it was transformed into a project of Krishi Bank. Upon approving my proposal, he opened a new branch in Jobra village just so it could be managed under my supervision. It was given a new category of name to signify its special status. It was called ‘Krishi Bank, Experimental Grameen Branch.’

In 1979, it became a central bank project with a bigger territory to cover. This was done because of the interest taken by the Deputy Governor of the Central Bank, Mr. Gongopadhaya in the proposal that I had submitted to him. From a Krishi Bank project it then became a project of the central bank. Under the name of Grameen Bank Project, this project was dedicated to bring the whole Tangail district under microcredit programme. All the state-owned banks participated in the project.

I set up the project headquarters in Tangail and moved to Akur Para to look after the project. I stayed there from 1979 to 1982. When it was decided to expand the coverage of the project to five districts, I had to shift the headquarters to Shyamoli, Dhaka, at the suggestion of the central bank, although I was very reluctant to have my office in Dhaka.

While I was looking for a way to move from project status to a more institutional foundation, I got support from the new finance minister, Mr. Abul Mal Abdul Muhith, who had just assumed office. He responded to my proposal to give it an institutional shape by making it a formal bank. In 1983, with the finance minister’s support and approval from President Hussain Mohammad Ershad, ‘Grameen Bank Ordinance 1983′ was created. The Grameen Bank project became ‘Grameen Bank’.

But I was not happy with the way it was done. I raised strong objections against the new laws regarding the structure of ownership. It gave 60% ownership to Government making it a government bank. I refused to go ahead with this ownership structure. Finance Minister assured me that he would soon change the ownership to give 75% share to the borrowers. The task was carried out by his successor, Mr. Syedduzzaman on July 8, 1986. He amended the law giving 75% of the ownership to the borrowers, and 25% to the government. To be consistent with the new ownership structure, he changed the composition of the board. The board would consist of 9 representatives of the borrowers, 3 from the government and the Managing Director (MD) as an ex officio member. Another amendment was introduced on July 31, 1990. This enabled the board to appoint the MD, instead of the MD being appointed by the government. Since 1990 Grameen bank has been operating in this manner.

At present, the borrowers own 97% of the shares, and the government the remaining 3%. The reason why the shares owned by the government came down from 25% to 3% is because borrowers kept adding more equity as the bank grew, but the government did not inject any more money. Each share costs Tk 100. When the amount of savings of a borrower exceeds Tk 100, she can buy a share worth Tk 100. Each borrower had always done that. As a result, the percentage of shares of the borrowers has been steadily rising. If this trend continues, the relative share of the government will keep becoming smaller.

The initiative that started with Tk 856 is now a bank that has given loans worth USD 1.5 billion to 8.4 million borrowers. At present, borrowers have nearly a billion dollars in their personal savings accounts. This amount keeps increasing every day. They have their own pension fund. Grameen Bank has given education loans of nearly USD 40 million to the children of the borrowers for higher education.

The reason why Grameen Bank could become a strong and successful organization is because the bank had a good legal structure since 1990 that delegated all its management and decision making power to its board of directors.

People who think Grameen Bank is like any other bank, that the only difference is that it gives small loans, end up with wrong conclusions. They miss the fundamental issue. It is the only bank in the world that runs without taking any collateral whatsoever. No legal papers are needed in this bank to take a loan. The bank delivers the service at the doorstep of the borrowers.

If the borrower or her husband dies, then the balance amount needs to be paid; remaining amount is written off. If a borrower dies, her family gets a grant for burial expenses. Branch manager has to be present at the burial prayer. The children of the borrowers get loans for education. Every borrower is the owner of the Bank. This system is quite the opposite of the mainstream banking system. That was why Grameen Bank succeeded in bringing banking services to poor women. This is why Grameen Bank concept attracted so much attention from the world.

Terms of Reference of the Commission of Inquiry

Considering the range of the Commissions’ mandate, one fears that the government wants to bring changes in the legal structure and management system of Grameen Bank. The Commission’s TOR includes:

a) To identify the strengths, weaknesses and constraints in the operation of Grameen Bank since its inception till 2010.

b) To recommend measure for ensuring good governance in the Grameen Bank, especially focusing on accountability of management and transparency of operations.

c) Organize the ownership of Grameen Bank, and comment on board representation and qualifications necessary to sit on the board.

What will be the basis against which Grameen Bank’s strengths and weaknesses are measured?

I am sure questions will be raised in the minds of people over the section in the TOR that refers to Grameen Bank’s strengths, weaknesses and constraints. On what basis will the Commission make their judgment? Will they use the rate of loan recovery, interest rate, profit or loss of the bank, number of borrowers served by each staff, quality of MIS, application of information technology in the bank, administrative strengths, benefits received by the staff of Grameen Bank, savings, yearly growth, how much the borrowers have been able to save, and so on, to judge Grameen Bank? Or will they use some other basis for their judgment? Against whom will they compare Grameen Bank to formulate their opinion? Will they fix on some imaginary qualification to form their judgment, or will they compare with other microcredit organizations in Bangladesh to understand and identify Grameen Bank’s ranking? Or will they compare it with other commercial banks-such as Krishi Bank, Sonali Bank, Kormosangsthan Bank or some international bank?

The Commission will surely understand that if they do not base their judgment on reality and give their recommendations based on facts; their report will not be accepted by the people.

Bangladesh Bank audits and inspects Grameen Bank on a yearly basis. The Central Bank has a specific department for this purpose. They have been carrying out this task for many years. They are aware of all information about Grameen Bank-good and bad. Their honest and capable officers have for many years visited the branches of Grameen Bank. They have visited the head office, visited numerous departments to question and assess the state of affairs of Grameen Bank. They have not ever raised any questions, to which Grameen has not provided a satisfactory answer. Year after year they have communicated to us in writing that they do not have any unresolved issue pending.

On one occasion Central Bank raised an important objection.

In 2000, the audit team from Bangladesh Bank raised question on the issue of my retirement. We explained to them that Grameen Bank operates on its own rules and regulations, and within the rules of Grameen Bank, there is no fixed retirement age for the Managing Director. Bangladesh Bank asked us to come with all of our documents; they would review and settle the issue in a formal meeting. Six senior officers, 3 from Bangladesh Bank and 3 from Grameen Bank, met on this issue on January 15, 2001. At this meeting it was decided that if Grameen Bank provides copies of relevant documents to Bangladesh Bank, then the issue would be consider resolved.

The meeting was recorded and the minutes were signed by all participants. Grameen Bank provided the documents asked for. When Bangladesh Bank accepted that the issue had been resolved, my age was 61 years and 6 months. Even though my age was more than 60, and on reviewing the documents, Bangladesh Bank did not feel that there were any unresolved issues. In the intervening years, in their annual audit reports, Bangladesh Bank did not raise this matter ever again.

It was not that Bangladesh Bank forgot to raise their questions on this matter; they had done their job professionally. We gave our explanation, and they were satisfied with it. The matter rested there until it was raised in 2011, with no reference to the history.

Besides Bangladesh Bank, Grameen Bank is audited and examined on an annual basis by two of the most reputed audit firms of the country. They have repeatedly informed us in writing that our accounts and management practices are at par with international standards.

The Commission has been asked to provide recommendations to ensure good governance, especially accountability of the management and transparency at Grameen Bank.

After so many years of good work, after so many audit reports, after so many research reports, winning so many prizes, and achieving so much honour, when questions are being raised about good governance, transparency and accountability at Grameen Bank, a lot of people, just like me, will become very sad. There are so many organizations which have management qualities of just the opposite kind. But somehow, they are not the ones the government is choosing to pay attention to. That government has chosen to investigate Grameen Bank is causing surprise to a lot of people. Upon reading the TOR, people will wonder if there are other meanings to the words put in the TOR.

It is unfair to put such a great burden on the four honorable members of the Commission. If they are not familiar with the world of microcredit, which I assume they are not, then the task becomes even more complicated for them.

Even though microcredit was born in Bangladesh, it has now spread throughout the entire world. There is no country in the world, rich or poor, where microcredit is not operational. And as a result, throughout the world, there are a lot of experts on microcredit.

There are departments devoted to microcredit at a lot of universities around the world; a lot of research institutes are dedicated to researching microcredit. A lot of publications, in many languages, focus on microcredit. A lot of people have become very well known around the world for managing microcredit programs. Bangladesh is a leading country in the world on microcredit. There are a lot of people in Bangladesh who have gained respect and fame for their work on microcredit.

Much research has been conducted on Grameen Bank, nationally and internationally, numerous research papers have been written, and a lot of research reports have been published in research journals.

Bangladesh Bank is responsible for overseeing the activities of Grameen Bank. Besides this, there is a separate government regulatory body to oversee the activities of microcredit institutions called the Microfinance Regulatory Authority. P.K.S.F. has become very experienced in providing financing for microcredit institutions. It is very difficult to understand why, when there are so many researchers, so many administrators, so many experts, why responsibility has been assigned to persons who probably have no exposure in microcredit.

Judging by the TOR, one begins to wonder whether the government wants someone to tell them that Grameen Bank is a poorly managed institution, needing overhauling. For some reason government may feel that Grameen Bank should not continue operating the same way as it does now. The government wants to run it in its own way. The government is perhaps looking for an opening to introduce its own ideas into the operation of the bank.

Under the current legal framework there is no scope for the government to do that. Under the present law the board, majority members of which are representatives of the borrowers, make all the decisions. In order for the government to make decisions, board structure has to be changed, i.e. the ownership structure must be altered. Perhaps the government is hoping that the Commission will come up with such a recommendation. If the ownership of the bank changes, the board changes; and as a result, everything else changes. Grameen Bank changes.

There is another way. The government can amend the laws without changing the ownership structure in such a way that the board doesn’t have the final decision making power anymore. The board can remain as it is, but it will require government consent for implementing its decisions, and government can direct the bank on any issue.

This is what I get worried about when I read the TOR. I hope my concerns will be proved wrong. But I think I should bring up these concerns to everyone before it is too late. This is the reason why I am drawing your attention.

On 23 April, 2012, a written statement from the finance ministry published in the media, reassured the people that, “No steps have been taken to establish government control on Grameen Bank and no such steps will be taken in future”. This statement relieved us from our worries. But only three weeks later when the TOR of the Inquiry Commission was announced the worries came back with much stronger force. This time it looked menacing and real.

Grameen Bank’s Ownership

From the beginning, the poor women have bought shares of Grameen Bank with their tiny savings. They have been working tirelessly to keep the bank strong, because they know that this is their bank. But now they are very upset that their bank’s ownership is questioned by the government. A shocking question has been placed in front of the Inquiry Commission. The 8.4 million poor women, the people of the country, will anxiously wait for the answers given by the Commission. All those interested in women’s empowerment all over the world will also be waiting them.

The Commission was also asked to provide recommendations on the qualification requirements to be a board member. This is a very unfortunate question. They are owners of Grameen Bank-this is their fundamental qualification. Is the government thinking of creating an elite class among the poor owners? Eighty percent of Grameen Bank owners are illiterate. Until now, the leadership of members who were elected, in the past was never questioned by anyone who worked closely with them. Highly reputed personalities like Professor Iqbal Mahmud, Professor Rehman Sobhan, Dr. Akbar Ali Khan, Professor Kaiser Hossain, Mr. Tabarak Hossain have served as Chairmen of Grameen Bank board with great love and dedication. I can confidently say that none of them would express that the borrower members in the board were any way less eligible than other members of the board.

On behalf of these members and borrowers, Ms. Taslima Begum from the village of Pirgacha in Chapainawabganj received the Nobel Peace Prize in Oslo, with her head held high, with an elegance and confidence comparable to any other person who ever received this prestigious Prize before her. She gave her acceptance speech in a very inspiring Bangla at the Nobel Prize giving ceremony. Bangladesh Television telecast the programme live. I think the ripples she created in the hearts of Bangladeshi women reverberate to this day. Has the Commission been formed to ignore the Taslimas of Bangladesh? One cannot but wonder what is on the government’s mind on this very crucial question.

Grameen Bank’s future will be at stake

On 2 October, 1983 Grameen Bank was launched in an open-air ceremony at the sports ground of Jamurki High School, Tangail at Grameen Bank project’s women gathering. At this gathering, speeches were delivered by the then Finance Minister and by the women borrowers of Tangail, and not by any other government officials.

The fact that Grameen Bank is a poor women’s bank-this was never forgotten. This bank never deviated from its mission throughout its journey from Jobra to Mirpur.

Taking away the ownership and the decision-making power from the poor women would derail Grameen Bank from its mission. Taking this step would take away the very essence of Grameen Bank. The ownership, the participation of the borrowers in the decision making process, the management structure, and the methodology is what made Grameen Bank a world class organization. That winning formula cannot be sacrificed by any means.

This organization is self-reliant financially. Grameen Bank does not take any money from the government or from the donor organizations. This organization has created a new dimension in banking practice. Many bankers around the world are interested to learn from this bank. People look at Grameen Bank with great admiration for its contribution in the world of banking. Globally it has created a positive image of Bangladesh. We expect the government to handle Grameen Bank issues with the care and thoughtfulness it deserves. Since this is an organization of national pride, there should be national consensus around Grameen Bank.

It is difficult to believe that the Commission will make recommendations that will help to realize the dreams of thousands of Grameen Bank workers and its million borrowers, that it will not recommend any steps, which will put the organization at peril.

I hope the Commission will realize that Grameen Bank’s future will be at great risk if by changing the legal framework of Grameen Bank, the governments’ role is increased.

To imagine Grameen Bank as a government bank is itself a scary thought. Grameen Bank is an institution built on strict discipline. If Grameen Bank is transformed into a government institution, that discipline will start eroding very fast. Grameen bank has twenty-four thousand dedicated, hard-working employees who travel through the narrow village roads, whilst carrying at least thirty to forty thousand Taka in cash. One can wonder, how much of this money will be deposited with the bank, and how much of it will vanish into thin air when its administration and supervision become weak. Paying bribes for everything may become routine reality-paying bribe to get a loan, paying bribe for buying postings and promotions, paying bribes to enter into a Grameen Bank group, etc. may become the order of the day. Women may no longer be majority of the borrowers any more. These are all nightmares. Just as dreams can become reality, nightmares too can become reality. We must take firm steps so that this nightmare does not get a chance to become a reality.

In the past, poor management and allegations of massive corruption led to the privatization of the state-run enterprises. In that background, thethought of Grameen Bank going under government management is a frightening thought.

Starting from the Grameen Bank headquarters in Mirpur to each individual rural ‘centre’, the institution works like clockwork. If the government’s management style is employed at Grameen Bank, then, the hard-earned reputation of the bank, earned over the past decades, will disappear in the blink of an eye.

The people of Bangladesh, and in particular, the poor women owners of Grameen Bank, surely do not wish to see such a thing happen. The children of the Grameen Bank borrowers, especially those who had taken student loans and are now doctors and engineers, and other professionals, surely do not want to see the Bank’s ownership and management handed over to the government. If we the nation as a whole, can convince the government that the decision to change the legal structure of Grameen Bank will not do any good to the nation or to the poor, then we can prevent it. We must express our concerns to the government. All over the world Grameen Bank is Bangladesh’s brand name. We must not tarnish this brand name.

Regardless of your political affiliation, profession, age or any other circumstance you may find yourself in, as citizens of Bangladesh we can make an effort to convince the government that changing the legal structure of Grameen Bank would most definitely be a mistake. I request everyone to come forward and take initiatives in every way possible. Those who believe in women’s’ empowerment and financial emancipation of the poor, I request you to become involved in this campaign. I am sending a copy of this message to every Grameen Bank branch, so that the borrowers are well briefed and they can make efforts to protect their ownership of the bank. They may approach the local political and social leaders to bring pressure to the government to stop moving in the wrong direction.

We must all work together to protect Grameen Bank. We must ensure that Grameen Bank continues to be owned and governed by poor women and the bank continues to move forward to reach its goal. If you are concerned about the situation as much as I am, then I urge you to do something to keep Grameen Bank safe and strong.

লিন্ক এখানে

============================

৩ জুন ২০১২, রবিবার

At present, the borrowers own 97% of the shares, and the government the remaining 3%. The reason why the shares owned by the government came down from 25% to 3% is because borrowers kept adding more equity as the bank grew, but the government did not inject any more money. Each share costs Tk 100. When the amount of savings of a borrower exceeds Tk 100, she can buy a share worth Tk 100. Each borrower had always done that. As a result, the percentage of shares of the borrowers has been steadily rising. If this trend continues, the relative share of the government will keep becoming smaller.

হ্যাঁ, এবার পরিস্কার বুঝতে পারছি সরকারের শেয়ার কিভাবে গ্রামীণ ব্যাংকে ৩%। কিন্তু ২৪ মার্চ ২০১১তে প্রকাশিত ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের সাথে সাক্ষাৎকারে ইউনূস কেন বলেছিলেন

Grameen Bank is a strong financial institution. It is an institution of 8.3 million empowered women and men who together own a thriving bank with $1.4 billon in deposits.

But whatever they are today is because of their hard work and diligence. It is their success. The borrowers of Grameen Bank have proved to the world that they are bankable and creditworthy and capable of controlling a major institution, and they have been the inspiration to millions of people all over the world, so why not a power center.

But whatever I or Grameen Bank has achieved, is the result of the efforts of the borrowers.

Grameen Bank has always been on good terms with the government and has viewed the government as the bank’s partner from the start. The government holds a 25% share of the bank, and has always been a strong supporter of the bank in its fight against poverty.

Even the chairman of Grameen Bank is a government appointee, as are two other directors of the board. The relationship has always been a very friendly and cooperative one from both sides.

I don’t know why the present crisis could not have been resolved amicably.

=====================================

২ আগস্ট ২০১২, বৃহস্পতিবার

গ্রামীণ ব্যাংকে এমডি নিয়োগের বিধিতে সংশোধন এনে গ্রামীণ ব্যাংক অধ্যাদেশ আনছে সরকার

ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগের বিধি পরিবর্তন করে ‘সংশোধিত গ্রামীণ ব্যাংক অধ্যাদেশ’ জারি করতে যাচ্ছে সরকার।

এছাড়া গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের নির্ধারিত বয়সের বেশি সময় থাকা বৈধ ছিল কি না তাও খতিয়ে দেখা হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বৃহস্পতিবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে ‘গ্রামীণ ব্যাংক অধ্যাদেশ (সংশোধন) ২০১২ এর খসড়ায় চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়।

বৈঠকের পর মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূঁইঞা এ বিষয়ে সাংবাদিকদের বিস্তারিত জানান।

তিনি বলেন, ৬০ বছর বয়স অতিক্রমের পরও মুহাম্মদ ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থপনা পরিচালকের দায়িত্বে ছিলেন। তার ওই দায়িত্বে এভাবে বেশি সময় থাকা বৈধ ছিলো কি না, তিনি ওই সময়ে কত টাকা নিয়েছেন এবং তা বৈধ ছিলো কি না তা খতিয়ে দেখতে অর্থমন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগকে নির্দেশ দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

এছাড়া গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি থাকাকালে ইউনূস ওয়েজ আর্নার হিসেবে কত টাকা বিদেশ থেকে এনেছেন এবং তিনি তা আনতে পারেন কি না, এনে থাকলে কর অব্যাহতি নিয়েছিলেন কি না- সেসব বিষয়েও একটি প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে (এনবিআর)।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সহযোগিতা নিয়ে এনবিআর এই প্রতিবেদন তৈরি করবে বলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান।

=====================================

২ আগস্ট ২০১২, বৃহস্পতিবার

অত্যন্ত দ্রুততার সাথে ইউনূসের প্রতিক্রিয়া।

গ্রামীণ ব্যাংক রক্ষায় এগিয়ে আসুন: ইউনূস

সরকার গ্রামীণ ব্যাংকের মালিকানা পুরোপুরি নিতে চায় দাবি করে তা প্রতিরোধে দেশবাসীকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুহাম্মদ ইউনূস।

ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগের বিধি পরিবর্তন করে ‘সংশোধিত গ্রামীণ ব্যাংক অধ্যাদেশ’ জারির একটি প্রস্তাব বৃহস্পতিবার মন্ত্রিসভা অনুমোদনের পর এক বিবৃতিতে তিনি এই আহ্বান জানান।

নোবেলজয়ী ইউনূস বলেন, “আমি আগে থেকে এই শঙ্কা প্রকাশ করে এসেছি। এখন আমার শঙ্কা বাস্তবে রূপ নিতে শুরু করেছে।”

“গরিবের মালিকানায় পরিচালিত গরিবের ব্যাংকটি থেকে মালিকানা এবং মালিকানা প্রয়োগের ক্ষমতা থেকে গরিব মালিকদের বঞ্চিত হতে দেখে আমি অত্যন্ত মর্মাহত হয়েছি,” বলেন তিনি।

ইউনূস বলেন, “গরিবের সম্পদ এবং দেশের সম্পদ রক্ষায় এগিয়ে আসার জন্য দেশবাসীর প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি।”

আবারও সেই সুশীলসঙ্গীতানুষ্ঠান

http://nirmaaan.com/blog/abishchruto/6392

Advertisements
6 Comments
  1. ইউনূস সেন্টারের প্রতিক্রিয়া, জবাব দিল ডেইলি কলার

    নোবেলজয়ী বাংলাদেশি মুহাম্মদ ইউনূসের প্রতিষ্ঠানকে হিলারি ক্লিনটনের তহবিল জোগানোর খবরের প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ইউনূস সেন্টারের বক্তব্যকে ‘ভিত্তিহীন’ বলে উড়িয়ে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদপত্র ডেইলি কলার।

    পররাষ্ট্রমন্ত্রী পদের প্রভাব খাটিয়ে হিলারির ১ কোটি ৩০ লাখ ডলার জোগানোর খবর গত ১৭ এপ্রিল ডেইলি কলার দেওয়ার পর তার ভিত্তিতে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

    তার প্রতিক্রিয়া ইউনূস সেন্টার জানানোর পর সেই বক্তব্য বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম ওয়াশিংটনভিত্তিক সংবাদপত্রটিকে জানালে তারা ই-মেইলে প্রতিক্রিয়া পাঠায়।

    স্বার্থের সংঘাত ঘটিয়ে হিলারির ওই অর্থ জোগানোর প্রতিবেদন প্রকাশের সময় গ্রামীণ ফাউন্ডেশন, যুক্তরাষ্ট্র বক্তব্য জানাতে রাজি হয়নি বলে ডেইল কলারের প্রতিবেদনে উল্লেখ ছিল।

    খবর ছাপা হওয়ার পর বাংলাদেশ থেকে ইউনূস সেন্টারের প্রতিক্রিয়া পেয়ে তাকে ভিত্তিহীন দাবি করে সংবাদপত্রটি বলেছে, অনেক ক্ষেত্রে তাদের নীরবতা ও এড়িয়ে যাওয়া উদ্বেগের বিষয় হওয়া উচিত।

    ডেইলি কলার তাদের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে বলেছিল, ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের পদ হারানোর পর যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক তার নানা প্রতিষ্ঠানকে ইউএসএআইডিসহ ১৮টি সংস্থার মাধ্যমে অনুদান, ঋণ কিংবা কাজ হিসেবে রাষ্ট্রীয় ১ কোটি ৩০ লাখ ডলার পাইয়ে দেওয়া হয়।

    বিপরীতে ক্লিনটন ফাউন্ডেশনে ইউনূসের এক লাখ থেকে তিন লাখ ডলার দান করার কথাও ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল।

    ইউনূস সেন্টারের প্রতিবাদপত্রে বলা হয়, ডেইলি কলারের প্রতিবেদনটি পাঠকদের মধ্যে ‘ব্যাপক ভুল বোঝাবুঝির’ সৃষ্টি করেছে।

    এ বিষয়ে ডেইলি কলারের বক্তব্য হচ্ছে, প্রতিবেদনটি প্রকাশের আগে গ্রামীণ ফাউন্ডেশন, যুক্তরাষ্ট্র বা ক্লিনটন ফাউন্ডেশনকে অনুরোধ করা হলে তারা সাড়া দেননি।

    “ইউনূস নিজেও আমাদের সাক্ষাৎকারের অনুরোধে সাড়া দেননি,” ই-মেইলে জানায় ডেইলি কলার।

    ইউএসএআইডি যে অর্থ দিয়েছিল তা প্রধানত চুক্তি ও বিনিয়োগ এবং ছোট একটি অংশ অনুদান ছিল বলে ইউনূস সেন্টারের দাবিও নাকচ করেছে নিউজ পোর্টালটি।

    যুক্তরাষ্ট্রের সরকারি ওয়েবসাইটকে উদ্ধৃত করে তারা বলছে, গ্রামীণ ফাউন্ডেশন, যুক্তরাষ্ট্রকে দেওয়া ১৮টির মধ্যে ১২টি অর্থায়ন ছিল অনুদান এবং কেবল তিনটি ছিল ঋণ।

    ইউনূস সেন্টারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, “অধ্যাপক ইউনূসকে অনুদান, চুক্তি ও ধার হিসেবে এক কোটি ৩০ লাখ ডলার স্টেট ডিপার্টমেন্ট থেকে দেওয়া হয় বলে প্রতিবেদনে সম্পূর্ণ ভুলভাবে জানানো হয়। স্টেট ডিপার্টমেন্টের এই ধরনের কাজের কোনো এখতিয়ার নেই।”

    এ বিষয়ে ডেইলি কলারের বক্তব্য হচ্ছে,‍ ‍“আমাদের প্রতিবেদনে বলা হয় তহবিলটি দেওয়া হয়েছিল ইউএস এজেন্সি ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট থেকে, যা স্টেট ডিপার্টমেন্টেরই একটি বর্ধিত অংশ।”

    তারা বলছে, ক্লিনটন ফাউন্ডেশন তাদের ওয়েবসাইটজুড়ে ইউনূসের অতি প্রশংসা করেছে। ‍

    গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইউনূসের সঙ্গে ক্লিনটন পরিবারের ব্যক্তিগত ঘনিষ্ঠতা রয়েছে। ২০০৯ সালে হিলারি পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকার সময় তাকে যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মানে ভূষিত করা হয়।

    গ্রামীণ ব্যাংককে ইউরোপের দেওয়া তহবিল সরানোর অভিযোগ উঠার প্রেক্ষাপটে বয়সসীমা অতিক্রমের কারণ দেখিয়ে ২০১১ সালে ইউনূসকে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে সরানোর পর হিলারির ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া এসেছিল।

    ইউনূসকে সরানোর কারণে অন্য দেশ থেকে চাপ এসেছিল বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পরে বিভিন্ন সময়ে বলেছেন। গত বছর হিলারির ফাঁস হওয়া ই-মেইলেও তার এই তদ্বির চালানোর বিষয়টি প্রকাশ পায়।

    অব্যাহতি দেওয়ার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আইনি লড়াই চালিয়ে ইউনূস হেরে যাওয়ার পর থেকে গ্রামীণ ব্যাংকের কর্তৃত্ব নিয়ে আওয়ামী লীগ সরকারের সঙ্গে ইউনূসের শীতল সম্পর্ক চলছে।

    এই প্রেক্ষাপটে হিলারি যুক্তরাষ্ট্রের আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেটিক দলের প্রার্থী হতে অনেকটা এগিয়ে যাওয়ার মধ্যে তার প্রতিদ্বন্দ্বী রিপাবলিকান পার্টিঘেঁষা ডেইলি কলার ওই প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

    গ্রামীণ ব্যাংক নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের ১৩৬ পৃষ্ঠার তদন্ত প্রতিবেদনে ‘স্বৈরাচারী কায়দায়’ ইউনূসের প্রতিষ্ঠান পরিচালনা বিষয়ে ইউনূস সেন্টারের নীরবতা নিয়ে প্রশ্ন ‍তুলেছে ডেইলি কলার।

    সেনা-নিয়ন্ত্রিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে ‘সামরিক কর্মকর্তাদের দিকে ইউনূসের অতি আগ্রহ’ নিয়ে কিছু বলা থেকেও ইউনূস সেন্টার নীরব থেকেছে বলে মন্তব্য করেছে যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদপত্রটি।

    ই-মেইলে আরও বলা হয়েছে, “মুহাম্মদ ইউনূসকে নোবেল শান্তি পুরস্কার পাইয়ে দিতে প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন ব্যক্তিগতভাবে নোবেল কমিটির কাছে যে ব্যাপক লবিং চালিয়েছিলেন, সে বিষয়েও ইউনূস সেন্টার কিছু বলেনি।”

    লাভজনক ও অলাভজনক প্রতিষ্ঠানসহ ইউনূস যে বিশাল ‘ব্যবসায়িক সাম্রাজ্য’ গড়ে তুলেছেন সে বিষয়েও ইউনূস সেন্টারের নীরবতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে তারা।

    ডেইলি কলার আরও বলেছে, গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের করা তদন্তের সমালোচনা করে হিলারি যে ‘নজিরবিহীন হস্তক্ষেপ’ করেছে, সে বিষয়েও ইউনূস সেন্টার কিছু বলেনি।

    প্রতিক্রিয়ায় সংবাদপত্রটি বলেছে, ক্লিনটন পরিবারের সঙ্গে ইউনূসের যে গভীর সম্পর্ক ছিল, তা বর্তমানে এফবিআইয়ের তদন্তেও রয়েছে।

    http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1140111.bdnews

  2. হাসিনাকে চাপ দিতে ইউনূস-হিলারি যোগ: তদন্তে যুক্তরাষ্ট্রের সিনেট কমিটি
    http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1344338.bdnews

    বাংলাদেশে মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে তদন্ত আটকাতে হিলারি ক্লিনটন তার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পদের প্রভাব খাটিয়েছিলেন কি না, তার তদন্ত শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগ সংক্রান্ত সিনেট কমিটি।

    সিনেট কমিটির চেয়ারম্যান চাক গ্রাসলি এই বিষয়ে কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর চেয়ে চিঠি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসনকে।

    ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্র মিশনের সাবেক উপ-প্রধান জন ডানিলোভিচকে জিজ্ঞাসাবাদও করতে চেয়েছে সিনেট কমিটি।

    যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সজীব ওয়াজেদ জয় অভিযোগ করে আসছিলেন, তার মা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চাপে রাখতে এবং ইউনূসের বিরুদ্ধে তদন্ত আটকাতে হিলারির কর্মকর্তারা তাকেও হুমকি দিয়েছিল।

    বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও বলছেন, গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে ইউনূসকে সরানোর পর নিয়মিত ‘থ্রেট’ করত যুক্তরাষ্ট্র।

    বয়সসীমা অতিক্রান্ত হওয়ার কারণ দেখিয়ে ২০১১ সালে ইউনূসকে যখন গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে সরানো হয়, তখন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন হিলারি ক্লিনটন; যিনি এবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে হেরে যান।

    নোবেলজয়ী বাংলাদেশি ইউনূস যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন ও হিলারি ক্লিনটনের পারিবারিক বন্ধু; ক্লিনটন ফাউন্ডেশনে ইউনূসের লাখ ডলার তহবিল জোগানোর পাশাপাশি ইউনূসকে ১ কোটি ৩০ লাখ ডলারের তহবিল জোগাতে হিলারির প্রভাব খাটানোর অভিযোগও যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যমে এসেছে।

    সিনেট কমিটির চেয়ারম্যান গ্রাসলি পররাষ্ট্রমন্ত্রী টিলারসনকে পাঠানো চিঠির সঙ্গে জয়ের বিরুদ্ধে সম্পদের হিসাব চাওয়ার হুমকি দেওয়া বিষয়ক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনও যুক্ত করে দিয়েছেন।

    জয় বলে আসছেন, তিনি বৈধভাবে ১৭ বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রে থেকে এলেও কখনও কোনো সমস্যার মুখে পড়েননি। কিন্তু ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংক থেকে সরানোর পর ওই সময় পররাষ্ট্র দপ্তরের কর্মকর্তারা তার বিরুদ্ধে কর ফাঁকির অভিযোগ এনে তদন্ত শুরুর হুমকি দিয়েছিলেন।

    গত ১ জুন পাঠানো চিঠিটি নিজের ওয়েবসাইটেও প্রকাশ করেছেন সিনেটর গ্রাসলি। তাতে ‘ব্যবসায়ী’ ইউনূসের জন্য ‘বিশেষ খাতিরের’ অভিযোগের কথা বলা হয়েছে।

    তদন্তের স্বার্থে কমিটির সামনে হাজির হওয়ার জন্য ঢাকায় তখন কাজ করে যাওয়া জন ডানিলোভিচকে প্রস্তুত রাখতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে বলেছেন তিনি।

    চিঠিতে তিনি বলেছেন, “যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতির বাইরে গিয়ে শুধু ব্যক্তিগত ও ক্লিনটন ফাউন্ডেশন থেকে উৎসারিত আর্থিক সম্পর্কের কারণে একটি সার্বভৌম সরকারের স্বাধীন তদন্তে হস্তক্ষেপে পররাষ্ট্রমন্ত্রী (হিলারি) যদি তার ক্ষমতা ব্যবহার করে থাকেন, তাহলে সেটা অগ্রহণযোগ্য।”

    পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে হিলারির ক্ষমতার সঙ্গে তার পারিবারিক ফাউন্ডেশন মিলেমিশে গিয়ে থাকলে সেটাকে ‘সমানভাবে অসঙ্গত’ বলেছেন গ্র্যাসলি।

    চিঠিতে তিনি লিখেছেন, “এই তদন্ত আটকাতে প্রধানমন্ত্রীর ছেলের (জয়) বিরুদ্ধে সম্পদের হিসাব নেওয়ার হুমকি দেওয়ার ক্ষেত্রে পররাষ্ট্র দপ্তরের কোনো ভূমিকা ছিল কি না, তা নির্ধারণ করা জরুরি।”

    পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকার সময়কার হিলারির ই-মেইল পরে প্রকাশিত হলে তাতে দেখা যায়, ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে হাসিনা সরকারের সঙ্গে দ্বন্দ্ব ঘোচাতে হিলারি ক্লিনটনের সহায়তা চাওয়ার ক্ষেত্রে ইউনূস নাছোড়বান্দা ছিলেন।

    ই-মেইল উদ্ধৃত করে গ্রাসলি লিখেছেন, হিলারি ক্লিনটনসহ পররাষ্ট্র দপ্তরের কর্মকর্তারা ও ক্লিনটন ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তারা ইউনূসকে তার ব্যাংক থেকে সরানোর ঘটনাপ্রবাহ গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করেছেন। সেইসঙ্গে ‘ইউনূসের বিষয়ে তদন্তের উদ্যোগ বন্ধ করতে চাপ প্রয়োগের জন্য’ যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে চেয়েছিলেন।

    বাংলাদেশি ওই তদন্তের বিষয়ে রাজস্ব বিভাগের নিরীক্ষার কথা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে পররাষ্ট্র দপ্তরের কোনো কর্মকর্তা বলেছিলেন কি না এবং বিষয়টি পররাষ্ট্র দপ্তরের মহাপরিদর্শক বা বিচার বিভাগের পর্যালোচনার জন্য পাঠানো হয়েছিল কি না, তা পররাষ্ট্র দপ্তরের কাছে জানতে চেয়েছেন সিনেটর গ্রাসলি; চিঠিতে সংযুক্ত পররাষ্ট্র দপ্তরের সব ই-মেইলের অবিকৃত কপিও চেয়েছেন।

    সেইসঙ্গে ইউনূসের ঘটনায় হস্তক্ষেপ করতে ব্যর্থ হলে সজীব ওয়াজেদকে নিয়ে রাজস্ব বিভাগের তদন্তের কথা বলার অভিযোগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য জন ডানিলোভিচকে কমিটির মুখোমুখি করার বিষয়ে পররাষ্ট্র দপ্তরকে প্রস্তুত থাকতে বলেছেন তিনি।

    চিঠিতে বলা হয়েছে, জয়ের বক্তব্য অনুযায়ী ২০১০-১২ সময়ে পররাষ্ট্র দপ্তরের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে তার বেশ কয়েকবার কথা হয়েছিল। প্রায় প্রতিটি বৈঠকেই ইউনূস তদন্তের বিষয়টি সামনে এনে তা বন্ধ করতে তার উপর চাপ দেওয়া হত বলে তিনি বলছেন।

    ওই কর্মকর্তাদের মধ্যে ঢাকায় সাবেক রাষ্ট্রদূত জেমস মরিয়ার্টি ও ড্যান মজীনা, সাবেক মিশন উপ-প্রধান জন ডানিলোভিচ ও ইউএসএআইডির প্রশাসক রাজিব শাহের নাম রয়েছে।

    ডানিলোভিচের সঙ্গে দুই বারের সাক্ষাতের কথা স্মরণ করেছেন জয়, যেখানে মায়ের প্রভাব খাটিয়ে ইউনূসের বিষয়ে তদন্ত বন্ধ করতে ব্যর্থ হলে জয়ের বিরুদ্ধে রাজস্ব বিভাগের নিরীক্ষা হতে পারে বলে উল্লেখ করেছিলেন ডানিলোভিচ।

    জয়কে উদ্ধৃত করে চিঠিতে বলা হয়, ইউনূসের বিষয়ে বারবার উদ্বেগ জানিয়ে বার্তা পাঠানোর সময় পররাষ্ট্র দপ্তরের কর্মকর্তারা প্রায়েই দুঃখ প্রকাশ করতেন। তারা যে শুধু শীর্ষ পর্যায়ের কর্তাদের বার্তাবাহক হিসেবে কাজ করতেন তা স্পষ্ট করতেন।

    “উপরন্তু, কয়েক কর্মকর্তা তাকে বলেন যে ইউনূস সহায়তা চেয়ে ক্লিনটন ও সহকারীর সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন। ফলে ইউনূসের পক্ষ হয়ে হস্তক্ষেপ করতে বাংলাদেশে দূতাবাসকে চাপ দিতেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্লিনটনের সহকারী।”

    চিঠির বক্তব্য অনুযায়ী, কয়েক দশক ধরে ক্লিনটন ফাউন্ডেশনের সঙ্গে জড়িত ইউনূস; বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানেও তাকে উপস্থিত দেখা গেছে।

    “ইউনূসের পক্ষে বিল ক্লিনটন নিজে নোবেল কমিটির কাছে তদবির করেছেন এবং ২০০৬ সালে তাকে নোবেল পুরস্কার দেওয়া হয়।”

    প্রতিবেদন অনুযায়ী, ইউনূসের কোম্পানি ক্লিনটন গ্লোবাল ইনিশিয়েটিভকে এক লাখ থেকে আড়াই লাখ ডলার ও ক্লিনটন ফাউন্ডেশনকে ২৫ হাজার থেকে ৫০ হাজার ডলার দিয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার পর ক্লিনটন-ইউনূস সম্পর্ক আরও গভীর হয়।

    ২০১১ সালের মার্চে হিলারির অফিস থেকে ফোন করে গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি পদে পুনর্বহালের দাবি জানানো হয়েছিল বলে চলতি বছরের মে মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিশ্চিত করেছেন।

    চিঠিতে সিনেটর লিখেছেন, ‘অর্থের বিনিময়ে তদবিরের’ নতুন এই প্রমাণ ও বিশেষ খাতির দৃশ্যত প্রমাণ করে যে ক্লিনটন ফাউন্ডেশনে অনুদান দেওয়ার ফলে হিলারির দপ্তরের ‍বিশেষ আনুকূল্য পেয়েছিলেন ইউনূস।

    গ্রাসলি বলেন, “২০১৬ সালের অগাস্টেও বিচার বিভাগের কাছে চিঠিতে লিখেছিলাম, বিশেষ ক্ষেত্রে দায়মুক্তি ছাড়া নিজের ব্যক্তিগত স্বার্থ বা স্বামী-স্ত্রীর মতো সম্পর্কিত কারোর বা তাদের সংগঠনের স্বার্থের সঙ্গে প্রত্যক্ষ প্রভাব বা সম্ভাব্য প্রভাব থাকলে নির্বাহী বিভাগে নিয়োজিতরা ফেডারেল আইন অনুযায়ী সেখানে জড়িত থাকতে পারে না।

    “পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্লিনটন এসমস্ত বিধি লঙ্ঘন করে এবং পররাষ্ট্র দপ্তরের সততায় জনসাধারণের আস্থাকে ছোট করে যৌক্তিক সংশয়ের জন্ম দিযেছেন।”

  3. প্রধানমন্ত্রীর কথা নিয়ে ইউনূস সেন্টারের জবাব

    http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1352778.bdnews

    প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গ্রামীণ ব্যাংকের পদ ধরে রাখা, আয়কর না দেওয়া, পদ হারানোর পর ক্ষোভ থেকে পদ্মা সেতুতে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়ন আটকানো, হিলারি ক্লিনটনকে দিয়ে ফোন করানোর যে কথা বলে আসছেন মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে, তার জবাব এসেছে ইউনূস সেন্টারের পক্ষ থেকে।

    সুইডেনের স্টকহোমে সাম্প্রতিক সফরে প্রবাসীদের দেওয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় সোমবার ইউনূস সেন্টারের পক্ষ থেকে এই জবাব আসে।

    এসব অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে ইউনূস সেন্টার বলেছে, “এই অসত্য অভিযোগগুলো এর আগেও তোলা হয়েছে এবং এগুলোর জবাবও প্রতিবারই দেওয়া হয়েছে। আমরা আবারো এগুলোর জবাব দিচ্ছি।”

    নোবেলজয়ী বাংলাদেশি ইউনূসকে বয়সসীমা অতিক্রান্তের কারণ দেখিয়ে ছয় বছর আগে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হলে বাংলাদেশ ব্যাংকের সেই পদক্ষেপ চ্যালেঞ্জ করে আদালতে গিয়ে হেরেছিলেন তিনি।

    আদালতের রায়ের পর ওই পদ ছেড়ে দিলেও তারপর তিনি সরকারের প্রতি ক্ষোভ থেকে নানা পদক্ষেপ নেন বলে শেখ হাসিনার বক্তব্যে নানা সময়ে উঠে আসে।

    ব্যক্তিগত সম্পর্ক থেকে ইউনূস যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনকে দিয়ে ‘থ্রেট’ করিয়েছিলেন বলেও শেখ হাসিনার কথায় আসে। ক্লিনটন ফাউন্ডেশনকে দেওয়া ইউনূসের অনুদানের খবর যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যমে আসে।

    শেখ হাসিনাপুত্র সজীব ওয়াজেদ জয় এসব অভিযোগ তোলার পর বহির্দেশের বিষয়ে হিলারি তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী পদের প্রভাব খাটিয়েছিলে কি না, তা খতিয়ে দেখতে সম্প্রতি উদ্যোগ নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের একটি সিনেট কমিটি।

    এই বিষয়ে ইউনূস সেন্টারের প্রতিক্রিয়ায় বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসনকে সিনেটর চাক গ্র্যাসলির চিঠি দেওয়াকে তদন্ত বলা যায় না।

    “এ ধরনের চিঠি মানেই তদন্ত নয়, তদন্ত আরও গভীর একটি প্রক্রিয়া। সিনেটের বিচার বিভাগীয় কমিটিতে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিতর্কের পর কমিটি তদন্তের সিদ্ধান্ত নিলে তদন্তের বিষয়বস্তু সুনির্দিষ্ট হবার পরই কেবল তদন্ত শুরু হয়।”
    তবে এনিয়ে তদন্ত হলে তাকে স্বাগত জানানো হবে জানিয়ে ইউনূস সেন্টার বলেছে, “এ ধরনের কোনো তদন্ত হলে প্রকৃত সত্য বেরিয়ে আসবে। বর্তমানে প্রফেসর ইউনূসকে মিথ্যা প্রচারণার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করা হয়েছে। প্রকৃত সত্য উদ্ঘাটিত হলে মিথ্যার কোনো জায়গা থাকবে না।”

    ইউনূস কখনও ক্লিনটন গ্লোবাল ইনিশিয়েটিভকে কোনো চাঁদা দেননি দাবি করে বলা হয়েছে, তিনি ক্লিনটন গ্লোবাল ইনিশিয়েটিভের অনুষ্ঠানে শুধু বক্তা হিসেবে যোগদান করেছেন এবং এজন্য কোনো ফি নেননি।

    হিলারিকে দিয়ে ফোনের অভিযোগ নাকচ করে ইউনূস সেন্টার বলেছে, “হিলারি ক্লিনটন প্রধানমন্ত্রীকে ফোন করে থাকলে তা তিনি নিজে থেকেই করেছেন…. স্ব-উদ্যোগেই করেছেন।”

    পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিশ্ব ব্যাংকে অর্থায়ন আটকানোর অভিযোগের প্রতিক্রিয়ায় ইউনূস সেন্টারের বক্তব্য, “তিনি বরাবরই বাংলাদেশের কোটি কোটি মানুষের স্বপ্ন পদ্মা সেতু প্রকল্পের একজন সমর্থক এবং এই স্বপ্নের বাস্তবায়নে তার বাধা হয়ে দাঁড়ানোর কোনো প্রশ্নই আসে না।”
    গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাকালে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদে অধিষ্ঠিত হওয়ার পর পরিচালনা পর্ষদের অনুরোধেই কেবল তিনি পদটিতে থাকছিলেন বলে ইউনূস সেন্টারের দাবি।

    “তিনি যতবারই এই পদ ছেড়ে দিতে চাইছিলেন, প্রতিবারই পরিচালনা পরিষদের সদস্যরা তাকে চলে না যেতে অনুরোধ করছিলেন।”

    কর ফাঁকির অভিযোগ নিয়ে ইউনূস সেন্টার বলেছে, “প্রফেসর ইউনূসের নিকট কর বিভাগের কোনো কর দাবি নেই বা তার কোনো বকেয়া করও নেই। তার আয় ও কর সংক্রান্ত সব তথ্য কর কর্তৃপক্ষের নিকট রয়েছে।

    “এর মধ্যে সরকার একটি কাজ করেছে, তার আয়কর রিটার্নের কয়েকটি ক্ষেত্রে আয়কর আইনের একটি দীর্ঘদিন ধরে অনুসৃত ব্যাখ্যা থেকে কর কর্তৃপক্ষ আকস্মিকভাবে সরে এসেছে এবং তার ফলে তাকে অতীতে দেওয়া সকল রিটার্নের উপর আবার অতিরিক্ত আয়কর দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
    “প্রফেসর ইউনূস আয়কর আইনের এই নতুন ব্যাখ্যার বিরুদ্ধে আদালতে আবেদন করেছেন। বিষয়টি এখন আদালতে বিচারাধীন।”

    গ্রামীণ ব্যাংকের অর্থ সরানোর কোনো ঘটনা ঘটলে তা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বার্ষিক নীরিক্ষায় ধরা পড়ত, বলেছে ইউনূস সেন্টার।

    বিশ্বে ইউনূসের মালিকানাধীন কোনো প্রতিষ্ঠান নেই দাবি করে ইউনূস সেন্টার বলেছে, “পৃথিবীর কোথাও কোনো কোম্পানিতে তার কোনো শেয়ার নেই।

    “তিনি ব্যাংকের টাকা আত্মসাৎ করে তার নিজের নামে কোম্পানি তৈরি করেছেন- এই বক্তব্য প্রতিষ্ঠা করতে হলে প্রমাণ প্রয়োজন। এ ধরনের কোনো প্রমাণ হাজির করার কোনো গরজ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আছে বলে মনে হয় না।”

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: