Skip to content

ইউনূসমিতি ১

May 28, 2013

২০ অক্টোবর ২০০৮, সোমবার

বাঁচায় ঋণ, মারে কিস্তি।

http://nirmaaan.com/blog/masudkarim/822

===============

২০ অক্টোবর ২০১০, বুধবার

সামাজিক কার্যকলাপের পাশাপাশি আরেকটি শব্দ সব সময় শোনা যায় অসামাজিক কার্যকলাপ। এক্ষেত্রেও কি তাই হবে ইউনুস করেন সামাজিক ব্যবসা আর জগৎসুদ্ধ লোক করেন অসামাজিক ব্যবসা? social business-এর মাধ্যমে ইউনুস কী বোঝাতে চাইছেন, তার অভিপ্রায় সমাজতান্ত্রিক ব্যবসা বোঝানো নয় তো? আসলে ইউনুস কখনোই তত্ত্ব বোঝাতে ও প্রকাশ করতে পারেননি, তাই অনেক বছর তার নাম অর্থনীতি নিয়ে শোনা গেলেও তিনি তার প্রাণভোমরা ‘নোবেল’ শান্তিতে পেয়েছেন। আমরা জানি আরো হাজার হাজার বই লিখলেও তিনি কোনোদিন ‘শক্তি দই’ কেন social business এটা প্রকাশ করতে পারবেন না। কারণ সেই মুরোদ তার নেই তা এতদিনে পরিস্কার হয়ে গেছে। আসল ব্যাপার হল ‘ক্ষুদ্র ঋণ’ -এর মূল চাবি ইউনুস-এর হাতছাড়া হয়ে গেছে অনেক দিন, বাংলাদেশে এখন অন্য আরো অনেক প্রতিষ্ঠান তার চেয়ে অনেক বেশি ‘ক্ষুদ্র ঋণ’ বিতরণ করে, তাই আগের মতো ‘ক্ষুদ্র ঋণ’-এর নামে বিদেশি ‘ঋণ বিনিয়োগ’ বাণিজ্যে তার আধিপত্য হারিয়ে তিনি একটি নতুন পন্থা বের করেছেন ‘সামাজিক ব্যবসা’য় বিনিয়োগ। সেই ‘সামাজিক ব্যবসা’ অন্যসব ‘অসামাজিক ব্যবসা’ থেকে অনেক উন্নত, সেখানে ব্যবসাটা শুধু লাভভিত্তিক নয়, সমাজের প্রগতিভিত্তিক অনেকটা ‘সমাজতান্ত্রিক ব্যবসা’। যেমন welfare state-কে বলা হত প্রায় socialist state। ইউনুস এক গোলকধাঁধার নাম, যাকে আমাদের চেয়ে পশ্চিমের এজেন্ডাগ্রস্ত শান্তিকামী বিনিয়োগকারীরা অনেক ভাল বুঝতে পারেন। সেই গর্বে তার জীবনের পা উড়ে উড়ে চলে তো চলুক।

============

২৯ অক্টোবর ২০১০, শুক্রবার

সাধারণ ব্যবসায় কার কার স্বার্থ থাকে? — ১. বিনিয়োগকারী ২. কর্মচারী ৩. ভোক্তা ৪. যাবতীয় রাজস্ব প্রতিষ্ঠান বা আরো বড় অর্থে সরকার।

তাহলে সামজিক ব্যবসায় কার কার স্বার্থ থাকবে?– অবশ্যই ওই চারটি স্বার্থের বাইরে সামাজিক সমস্যাগুলোর একটা স্বার্থ থাকবে। খুব সহজে আমি এটাই বুঝতে চেষ্টা করছি। আমাদের এখন জানতে হবে আমাদের সামনে কী কী সামাজিক ব্যবসা এর মধ্যে শুরু হয়েছে ও হবে।

গ্রামীণ ড্যানোনের শক্তি দই উৎপাদন সামাজিক ব্যবসার একটি বড় উদাহরণ বলে অভিমত দেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস। তিনি তাঁর প্রতিষ্ঠিত গ্রামীণ ব্যাংকের সঙ্গে বিশ্বের নামকরা প্রতিষ্ঠানের যৌথভাবে সামাজিক ব্যবসার উদ্যোগ শুরু করার কথা জানান। তিনি বলেন, বাংলাদেশে প্রয়োজনের তুলনায় অর্ধেক সেবিকা (নার্স) রয়েছেন। ইতিমধ্যে তাঁর প্রতিষ্ঠান একটি নার্স কলেজ স্থাপন করেছে। আরও ১৩টি নার্স কলেজ স্থাপন করা হবে। নার্স তৈরির মাধ্যমে চিকিৎসা খাতে নার্সিং সুবিধা বাড়ানোর উদ্যোগও একটি সামাজিক ব্যবসা। এ ছাড়া কেমিক্যাল কোম্পানি বিএএসএফের সহায়তায় বিশেষ ধরনের মশারি তৈরির উদ্যোগ শুরু হয়েছে। এ ছাড়া বিশ্বখ্যাত পাদুকা প্রস্তুতকারী কোম্পানি অ্যাডিডাসের সঙ্গে জুতার ব্যবসা শুরুর বিষয়টি আলোচনা চলছে বলে ড. ইউনূস জানান।

সূত্র : সামাজিক ব্যবসা সব সামাজিক সমস্যার সমাধান করতে পারে: ড. ইউনূস
তাহলে আমরা এখন থেকে সবাই মিলে জানতে চেষ্টা করব তার উল্লেখিত এই ব্যবসাগুলোর গতিপ্রকৃতি। আজো ‘শক্তিদই’ নিয়ে প্রচলিত মিডিয়াতে এর উদ্বোধন ছাড়া তেমন বড় কিছু আমরা জানতে পারিনি। হয়তো প্রচলিত মিডিয়া আমাদের এ নতুন বিষয়টি নিয়ে ঠিক মতো জানাতে পারছে না, কিন্তু এখন থেকে আমরা চেষ্টা করব কোনো ছোট সূত্র পেলেও এ সম্বন্ধে জানতে। আর ইউনূস সাহেবেরও উচিত হবে আমাদের মিডিয়াকে সামনে কী কী হবে এর চেয়ে শক্তি দই ও নার্স প্রকল্প নিয়ে নিচের বিষয়গুলো পরিস্কার করা :
১. বিনিয়োগকারীর স্বার্থ : আমরা বুঝতে পারছি বিনিয়োগকারী শুধু তার বিনিয়োগকৃত অর্থ ১/৫/১০/৩০… বছর পর যখনই তুলতে চান ফেরত পাবেন। অর্থাৎ ১০০০ টাকা বিনিয়োগ করলে বিনিয়োগকারীর স্বার্থ শুধু ১০০০ টাকা ফেরত পাওয়া এবং মুনাফা হিসাবে এটা জানা যে তার বিনিয়োগের ফলে এই এই সামাজিক সমস্যার সমাধান হয়েছে। সামাজিক ব্যবসায় ক্ষতি হলে কী হবে? নাকি সামাজিক ব্যবসায় ক্ষতির কোনো সম্ভাবনা নেই, যেমন ক্ষুদ্রঋণ ব্যবসায় কোনো ক্ষতি হয় না।
২. কর্মচারীর স্বার্থ : তার বেতন ও সব ধরণের নিশ্চয়তা নিয়ে ইউনূস সবসময়ে উচ্চকণ্ঠ। তিনি সামাজিক ব্যবসার কর্মচারীদের ইউনিয়ন করতে দেবেন কি?
৩. ভোক্তার স্বার্থ : কারা কেনেন শক্তি দই? তিনি কি শক্তি দই-এর দাম/গুণ বিবেচনায় সন্তুষ্ট?
৪. সরকারের স্বার্থ : এই ব্যবসা থেকে সরকার কি রাজস্ব পাবেন? পেলে কি কি খাতে? এটা জানানো খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
৫. সামাজিক সমস্যার স্বার্থ : এবিষয়ে আরো আরো বেশি তথ্য পরিসংখ্যান নির্ভর লেখা মিডিয়ায় আসা উচিত ইউনূস থেকে। কারণ যেহেতু সামাজিক ব্যবসার প্রায়োগিক কিছু ক্ষেত্র এখন প্রস্তুত সেই ভাতগুলো এখন টিপে দেখানোই হওয়া উচিত ইউনূসের এখন একমাত্র কাজ।

@ ডঃ সামিম উল মওলা ইউনূস ব্যক্তি মানুষ কীরকম তা জানার আমার অন্তত কোনো উৎসাহ নেই। তিনি সামাজিক ব্যবসা হিসাবে ‘একটি নার্স কলেজ’ প্রতিষ্ঠার কথা বলেছেন, আপনার দ্বারা কি সম্ভব এই সামাজিক ব্যবসাটা কিভাবে চলে তার একটা ধারণা আমাদেরকে দেয়া?

গ্রামীণ ব্যাংক, গ্রামীণ ফোন কিন্তু সামাজিক ব্যবসার মডেল নয়। এর একটি ক্ষুদ্রঋণ সংস্থা এবং অন্যটি প্রচলিত কর্পোরেট ব্যবসা। কাজেই ইউনূসের সামাজিক ব্যবসা নিয়ে কথা বলতে গিয়ে আশা করি কেউ এদুটি ব্যবসা নিয়ে কথা বলবেন না। তার অন্যান্য ব্যবসা নিয়ে আলোচনা করতে চাইলে অবশ্যই এদুটি নিয়ে বলতে পারেন।

====================

২ নভেম্বর ২০১০, মঙ্গলবার

গ্রামীণ ব্যাংক, গ্রামীণ ফোন কিন্তু সামাজিক ব্যবসার মডেল নয়। এর একটি ক্ষুদ্রঋণ সংস্থা এবং অন্যটি প্রচলিত কর্পোরেট ব্যবসা।

না, গ্রামীণ ব্যাংক সম্বন্ধে যা জানতাম তা ঠিক নয়। বলা হচ্ছে গ্রামীণ ব্যাংক সামাজিক ব্যবসার মা।

The Grameen Bank is the first social business. Interestingly, it gives the poor not only access to capital, but allows them to be the owners of the bank and thereby benefit from any dividend payments.

বিস্তারিত পড়ুন এখানে

তার মানে সামাজিক ব্যবসা নতুন কোনো কথা নয়, তাহলে সামাজিক ব্যবসার কথা নোবেল এর আগে কেন শুনলাম না। আমরা অজ্ঞ! সত্যিই অজ্ঞ! আমাদের আর কিছু হবে না!

====================

৪ মার্চ ২০১১, শুক্রবার

যেটুকু সুদ নেয়া হয় সেটা হচ্ছে অর্থায়নের খরচ নির্বাহ করার জন্য।

এই মন্তব্যটি আগে ঠিক মতো খেয়াল করা হয়নি। অর্থায়নের খরচ নির্বাহ এর জন্য তো processing fee বা service charge আছেই, যেকোনো ক্ষুদ্র বা বৃহৎ ঋণে এটি সুদের চেয়ে আলাদা করেই নেয়া হয়। বৃহৎ বা এসএমই ঋণে processing fee বা service charge ঋণ দেয়ার সময়েই নিয়ে ফেলা হয় আর ক্ষুদ্র ঋণে processing fee বা service charge সুদের সাথে যোগ করে নেয়া হয়। এবং ক্ষুদ্র ঋণের processing fee বা service chargeটাই একটা বড় সমস্যা কারণ বৃহৎ বা এসএমই ঋণের চেয়ে ক্ষুদ্র ঋণে এটা অনেক বেশি, কারণ খুব সহজ ঋণ ১০ টাকা হোক বা ১০০০টাকা হোক প্রতিটি ঋণের জন্যই একটা ফাইল চালাতে হয় এবং কাজের স্বাভাবিক ধরণ অনুযায়ী ওই একটা ফাইল চালাতে টাকার সংখ্যা যাই হোক না কেন নির্বাহী খরচ প্রায় সমান। তার উপর processing fee বা service chargeটা এককালীন না নিয়ে যখন একেও কিস্তিতে রূপান্তরিত করা হয় তখন কিস্তি নির্ধারণের স্বাভাবিক চক্রবৃদ্ধি নিয়মে ক্ষুদ্র ঋণের গ্রাহককে ওই বেশির চেয়ে আরো বেশি পরিশোধ করতে হয়।

ক্ষুদ্র ঋণ নিয়ে ঠিক এইজায়গাটাতে নিয়মিত কাজ হওয়া উচিত, processing fee বা service charge এর দৈত্যটাকে কত আরো গ্রাহক বান্ধব করা যায় এর জন্য অর্থনীতি ও অর্থসংস্থানবিদ্যার আরো কী কী টুল ব্যবহার করা যায় এনিয়ে নিয়মতান্ত্রিক সার্বক্ষণিক কাজের জন্য সবার আগে ইউনূসেরই উদ্যোগী হওয়া উচিত ছিল, এবং গ্রামীণ ব্যাংকের দ্বিতীয় না হলেও তৃতীয় দশকের শুরুতে তারই একাজ করা উচিত ছিল — কিন্তু তিনি তা করেননি, এর মধ্যে আবার নোবেল পেয়ে স্বাবাবিকভাবে তার দুনিয়ার সময় যত বেড়েছে দেশের সময় তত কমেছে, ফলে ‘গ্রামীণ ব্যাংক’কে সবল করতে বা যে ক্ষুদ্র ঋণকে তিনি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়েছেন তাকে আরো গ্রাহকবান্ধব করতে তিনি ব্যর্থ হয়েছেন। জানি না ‘গ্রামীণ ব্যাংক’এর ভবিষ্যৎ কীহবে বা বাংলাদেশে ক্ষুদ্র ঋণের গ্রাহকবান্ধবতা আরো বাড়বে কিনা, কিন্তু এটা জানি এই অর্থনৈতিক ও অর্থসংস্থানবিদ্যার ফলিত উৎপাদন ‘ক্ষুদ্র ঋণ’কে ঠিক মতে চালাতে ব্যর্থ হলে এমন একটা বিকট মন্দায় আমরা আক্রান্ত হব যেমন্দার কোনো ধারণা করা এখনই আমাদের দ্বারা সম্ভব না হলেও ‘ক্ষুদ্র ঋণের জাল’এর ব্যপকতা চিন্তা করে সেই মহামন্দার কল্পনা কারো জন্যই কঠিন নয়।

=======================

৬ সেপ্টেম্বর ২০১২, বৃহস্পতিবার

একথা

A social business is a non-loss, non-dividend company

এবং একথা

The Grameen Bank is the first social business.

পড়ে সবকিছুর পরও এই আস্থাটা ছিল, আচ্ছা গ্রামীণ ব্যাংকই প্রথম সামাজিক ব্যবসা — এই ব্যবসায় ক্ষতি নেই ডিভিডেন্ড নেই। কিন্তু এখন ইউনূস সেন্টার বলছে গ্রামীণ ব্যাংক শেয়ার হোল্ডারদের ডিভিডেন্ড দেয়। কী যাদু করিলা কী সামাজিক ব্যবসা শিখাইলা!

০৫. প্রশ্নঃ যদি শেয়ারহোল্ডার থেকে থাকে, তবে কোনদিন তাদেরকে ডিভিডেন্ড দেয়া হলো না কেন? মুনাফার টাকা কি প্রফেসর ইউনূস এবং তার সঙ্গী-সাথীরা তাহলে হজম করে ফেলেছেন?

উত্তরঃ গ্রামীণ ব্যাংক বরাবর শেয়ারহোল্ডারের ডিভিডেন্ড দিয়ে এসেছে। গ্রামীণ ব্যাংকের প্রত্যেক সদস্য যেকোন সময় ১০০ টাকা দিয়ে গ্রামীণ ব্যাংকের একটি শেয়ার কিনতে পারেন। ৮৪ লক্ষ ঋণ গ্রহীতাদের মধ্যে ৫৫ লক্ষ ঋণ গ্রহীতা এ পর্যন্ত শেয়ার কিনেছেন। এর মাধ্যমে তারা ৫৫ কোটি টাকার শেয়ার কিনে ৯৭ শতাংশ মূলধনের মালিক হয়েছেন। সরকার ও সরকারি ব্যাংক ১ কোটি ৮০ লক্ষ টাকার শেয়ার কিনে ৩ শতাংশ শেয়ারের মালিক।

এপর্যন্ত গ্রামীণ ব্যাংক সরকারকে ১ কোটি ২০ লক্ষ টাকার শেয়ারের বিনিময়ে ২ কোটি ৫২ লক্ষ টাকা, সোনালী ব্যাংক ও কৃষি ব্যাংককে প্রত্যেকে ৩০ লক্ষ টাকার শেয়ারের বিনিময়ে ৬৩ লক্ষ টাকা লভ্যাংশ দিয়েছে।

সদস্যরা ৫৫ কোটি টাকার শেয়ারের বিনিময়ে ৭৭ কোটি টাকা লভ্যাংশ পেয়েছেন (সদস্যরা তুলনামূলকভাবে কম পেয়েছেন, যেহেতু ২০০৬ সালের পরবর্তী সময়ে যারা শেয়ার কিনেছেন তারা অপেক্ষাকৃত কম সময়ের মেয়াদে লভ্যাংশ পেয়েছেন)। প্রত্যেক সদস্যকে প্রতি বছর লভ্যাংশ তার কাছে পৌঁছে দেয়া হয়।

=========================

১ ডিসেম্বর ২০১০, বুধবার

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের হাতে আসা নথিপত্রে দেখা গেছে, দারিদ্র্য দূর করার জন্য ভর্তুকি হিসেবে গ্রামীণ ব্যাংককে ১৯৯৬ সালে বিপুল পরিমাণ অর্থ দেয় ইউরোপের কয়েকটি দেশ। নরওয়ে, সুইডেন, নেদারল্যান্ডস ও জার্মানির দেওয়া অর্থ থেকে ১০ কোটি ডলারেরও বেশি গ্রামীণ ব্যাংক থেকে গ্রামীণ কল্যাণ নামে নিজের অন্য এক প্রতিষ্ঠানে সরিয়ে নেন ইউনূস।

লাভহীন গল্পের লাভের খাল কীকরে কাটতে হবে তাই কি শেখাচ্ছেন সামাজিক ব্যবসার প্রবক্তা?

বিস্তারিত পড়ুন এখানে

===================

২৬ ডিসেম্বর ২০১০, রবিবার

গতকাল রবিবার রাজধানীর মিরপুরে গ্রামীণ ব্যাংক প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে এসব কথা বলেন শান্তিতে নোবেল পুরস্কার বিজয়ী এই অর্থনীতিবিদ। গ্রামীণ ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক নূরজাহান বেগম ও মহাব্যবস্থাপক এম শাহজাহানসহ প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এই লিখিত বক্তব্যের পূর্ণ বিবরণী কারো কোথাও চোখে পড়েছে? আমি কালের কণ্ঠে দুঃখ পেয়েছি লড়াই করতে চাই না : ড. ইউনূস পড়লাম এরপর আরো কয়েকটি পত্রিকায় লিখিত বক্তব্যটি পাওয়া যায় কিনা খুঁজলাম। পেলাম না, সব পত্রিকাতেই উদ্ধৃতি দিয়ে ইউনূসের বক্তব্য জানানো হয়েছে। কিন্তু সংবাদ সম্মেলনে পঠিত পূর্ণাঙ্গ লিখিত বক্তব্যটি পড়বার প্রয়োজন ছিল। এই লিখিত বক্তব্যের হদিস কারো জানা থাকলে এখানে মন্তব্য আকারে তুলে দিতে পারেন।

=======================

১৭ জানুয়ারি ২০১১, সোমবার

ফান্ডের পরিচালক ও উপমহাব্যবস্থাপক কাজী সুলতান আহমেদ বলেন, ‘কারখানায় লাভ না হলে তো রফিককে বেতন দিতে পারি না।’

এই ‘গ্রামীণ ফান্ড’ প্রতিষ্ঠানটি কি সামাজিক ব্যবসা না অসামাজিক ব্যবসা। যদি অসামাজিক ব্যবসা হয় তাহলে কোনো কথা নাই, আর যদি সামাজিক ব্যবসা হয় তাহলে দুইখান কথা আছে — ব্যবসাটা কার জন্য সামাজিক, রফিকের জন্য না ফান্ডের জন্য? যদি রফিকের জন্য হয় তাহলে কোনো কথা নাই, আর যদি ফান্ডের জন্য হয় তাহলে…

গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি ড. ইউনূসের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তা সম্ভব হয় না।

ইউনূস মহোদয় কি মৌনব্রত নিলেন? তিনি কথা বলেন না কেন?

==============

২ মার্চ ২০১১, বুধবার

গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে ইউনূসকে অপসারণ করা হয়েছে।

নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে অপসারণ করা হয়েছে। তবে এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে তিনি হাইকোর্টে যাবেন।

বুধবার বাংলাদেশ ব্যাংকের এক চিঠিতে ইউনূসের অপসারনের কথা জানানো হয়। এতে স্বাক্ষর করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর নজরুল হুদা ।

চিঠিতে ড. ইউনূসকে অপসারণ করার কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, ১৯৮২ সালের গ্রামীণব্যাংক অধ্যাদেশ এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের কোম্পানি আইন অনুযায়ী ৬০ বছর পার হওয়ার পর ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে কেউ থাকতে পারেন না। থাকলেও তাকে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন নিতে হবে। কিন্তু ড. ইউনূস তার বয়স ৬০ বছর পার হওয়ার পরও এব্যাপারে কোনো অনুমোদন নেননি।

অর্থমন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র জানায় বৃহস্পতিবার সকালে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত তার সচিবালয় কার্যালয়ে এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলবেন।

এদিকে, ড. ইউনূস এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে যাওয়ার উদ্যোগ নিয়েছেন। এরই মধ্যে তার আইনজীবীরা এ ব্যাপারে প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে বাংলানউজকে জানায় সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র।

এদিকে ডক্টর ইউনূসকে অপসারণের সিদ্ধান্তটি এরই মধ্যে বাংলাদেশে নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের দূতাবাস ও সংস্থার কূটনীতিক ও প্রতিনিধিদের আনুষ্ঠানিকভাবে জানানোর ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

ভারত, চীন, ইউইউ, বিশ্বব্যাংক, আইএমএফসহ বিভিন্ন দেশ ও সংস্থা এ তালিকায় রয়েছে।

খবরের লিন্ক এখানে

====================

৩ মার্চ ২০১১, বৃহস্পতিবার

ইউনূসের অপসারণ এখনো খবরের পর্যায়ে আছে, এর পরিণতির দিকে আমাদের লক্ষ্য রাখতে হবে, ক্ষুদ্রঋণকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়ে বিখ্যাত হয়েছেন ইউনূস — প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে গিয়ে যেপ্রতিষ্ঠানটি গড়েছেন প্রতিষ্ঠান হিসেবে সেই ‘গ্রামীণ ব্যাংক’কে ঠিকমতো সংগঠিত করতে হয়ত পারেননি ইউনূস, অথবা সংগঠিত করতে চাননি। ‘গ্রামীণ ব্যাংক’ তো খাতুনগঞ্জমার্কা লিমিটেড কোম্পানি নয়, রীতিমতো এক বৃহৎ বিখ্যাত আর্থিক প্রতিষ্ঠান, সেই কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগ বা আজীবন নিয়োগ শুধু অফিসের ফাইলে নয় জাতীয় দৈনিকগুলোতেও খবর হবে এটাই তো নিয়ম। এত কথা না বলে ইউনূস সেরকম একটা রেফারেন্স কেন দিতে পারছেন না যে তমুক তারিখের তমুক পত্রিকায় দেখুন আমি ‘গ্রামীণ ব্যাংক’এর পরিচালনা পর্ষদের সিদ্ধান্তে আজীবনের জন্য ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে নিয়োগ পেয়েছি এবং পরিচালনা পর্ষদের এই সিদ্ধান্ত বাংলাদেশ ব্যাংক তমুক দিন তমুক আদেশ বলে কার্যকর করেছে। এবং এই রেফারেন্সগুলো তো একটা সাধারণ ব্যাংকের সাধারণ ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাধারণভাবে তাৎক্ষণিকভাবেই দিতে পারে, তাহলে অসাধারণ ইউনূসের এই অবস্থা কেন? একটা অতিসাধারণ ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগ বিতর্কে তাকে একেবারে হাইকোর্টে কেন যেতে হচ্ছে? তাহলে কি এটা বুঝতে হবে অসাধারণ হতে গেলে এরকমই হতে হবে? নাকি এটা বুঝতে হবে ‘গ্রামীণ ব্যাংক’এর পরিচালনা পর্ষদ বলে যা আছে বা ছিল তার কোনো কার্যকারিতা কখনো ছিল না? — অনেকটা আমাদের একান্ত পারিবারিক লিমিটেড কোম্পানিগুলোর মতো? খুবই দুঃখজনক যে ‘গ্রামীণ ব্যাংক’এর মতো একটা সুবৃহৎ পাবলিক প্রতিষ্ঠান এরকমভাবে চলছে!
নাকি নোবেল পাওয়ার পর তিনি ভেবেছেন এই শাক দিয়ে তিনি এবার তার সাথে সংশ্লিষ্ট সব মাছ একে একে ঢেকে দেবেন

=================

৩ মার্চ ২০১১, বৃহস্পতিবার

নিদ্রা ভাল, তারচেয়ে ভাল শীতের নিদ্রা। ৬০, ৭০ নিয়ে খুব কথা হচ্ছে। কিন্তু গ্রামীণ ব্যাংকের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ঘটনা সরকারের শেয়ার ৭৫ শতাংশ থেকে ২৫ শতাংশ কিভাবে হল, এ বিষয়ে অর্থাৎ ৭৫,২৫ নিয়ে আলোচনা হওয়া সবচেয়ে জরুরি। আমি নিজে এবিষয়ে এখনো কিছু জানি না, আজ থেকে খুঁজতে শুরু করব, আর কেউ জানলে তো আশা করি এই মন্তব্যের ঘরেই তা জানতে পারব।

====================

৬ মার্চ ২০১১, রবিবার

গ্রামীণ ব্যাংকে সরকারের শেয়ার কত? কেউ বলছেন ২৫%, কেউ ৬%, কেউ ৩.৫%। গ্রামীণ ব্যাংকের ওয়েবসাইটে পেলাম

Today Grameen Bank is owned by the rural poor whom it serves. Borrowers of the Bank own 90% of its shares, while the remaining 10% is owned by the government.

লিন্ক এখানে

কিন্তু সরকারের সব শেয়ার আবার সরকারের নয়, ২০০৬-এর এক হিসাব থেকে পাওয়া যায় : ব্যাংকের ৩১.৮ কোটি পরিশোধিত মূলধনের ৩০ কোটি গ্রামীণ ব্যাংকের ঋণগ্রহীতাদের, ১.২ কোটি বাংলাদেশ সরকারের, ৩০ লাখ সোনালী ব্যাংকের ও ৩০ লাখ বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের। তাহলে গ্রামীণ ব্যাংকের ঋণগ্রহীতাদের ৯৪.৩৩%, বাংলাদেশ সরকারের ৩.৭৭% এবং সোনালি ব্যাংক ও কৃষিব্যাংক উভয়ের .৯৫% করে — এই ছিল ২০০৬ সালের শেয়ারের ভাগাভাগি, এ অনুযায়ী সরকার ও সরকারী দুই ব্যাংক মিলে শেয়ার প্রায় ৬%। লিন্ক এখানে। এর অর্থ হল গ্রামীণ ব্যাংক প্রদত্ত তথ্য অনুযায়ী ২০০৬-এর পরে গ্রামীণ ব্যাংকে সরকার ও সরকারী দুই ব্যাংকের অংশীদারিত্ব প্রায় ৬% থেকে বেড়ে ১০% হয়েছে।

কিন্তু ১৯৮৩ সালে গ্রামীণ ব্যাংক কত পরিশোধিত মূলধন নিয়ে কোম্পানিটি শুরু করেছে এবং তখন সেই পরিশোধিত মূলধনে কার কত ভাগ ছিল তার কোনো হিসাব আমি এখনো গ্রামীণ ব্যাংকের ওয়েবসাইটে খুঁজে পাইনি বা অন্য কোনো মাধ্যম থেকেও সংগ্রহ করতে পারিনি। শুধু গ্রামীণ ব্যাংকের ওয়েব সাইটে এখানে ১৯৯৭ সাল থেকে ২০০৯ পর্যন্ত পুরশোধিত মূলধন পাওয়া যাচ্ছে, যেমন ১৯৯৭ সালে পরিশোধিত মূলধন ছিল ২৪.৬ কোটি — ২০০০ সালে ২৭ কোটি, এরকম একযুগের পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ জানা গেলেও ভাগাভাগিটা জানা যাচ্ছে না। কাজেই ১৯৮৩ সালে সরকার কত দিয়ে শুরু করেছিল এবং এখন যেখানে এসেছে এবং কিভাবে এসেছে তার কোনো চিত্র আমরা ঠিক পাচ্ছি না। এক্ষেত্রে আমরা অন্ধকারেই আছি এবং এর জন্য সরকার ও গ্রামীণ ব্যাংক উভয়েই দায়ী অথবা দায়ী আমি হয়ত আমি পুরোপুরি ব্যাপরটি বের করতে পারিনি।

========================

৪ মার্চ ২০১১, শুক্রবার

বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূতেরা সাধারণত মধ্যমমানের কূটনীতিবিদ হন

কিন্তু মারিয়ার্টি মধ্যম মানের নয়, তার মান এরও নিচে। এর প্রমাণ সাংবাদিকদেরকে বলা তার এই কথা

Moriarty said, “It strikes us. It is an unusual way to handle a Nobel laureate, who is considered outside the country as one of the greatest Bangladeshis.”

নোবেল কমিটি তার এই ভক্তকে দিয়ে এই দেশে দ্বিতীয় ব্লাসফেমি আইন আনবেন কিনা? প্রথমত হযরতের অবমাননা করা যাবে না, দ্বিতীয়ত Nobel laureate-এর অবমাননা করা যাবে না। জীবনানন্দের বাক্যে : মারিয়ার্টি গাড়লের মতো গেল কেশে

====================

৫ মার্চ ২০১১, শনিবার

ক্ষুদ্রঋণের আলোচনা শুধু গ্রামীণ ব্যাংকের মধ্যে আবদ্ধ না রেখে আমাদের এই সরকারী প্রতিষ্ঠানটির দিকে মনে হয় নজর দেয়া উচিত, পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন বা সংক্ষেপে পিকেএসএফ — নীরবে নিভৃতে এই প্রতিষ্ঠান ২০ বছর ধরে কাজ করে যাচ্ছে এবং বাংলাদেশের ক্ষুদ্রঋণের একটা বড় অংশের নিয়ন্ত্রণ এখন এই প্রতিষ্ঠানের হাতে, আজই প্রথম আমি এই প্রতিষ্ঠানটি সম্বন্ধে জেনেছি। প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইট : http://www.pksf-bd.org

==============

৭ মার্চ ২০১১, সোমবার

অনুরাগ বেহার মনে করেন সামাজিক ব্যবসার মন নিয়ে লিখতে হলে উপন্যাসই লিখতে হয়, কিন্তু তিনি লিখছেন কলাম এবং সেই কলামে কিছু হলেও বলতে পেরেছেন তিনি এই মনের কথা। বিশেষত সামাজিক ব্যবসার পণ্যের মূল্যনির্ধারণ কিকরে হবে?

When deciding pricing, should they price such that they just cover their costs and investment needs, or should they price to the maximum that the market can bear? Should they share their intellectual property freely or should they “price” it? Should they raise private capital or depend on public funding?

I have seen them struggle with what takes priority—profit or purpose. The founder(s) sometimes maintain a fine balance, but often even they are unclear. Sometimes the conflict is not apparent, and the unconscious brush it aside.

As their organizations grow, this conflict becomes sharper and more frequent. And in such larger enterprises, as more people get involved in these key decisions, the balance between purpose and profits sometimes loses relevance.

The even more intriguing human journeys are those of founder(s), who start with “purpose first”, but along the way drift to “profit first”, without realizing the pass that they have come to, believing that they are serving the purpose through profit. As I said earlier, this is the stuff that needs a contemplative novel—not a newspaper column. It’s a matter of hearts and minds of men, which often the individual in question also does not know.

বিস্তারিত পড়ুন এখানে

======================

১৩ জুন ২০১২, বুধবার

বয়স হলে কি মানুষের ফিকশনের প্রতি আকর্ষণ বাড়ে? ইউনূস কেমন ফিকশনের দিকে ঝুঁকেছেন, তরুণ তরুণীদের সামাজিক ফিকশন লিখতে বলেছেন ইউনূস। সামাজিক ফিকশন, ওফ, কালে কালে আরো কত যে দেখব!

=================

২ জুলাই ২০১২, সোমবার

সামাজিক ফিকশন চলুক। পরে এই সামাজিক ফিকশনগুলো থেকে বেছে সামজিক ছবি বানানোর উদ্যোগও নিতে হবে।

[http://nirmaaan.com/blog/nur-nobi-dulal/6119 সূত্র]

Advertisements
3 Comments
  1. PM slams Muhith for remarks on microcredit

    Prime Minister Sheikh Hasina criticised on Saturday her cabinet member AMA Muhith for praising the role of microcredit and Dr Muhammad Yunus in eradicating the country’s poverty, reports UNB.

    “A couple of days back, our Finance Minister highly praised microcredit and said poverty eradication has been done successfully due to microcredit. If poverty has been reduced for him (Dr Muhammad Yunus) then why the poverty rate was 60 per cent and reduced to 22 per cent now,” she said.

    The Prime Minister was speaking at the national council of Bangladesh Mahila Awami League at Krishibid Institution, Bangladesh (KIB).

    She said, “I’ll request the honorable finance minister to take the statistics during which regime poverty has been reduced. This is, of course, during the Awami League regime. It came down due to steps taken by the AL government where the finance minister was involved.”

    During the 1996-2001 rule, the Prime Minister said, then finance minister SAMS Kibria was involved. “As a result, the poverty has reduced.”

    During the BNP’s rule and caretaker governments the poverty reduction pace got stalled, she said adding that as it was nourished through microcredit while the microcredit lenders accumulated wealth.

    Hasina said the hard-earned money of the rural women is used for repaying the high interest rate of the microcredit. “They live from hand to mouth, but cannot come out from the poverty, and those who do the microcredit business don’t want poor people to come out of poverty cycle as it’ll stop their business.”

    She said the main aim of her government is to remove poverty from the country. “It’s a matter of regret that he (Finance Minister Muhith) praised such a man who stopped the World Bank from financing the Padma Bridge project… I had been threatened repeatedly by the USA. But he highly appreciated that person,” Hasina said.

    The Prime Minister said she is there in politics to improve the fate of the country’s common people, not to do business with them.

    Earlier on March 02, Finance Minister AMA Muhith praised Nobel Laureate Prof Muhammad Yunus and Brac founder Fazle Hasan Abed for their pioneering efforts to eradicate poverty from the country.

    “They (Yunus and Abed) are revered personalities. We should respect them,” he said while speaking at a function titled ‘Modernisation of Loan Management System’ at LGED auditorium in Agargaon.

    Muhith said the initiatives of Prof Yunus and Sir Abed started on a very small scale but over the years they transformed those initiatives into institutions.

    “I think these two projects [Grameen Bank and Brac] exhibited the country’s success in poverty alleviation,” Muhith said adding that they have helped people thrive on their hidden talents.

    http://print.thefinancialexpress-bd.com/2017/03/05/166415

    মুহিতের সমালোচনায় হাসিনা

    দারিদ্র্য বিমোচনে ক্ষুদ্র ঋণের ভূমিকার প্রশংসা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমালোচনায় পড়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

    শনিবার রাজধানীর ‍কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে মহিলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্ষুদ্র ঋণ নয়, সরকারের পদক্ষেপের ফলেই দারিদ্র্য বিমোচন হচ্ছে।

    বৃহস্পতিবার সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের (এসডিএফ) এক অনুষ্ঠানে দারিদ্র্য বিমোচনে ক্ষুদ্র ঋণের প্রশংসা করেছিলেন মুহিত।

    তিনি বলেছিলেন, “একসময় এদেশে ৭০ শতাংশ মানুষ দরিদ্র ছিল। সেখান থেকে এখন ২২ শতাংশে নেমে এসেছে। গ্রামীণ ব্যাংক এ ভূমিকাটি সাফল্যের সঙ্গে পালন করেছে।”

    তার বক্তব্যের সূত্র ধরে শেখ হাসিনা বলেন, “কয়েকদিন আগে আমাদের অর্থমন্ত্রী খুব মাইক্রোক্রেডিটের প্রশংসা করে বললেন যে ক্ষুদ্র ঋণের জন্য নাকি দারিদ্র্য বিমোচন হয়েছে।

    “ক্ষুদ্র ঋণে দারিদ্র্য লালন-পালন হয়। আর, যারা ক্ষুদ্র ঋণের ব্যবসা করে তারা সম্পদশালী হয়। তারা ধনশালী হয়। কারণ, সপ্তাহে সপ্তাহে সুদ ওই গরিবের। মাথার ঘাম পায়ে ফেলে যে টাকা কামাই করে, সেটা তার সুদ হিসাবে চলে যায়। কোনো মতে খেয়েপরে বেঁচে থাকতে পারে, কিন্তু দারিদ্র্যের হাত থেকে উঠে আসতে পারে না।”

    “আর, যারা এই ব্যবসা করে তারা চায়ও না এই দারিদ্র্য থেকে উঠে আসুক। কারণ, দারিদ্র্য থেকে উঠে আসলে, তাদের ব্যবসাই চলে যাবে। তারা কাকে নিয়ে আর ব্যবসা করবে?”

    দারিদ্র্যের হার ২২ শতাংশে নেমে আসার দিকে অর্থমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “তার জন্য যদি দারিদ্র্য বিমোচন হয়, তবে ৬০ শতাংশের মতো দরিদ্র থাকে কেন? আর, আজকে ২২ শতাংশে নেমে এসেছে কেন?”

    দারিদ্র্য বিমোচনে নিজের সরকারের নেওয়া পদক্ষেপগুলো নিজের সরকারের অর্থমন্ত্রীকে মনে করার তাগিদ দেন শেখ হাসিনা।

    “আমি মাননীয় অর্থমন্ত্রীকে বলব, উনি একটু যাতে হিসাব নেন, এই যে ২২ ভাগে নেমে এসেছে, সেটা কাদের আমলে? আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর। আওয়ামী লীগ সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ.. যেটা মাননীয় অর্থমন্ত্রী এই কর্মসূচি নিয়েছেন।”

    সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর ক্ষমতাসীন হয়ে অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়াকে দিয়ে কিছু কর্মসূচি বাস্তবায়ন করায় দারিদ্র্য বিমোচন শুরু হয়েছিল বলেও শেখ হাসিনা উল্লেখ করেন।

    গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা ব্যবস্থাপনা পরিচালক নোবেলজয়ী মুহাম্মদ ইউনূসের প্রশংসা করা নিয়েও মুহিতের সমালোচনা করেন শেখ হাসিনা।

    শেখ হাসিনা বলেন, “আমার দুঃখ লাগে.. তিনি এমন একজনের প্রশংসা করে ফেললেন, যার কারণে আমার পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন বন্ধ করে দিল ওয়ার্ল্ড ব্যাংক। বারবার আমাকে থ্রেট দেওয়া হয়েছিল আমেরিকা থেকে।

    “অথচ তিনি আবার প্রশংসায় পঞ্চমুখ। যা হোক এটা তাদের চিন্তা ভাবনা।”

    http://bangla.bdnews24.com/economy/article1297686.bdnews

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: